এরশাদই ইসলামকে রাষ্ট্রধর্ম করেছিলেন : ব্যারিষ্টার আমির

এই সংবাদ ৩০৬ বার পঠিত

সিনিয়র রিপোর্টার :

বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র মিলনায়ত-এ “Protection of Rights in Bangladesh ( PRB )” আয়োজিত “ ফিদেল কাস্ত্রো এ্যাওয়ার্ড – ২০১৭ইং ‘’ প্রদান অনুষ্ঠানে সংবিধান প্রণেতা, সাবেক মন্ত্রী ও সিনিয়র আইনজীবি ব্যারিষ্টার আমির-উল-ইসলাম প্রধান অতিথির বক্তব্যে বলেন, আমরা সংবিধানে ‘ধর্মনিরপেক্ষতা’র কথা উল্লেখ রেখেছিলাম।

পরবর্তিতে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ক্ষমতায় আসার পর তিনি ‘ধর্মনিরপেক্ষতা’ বাদ দিয়ে ‘ইসলাম’কে রাষ্ট্রধর্ম করে সংবিধানে পরিবর্তন এনেছিলেন, সুতরাং ‘ধর্মনিরপেক্ষতা’ বাদ দেওয়ার দায় যেমন এরশাদের উপর বর্তায়, ঠিক তেমনি ‘ইসলাম’কে রাষ্ট্রধর্ম করার কৃতিত্বও তাঁরই।

“ ফিদেল কাস্ত্রো এ্যাওয়ার্ড – অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন সাবেক শিল্পমন্ত্রী দিলীপ বড়ুয়া।

প্রধান আলোচক ছিলেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক মাননীয় প্রতিমন্ত্রী বেগম মেহের আফরোজ চুমকি এমপি। বিশেষ অতিথি ছিলেন এ্যাড. ধীরেন্দ চন্দ্র দেবনাথ সন্ভু এমপি., এ্যাড. হোসনে আরা বেগম বাবলী এমপি, সাবেক চেয়ারম্যান- বাংলাদেশ বিনিয়োগ বোর্ড ও ইতিহাসবিদ সিরাজ উদ্দিন আহমেদসহ অন্যান্য বিশিষ্ট ব্যাক্তিবর্গ। 

অনুষ্ঠানে দেশের প্রায় সকল সরকারি বিশেষ প্রতিষ্ঠানে দায়িত্বরত ব্যাক্তিবর্গকে তাঁদের স্ব-স্ব প্রতিষ্ঠানে যথাযথ দায়িত্ব পালন, সততা, নিষ্ঠা, কর্মদক্ষতা এবং মেধা ও যোগ্যতা দিয়ে নিজ প্রতিষ্ঠানের উন্নতিকল্পে যাঁরা কাজ করেছেন, তাঁদেরকে প্রধান অতিথি জনাব ব্যারিষ্টার আমির-উল-ইসলাম অনুষ্ঠানের পক্ষ থেকে সন্মাননা ক্রেষ্ট প্রদান করেন।

অনেকের মধ্যে জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় নির্বাহী সদস্য, জাতীয় যুব সংহতির সাবেক সহ-সভাপতি, সমবায় ব্যাংকের পরিচালক মোঃ হেলাল উদ্দিনকে তাঁর নিজ প্রতিষ্ঠান ( সমবায় ব্যাংক )-এ বিশেষ অবদান রাখার জন্য তাঁকে সন্মাননা ক্রেষ্ট প্রদান করা হয়।

হেলাল উদ্দিন এর সাফল্যে জাতীয় পার্টি ও যুব সংহতি পরিবার গর্বিত।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

স্টাফ রিপোর্টার

Bogra Offce

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com