জঙ্গীবাদ রুখতে করণীয় ।। তানিম হক

৬৮ বার পঠিত

গণতন্ত্রের সূতিকার যারা তারাই গণতন্ত্রের প্রোডাক্টকে বাচিয়ে রাখতে জঙ্গী বাদের সৃষ্টি করেছে, সন্দেহের তীর কিন্তু তাদের দিকেই, জননেত্রী মাননীয়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যখন এই দেশটাকে অতিকষ্টে উন্নয়নশীল রাষ্ট্রের দিকে নিয়ে যাচ্ছিলেন, তখনই একটি মহলের কুদৃষ্টি পড়ে যায় এদেশের উপরে, প্রকাশ পায় জঙ্গীবাদের । আমাদের এ পর্যন্ত যারা জঙ্গী হিসেবে খ্যাত হয়েছে , তারা বেশির ভাগই পুলিশী অভিযানে নিহত হয়েছে, তাই আমরাও অন্ধের মত জঙ্গী হাতড়ে বেড়াচ্ছি, জঙ্গী বিরোধী কার্যপরিকল্পনায় বিশিষ্টজনের মত গুলো এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নেওয়া বিভিন্ন পদক্ষেপ গুলো বেশিরভাগই শাসন করার মতই কিন্তু আমাদের মনে রাখতে হবে কেন বিপথগামী হবে এদেশের যুব সমাজ ?

নিশ্চয়ই এর পিছনে কোন কারণ থাকতে পারে, শুধুমাত্র ধর্মীয় উম্মাদনাকে দায়ী করলে চলবে না , জঙ্গীবাদ এর ধুয়ো তুলে দেশীয় সন্ত্রাসীরাও এর ফায়দা লুটতে পারে । জঙ্গী বিরোধী কমিটি কিংবা আইন এর অসৎ ব্যবহারও হতে পারে, তাতে নিরিহ গণ মানুষ ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে । হাতিয়ারের ব্যবহার জঙ্গীবাদকে সাময়িক রুখে দিতে পারে, তবে তা হয়তো কখনই রক্তপাত বিহীন হতে নাও পারে, জঙ্গীবাদ রূখতে আমাদের যে ফমূর্লার প্রজ্ঞাপন দেখতে পাচ্ছি তা আমার দৃষ্টিতে ভিষণ রকম ভুলে ভরা । এতে জনজীবন বির্পযস্ত হওয়া ছাড়া আর কিছুই হবে না, ক্ষমতাসীন দলে এবং সরকারী কিছু অসৎ লোক এর অপব্যবহার করতে পারে এটাই স্বাভাবিক ।

জঙ্গীবাদ রুখতে করণীয়ঃ
১। বেকারত্ব দুর করতে হবে ।
২। অর্থনতিক বৈষম্য দুর করতে হবে ।
৩। ধর্মীয় প্ররোচনা রুখতে হবে ।
৪। জনগণের অর্থনতিক অবস্থার নিরিখে ভ্যাট ট্যাক্স নির্ধারণ করতে হবে ।
৫। দরিদ্রদের জন্য রেশন কার্ডের ব্যবস্থা করতে হবে ।
৬। ঘুষবিহীন চাকুরীর ব্যবস্থা করতে হবে ।
৭। সরকারী ও রাজনৈতিক লোকদের ক্ষমতার অপব্যবহার থেকে বিরত রাখতে হবে ।
৮। সমাজিক জীবন ব্যবস্থার উন্নয়ন ঘটাতে হবে ।

সহজ সরল এই বীর বাঙ্গালীর ঘরেে অভাব না থাকলে, খামাখা বন্দুেকর নলের সামনে মরতে কেন যাবে ? দারিদ্রতা সুযোগ নিয়ে যেন এই দেশে আফগান না হয় , সেদিকে লক্ষ রাখতে হবে , জয় বাংলা ।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com