ছাত্রলীগের ইতিহাস বাঙালির ইতিহাস : ওবায়দুল কাদের

৩২ বার পঠিত

ছাত্রলীগের নামে কোনো অপকর্ম সহ্য করা হবে না বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে উন্নত করার যে শপথ গ্রহণ করেছেন সেখানে ছাত্রলীগকে ভ্যানগার্ড হিসেবে কাজ করতে হবে।’ রবিবার (২৭ নভেম্বর) দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় হল সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি। তিনি আরও বলেন, ‘ছাত্রলীগের ইতিহাস বাঙালির ইতিহাস। ছাত্রলীগের ইতিহাস-ঐতিহ্য ধরে রাখতে হবে। ছাত্রলীগকে সাধারণ জনগণের কাছে আকর্ষণীয় হতে হবে। ছাত্রলীগের ইতিহাস ও ঐতিহ্যের সঙ্গে প্রযুক্তির সমন্বয় ঘটাতে হবে এবং বাংলাদেশকে ডিজিটাল বাংলাদেশে পরিণত করতে হবে।’

‘ছাত্রলীগের নামে কোনো অপকর্ম সহ্য করা হবে না। ছাত্রলীগ সাম্প্রতিক সময়ে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে যে উদ্যোগ নিয়েছেন তা যথার্থ।’ তিনি শিক্ষার্থীদের প্রতি বঙ্গবন্ধুর আত্মজীবনী পড়ার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, পড়াশুনা না করে যোগ্য নেতা হওয়া সম্ভব নয়। ছাত্রলীগকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রাণিত হতে হবে। প্রযুক্তির সঙ্গে সবাইকে পরিচিত হতে হবে। প্রধানমন্ত্রীর হাতকে শক্তিশালী করার জন্য সকলকে কাজ করতে হবে।

কাদের বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আসলেই সেই দিনের কথা মনে পড়ে যায়। তিনি বঙ্গবন্ধুর স্মৃতিচারণ করে বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুর ঢাবিতে আসার কথা ছিল কিন্তু তার আগেই ঘাতকরা তাকে হত্যা করে। ছাত্রলীগই প্রথম বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচারের দাবিতে প্রতিবাদ করেছে। ক্ষমতার রাজনীতিতে অনেক বসন্তের কোকিল আসে, দলের খারাপ সময়ে এসব বসন্তের কোকিল হারিয়ে যায়। তাদের কাছ থেকে ছাত্রলীগকে সতর্ক থাকতে হবে।

আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে নেত্রী আমাকে যে দায়িত্ব দিয়েছেন তা বাস্তবায়নে আমি কাজ করে যাচ্ছি। রাজনীতিতে ত্যাগ স্বীকার করলে, ধৈর্য্য ধারণ করলে এর মূল্যায়ন পাওয়া যায়। মূল্যায়িত হওয়ার জন্য রাজনীতি নয়, রাজনীতি হচ্ছে আদর্শ। অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ, সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসেন ও সম্মেলনের উদ্বোধক ঢাবি ছাত্রলীগ সভাপতি আবিদ আল হাসান এবং সম্মেলনের প্রধান বক্তা ঢাবি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মোতাহার হোসেন প্রিন্স।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ ছাত্রলীগের সুশৃঙ্খলার কথা বলতে গিয়ে বলেন, আজকের ঢাবি ছাত্রলীগের এই হল সম্মেলনের মাধ্যমে আবারও প্রমাণিত ‘ছাত্রলীগ সুশৃঙ্খল সংগঠন’। ছাত্রলীগের ইতিহাস এই দেশের ইতিহাস। শেখ হাসিনা দেশের জনগণকে সুশিক্ষিত করার জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি আরও বলেন, আন্দোলনের নামে যখন বিএনপি, জামাত জালাও পোড়াও চালায়, মানুষকে পেট্রলবোমা মেরে হত্যা করে, আর ঢাবির শিক্ষকেরা সেই আন্দোলনে যখন সংহিত প্রকাশ করে তখন কষ্ট লাগে। শুধু পড়ালেখা শিখলেই হবে না, প্রত্যেকটি ছাত্রকে পড়ালেখার মাধ্যমে নৈতিক গুণাবলি অর্জন করতে হবে।

বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, ‘খালেদা জিয়া আজকে জনগণ থেকে বিছিন্ন। নারায়নগঞ্জের সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে নিয়ে যে প্রশ্ন তুলেছেন তাতে বোঝা যায়, বিএনপি নিজেরাই নিজেদের পরাজয় বুঝতে পেরেছেন। বিএনপির কোনো জনগণ নেই, আছে শুধু ষড়যন্ত্র। ছাত্র সমাজের সকলে একত্রে এই ধরনের ষড়যন্ত্রের থেকে দূরে থাকার জন্য আহ্বান জানান তিনি।

