দ্বীপ সরকার-এর ৩টি কবিতা

২০৪ বার পঠিত

অভিমানী রোদটা সরে সরে যাচ্ছিলো

এখনকার শীতের রোদ
পাকা টমেটোর মত কালারফুল জানেনতো,
সকালে জানালাটা খুলতেই হির হির করে
দাঁত কেলিয়ে ঢুকে পড়ছিলো বেড রুমে।
সেই রোদকেই  ধরতে গিয়েছিলাম-
রোদটা ক্রমশঃ সরে সরে যাচ্ছিলো।
আমার পোষা পাখির মতই
ঘরে ঢুকে আয়নাবাজি করে,
প্রতিবিম্ব ছড়ায় ড্রেসিং টেবিলে,
ঘরের ডাইনিং এ ওঠে,
দেয়ালে ওঠে,
আমি তাকে শত্রু ভেবে ধরতে যাই
কিন্ত রোদটা ধাতেছটার ফাঁকে অভিমানী
রোদ চলে যেতে থাকলে সাবলিল ধাঁচেরচিত  হয় গণদূপুর।

রোদকে যতই ধরতে যাই
রোদটা ক্রমশঃ সরে যেতেই থাকে।

অতঃপর যে যার মত পৃথক হয়ে গেলাম।
রোদ আর আমি।

লেখাঃ ২/১২/১৭ইং

মেয়েটি এবং জোসনার রাত

ওম ফুরিয়ে শীত গজিয়েছে হাতে
আর চুলে গজিয়ছে রাত…..

ঠিকরে ওঠা মেয়েটির নামতা শেখা চোখে
এই রকম একটা কিছু টের পাই

আবার

যাদুকরের সফেদ হাড় থেকে যখন
কঙ্কাবতী চাঁদ জোসনায় থৈ থৈ করে 
মনে হয় মেয়েটি পূর্ণিমার কোলে 
ছড়িয়ে দিচ্ছে ইলিশের খোসার পাঠ,
মেয়েটি যখন নরম হাসি হাসে
ঠিক এই রকম মনে হয়।

লেখাঃ ২৭/১২/২০১৬ইং

আমার মৃত্যুরা অন্য রকম

আমার মৃত্যুরা অন্য রকম….

ক্ষত থেকে ক্যান্সার না হয়ে 
হয় কবিতার পান্ডুলিপি, 
হয় শীতকালীন এ্যলোভেরার ঘ্রাণ,
ওরা যখনই এসে ঘারে বসে
প্রশ্ন তোলে ঈশ্বরের,
তখন আমার চোখে জন্ম নেয় আয়নার বীজ;
সে আয়নায় আমার মৃত্যুরা ভাসে আর ভাসে।
 
আমার মৃত্যুরা অন্য রকম….
 
শকুনের পায়ে যখন কিংবদন্তির মহাকাশ
জড়োসড়ো হয়ে আসে
তখন মনে হয় আমি মৃত মানুষ
অথবা মৃত মানুষের মতই ;
তাই মৃত্যুকে এঁটে রাখি নিঃশ্বাসের কূলুপে। 
 
লেখাঃ ১১।০১।১৭ইং
ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com