কুমিল্লার বিপক্ষে চিটাগংয়ের রোমাঞ্চকর জয়

২৯ বার পঠিত

উত্তেজনাপূর্ণ ম্যাচে মাশরাফির কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সকে ৬ উইকেটে হারিয়ে আসরের তৃতীয় জয় তুলে নিয়েছে তামিম ইকবালের চিটাগং ভাইকিংস। কুমিল্লার দেয়া ১৮৪ রানের টার্গেট ৪ বল হাতে রেখেই টপকে যায় চিটাগং। কুমিল্লার দেয়া ১৮৪ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে চিটাগং ভাইকিংসের দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও ডোয়াইন স্মিথ ২.৫ ওভারেই তোলেন ২৮ রান। স্পিনার হাবিবুর রহমান প্রথম ওভারে ১৮ রান দেয়ায়। দ্বিতীয় ওভারে বল তুলে দেন পাকিস্তানি পেসার সোহেল তানভীরের হাতে। কিন্তু তিনিও দেন ৯ রান। ফলে তৃতীয় ওভারে আক্রমণে আসেন মাশরাফি নিজেই। এসেই সাফল্য পান কুমিল্লার অধিনায়ক। ডোয়াইন স্মিথকে এলবিডব্লিউ করে ফেরান ম্যাশ।

এরপর দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে এনামুল হক বিজয়ের সঙ্গে ৬২ রানের জুটি গড়ে চিটাগংয়ের আশা জিইয়ে রাখেন তামিম ইকবাল। রায়ান ডেট ডেসকাটের করা ইনিংসের দশম ওভারের শেষ বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন তামিম। আউট হওয়ার আগে করেন ২৭ বলে করেন ৩০ রান। এরপর এনামুল হক বিজয়ও দ্রুত ফিরে গেলে চাপে পড়ে চিটাগং। দলীয় ১০৩ রানের মাথায় আউট হওয়ার আগে করেন ৩০ বলে ৪০ রান। সমান ২টি ছক্কা ও চারের সাহায্যে এ রান করেন বিজয়।

বিজয় আউট হওয়ার পর শোয়েব মালিক ও মোহাম্মদ নবি চতুর্থ ‍উইকেট জুটিতে করেন ৬৪ রান। সোহেল তানভীরের করা ইনিংসের ১৯তম ওভারের প্রথম বলে আউট হওয়ার আগে ২৫ বলে ৩৮ রান করেন মালিক। ৫টি বাউন্ডারির সাহায্যে এ রান করেন মালিক। শেষ ওভারে জয়ের জন্য চিটাগং ভাইকিংসের প্রয়োজন ছিল ৮ রান। মোহাম্মদ সাইফুদ্দিনের করা ২০তম ওভারের প্রথম বলে চার ও দ্বিতীয় বলে ছক্কা মেরে ৪ বল হাতে রেখে লক্ষ্যে পৌঁছে যায় চিটাগং ভাইকিংস। ২৪ বলে ৪৬ রান করে অপরাজিত থাকেন মোহাম্মদ নবি। 

কুমিল্লার হয়ে টেন ডেসকাট ২টি, মাশরাফি ১টি উইকেট নেন। এরআগে খালিদ লতিফ, আহমদ শেহজাদ ও ইমরুল কায়েসের ব্যাটিং নৈপুণ্যে ৩ উইকেট হারিয়ে ১৮৩ রান করে মাশরাফির কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। শুরুটা ভালোই করেছিলেন দুই ওপেনার নাজমুল হোসেন শান্ত ও খালিদ লতিফ। উদ্বোধনী জুটিতে ২৯ রান যোগ করেন এ দু’জন। ইনিংসের পঞ্চম ও নিজের প্রথম ওভারের প্রথম বলে শান্তকে বোল্ড করে ফেরান তাসকিন।

দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে খালিদ লতিফের সঙ্গে ৬৮ রানের জুটি গড়েন ইমরুল কায়েস। দলীয় ৯৭ রানে আউট হওয়ার আগে করেন ২৬ বলে ৩৬ রান।তৃতীয় উইকেট জুটিতে আহমেদ শেহজাদের সঙ্গে ৭০ রানের জুটি গড়েন স্বদেশি খালিদ লতিফ। তাসকিন আহমেদের করা ইনিংসের শেষ ওভারের প্রথম বলে রানআউট হয়ে ফেরার আগে ৭৬ রান করেন খালিদ। ৫৩ বলে ৫ ছক্কা ও ৬টি চারের সাহায্যে এ রান করেন তিনি।

এরপর আর কোনো উইকেট না পড়লে নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে ৩ উইকেট হারিয়ে ১৮৩ রান করতে সমর্থ হয় কুমিল্লা। আহমেদ শেহজাদ করেন ৪০ রান। ২৫ বলে ৫টি চারের সাহায্যে এ রান করেন তিনি। ৩ বলে খেলে ৯ রান করেন রায়ান টেন ডেসকাট।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com