ঢাবি ছাত্রলীগের এই হল সম্মেলন সুন্দরভাবে আয়োজন করায় ধন্যবাদ জানিয়ে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ বলেন, যারা দীর্ঘ সময় বিগত হল কমিটিতে দায়িত্ব পালন করেছেন, আজ আপনাদের আনুষ্ঠানিক বিদায়। নতুন যারা সম্মেলনের মাধ্যমে নেতৃত্ব নিবেন সবাইকে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে নিয়ে কাজ করতে হবে। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ নিয়ে ছাত্রলীগের প্রত্যেক নেতাকর্মীদের কাজ করতে হবে। বাংলাদেশ ছাত্রলীগ নিরক্ষরমুক্ত বাংলাদেশ গড়তে সব সময় কাজ করবে বলে জানান তিনি। ভিশন-২০৪১ সাল বাস্তবায়নে সকলকে একত্রে কাজ করতে হবে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে হল সম্মেলনের উদ্বোধক ঢাবি ছাত্রলীগের সভাপতি আবিদ আল হাসান বলেন, ছাত্রলীগের সবাইকে শিক্ষার্থীদের পাশে দাঁড়াতে হবে। আমরা এই ক্যাম্পাস থেকে ব্যক্তিগত ফেস্টুন নামিয়েছি। আমরা প্রথম ছাত্র সমাবেশ করেছি। ঢাবি ছাত্রলীগ প্রথম বারের মত এই হল সম্মেলন আয়োজন করতে পেরে গর্বিত।

তিনি আরও বলেন, ছাত্রলীগের কর্মীদের নিয়মিত পড়ালেখা করতে হবে। ছাত্রলীগকে যাতে কেউ কলঙ্ক করতে না পারে সেই দিকে সবাইকে নজর দিতে হবে। লেখা পড়ার পাশাপাশি বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে ধারণ করতে হবে। ছাত্র জীবনে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বুকে ধারণ না করলে, সে ছাত্র হতে পারে না। এদিকে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসেন বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে নেতৃত্বে ভাণ্ডার। ঢাবি ছাত্রলীগ সব সময় আগামী দিনের চিন্তা করেই ছাত্রলীগের জন্য কাজ করে। মেধাবী শিক্ষার্থীদের ছাত্রলীগের নেতৃত্বে আসতে বলে। পড়ালেখার বিকল্প কিছু নেই। ঢাবি শিক্ষার্থীদের মেধাবী হতে হবে।

বাংলাদেশ জয় করলেই চলবে না, বিশ্বকেও জয় করতে হবে জানিয়ে তিনি আরও বলেন,  জাতীর জনকের আদর্শে আদর্শিত হয়ে দেশের জন্য কাজ করে যেতে হবে। বাংলাদেশকে নিরক্ষরমুক্ত করতে সকলের প্রতি আহ্বান জানান তিনি। অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তার বক্তব্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মোতাহার হোসেন প্রিন্স বলেন, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে কাজ করে যাচ্ছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগ ব্যক্তিগত চিন্তার উর্ধ্বে দেশের জন্য, সাধারণ শিক্ষার্থীদের জন্য কাজ করে যাচ্ছে। ঢাবি ছাত্রলীগ বিভিন্ন সময়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অধিকার আদায়ে কাজ করেছে, ভবিষ্যতেও কাজ করবে।

অন্যদিকে হল সম্মেলনের মাধ্যমে শুধু নেতৃত্ব নিলেই হবে না, ঢাবি ছাত্রলীগের উন্নয়নে কাজ করতে হবে। শিক্ষার্থীদের অধিকার আদায়ে কাজ করতে হবে। স্বাধীনতা বিনষ্টকারী কোনো চক্র যাতে রাতের আধারে ঢাবিতে ঢুকতে না পারে, তার জন্য প্রত্যেক বিভাগে ছাত্রলীগের কমিটি দেয়া হবে। আগামী দিনের নেতৃত্বে যেই আসবে কোনো মারামারি নয়, শান্তিপূর্ণভাবে কাধে কাধ মিলিয়ে কাজ করবে এমনটাই আশা প্রকাশ করেন তিনি। উল্লেখ্য, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো আজ (২৭ নভেম্বর) হল সম্মেলন অনুষ্ঠিত হলো ঢাবির অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com