জাতীয় পার্টি মহাসচিব

জোট করে ৩০০ আসনে লড়বে জাপা

৯৬ বার পঠিত

এইচ এম এরশাদের জাতীয় পার্টি আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জোট গঠন করে ৩০০ আসনে লড়বে বলে জানিয়েছেন দলটির মহাসচিব এ বি এম রুহুল আমীন হাওলাদার।

তিনি বলেন, ‘জোট গঠন করে ৩০০ আসনে নির্বাচন করবে এইচ এম এরশাদের জাতীয় পার্টি। তবে স্বাধীনতাবিরোধী কারো সঙ্গে জোট করা হবে না। বাকি সবার জন্যই জাতীয় পার্টির দরজা খোলা রয়েছে। জোট গঠন করেই আগামীতে পার্টির চেয়ারম্যানকে ক্ষমতায় আনতে হবে।’

রোববার দুপুরে রাজধানী রমনার ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে যুব সংহতির কেন্দ্রীয় সম্মেলন ও প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘পল্লিবন্ধুর নেতৃত্বে সমমনাদের নিয়ে বৃহত্তর জোট গঠন করা হচ্ছে। এ সিদ্ধান্ত পার্টির চেয়ারম্যানের। স্বাধীনতাবিরোধী ছাড়া যে কেউ আমাদের জোটে আসতে পারে। একজন হোক, ১০ জন হোক, বড় কথা হচ্ছে, যে আসবে পার্টির চেয়ারম্যানের কথা বলবে। শুধু আমরা দেখব, যারা আসছে তাদের কেউ স্বাধীনতাবিরোধী আছে কি না। বাকি সবার জন্যই আমাদের দরজা খোলা থাকবে।’

এরশাদের শাসনামলের কথা জনগণের কাছে তুলে ধরার আহ্বান জানিয়ে দলের মহাসচিব নেতা-কর্মীদের বলেন, ‘তোমরা ঘরে ঘরে যাও, জাতীয় পার্টির শাসনামলের কথা তুলে ধরো। পার্টির চেয়ারম্যানের পরিবর্তনের বার্তা পৌঁছে দাও। জনগণ অবশ্যই আমাদের সঙ্গে আছে। তারাও দেশের শান্তি ফিরিয়ে আনতে এরশাদকে ক্ষমতায় দেখতে চায়।’

তিনি আক্ষেপ করে বলেন, ‘আজকে জাতীয় পার্টি ক্ষমতায় থাকলে যুবকরা বেকার থাকত না, যুব সম্পদে পরিণত হতো। বাংলাদেশ হতো সিঙ্গাপুর, উন্নত আধুনিক একটি দেশ। কিন্তু ষড়যন্ত্র হলো, সব দল মিলে একদফা দিল। আমাদের চেয়ারম্যান রক্তপাতে ক্ষমতায় থাকতে চাননি। তাই তিনি শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা হস্তান্তর করে দেশের সাংবিধানিক ধারাবাহিকতা রক্ষা করেছিলেন। যদি তিনি গুলি করতেন, জোর খাটাতেন তাহলে ক্ষমতায় থাকতে পারতেন।’

দেশের বর্তমান পরিস্থিতিতে জনগণের নাভিশ্বাস উঠছে অভিযোগ করে হাওলাদার বলেন, ‘দেশের যে পরিস্থিতি- তাতে দিন দিন মানুষের কষ্ট বাড়ছে। শান্তি হারিয়ে যাচ্ছে, বেকারত্ব বাড়ছে। এ অবস্থার উত্তরণে পল্লিবন্ধুর বিকল্প নাই। তোমরাই (নেতা-কর্মী) পারো প্রাক্তন সফল রাষ্ট্রপতি এরশাদকে ক্ষমতায় আনতে।’

বিচারপতি সাহাবুদ্দিন আহমেদকে বেঈমান আখ্যায়িত করে জাপা মহাসচিব বলেন, ‘তিনি (সাহাবুদ্দিন আহমেদ) অন্যায়ভাবে পার্টির চেয়ারম্যানসহ নেতা-কর্মীদের জেলে পাঠালেন। তার কারণে কী অমানবিক অত্যাচার করা হলো আমাদের ওপর। এজন্য বিচারপতি সাহাবুদ্দিনকে বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড়াতে হবে।’

যুবসংহতির কেন্দ্রীয় আহ্বায়ক আলমগীর সিকদার লোটনের সভাপতিত্বে সদস্যসচিব ফকরুল আহসান শাহজাদার সঞ্চালনায় সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন পার্টির কো-চেয়ারম্যান রওশন এরশাদ এমপি, প্রেসিডিয়াম সদস্য স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রী মশউর রহমান রাঙ্গা, জাপা মহানগর দক্ষিণ সভাপতি সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা এমপি, মহানগর উত্তর সভাপতি এস এম ফয়সল চিশতী, নূরে হাসনা লিলি চৌধুরী এমপি, সুনীল শুভরায়, ইকবাল হোসেন রাজু, জহিরুল ইসলাম জহির, দিদারুল আলম দিদার, আরিফ খান, সরদার শাহজাহান, মহিলা পার্টির সেক্রেটারি অনন্যা হোসেন মৌসুমী, যুবসংহতির আবু সাইদ স্বপন, মিয়া আলমগীর, হেলাল উদ্দিন প্রমুখ।

সম্মেলনে প্রধান অতিথি ছিলেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ, কো-চেয়ারম্যান বেগম রওশন এরশাদ এমপি।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

স্টাফ রিপোর্টার

Bogra Offce

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com