জন্মদিনে রইল শচীনের কিছু অজানা তথ্য

৭৪ বার পঠিত

পাঁচ ফুট পাঁচ ইঞ্চির মানুষটা যদি আজও ক্রিকেটের ময়দানে এসে দাঁড়ান, গোটা স্টেডিয়াম থেকে একটাই শব্দ ভেসে আসে শচীন, শচীন। এক দিনে নয় তিল তিল করে গড়ে উঠেছে ভালবাসার এই সাম্রাজ্য। তাই আজও ভারতবাসীর সামনে ক্রিকেট শব্দটা উচ্চারিত হলে সবার আগে আসে তাঁর নাম। শচীন রমেশ তেণ্ডুলকর। ১৯৭৩ সালে আজকের দিনেই জন্মেছিলেন মাস্টার ব্লাস্টার। জন্মদিনে ক্রিকেটের দেবতাকে আরও একবার চিনে নেওয়া যাক কিছু জানা-অজানা কাহিনির মাধ্যমে।

তৎকালীন বম্বের দাদরের নির্মল নার্সিংহোমে জন্ম হয়েছিল লিটল মাস্টারের। বাবা রমেশ তেণ্ডুলকর ছিলেন সঙ্গীতশিল্পী শচীনদেব বর্মনের ভক্ত। সেই কারণেই নিজের ছোট্টশিশুর নাম রাখেন শচীন। প্রথমে তিনি ফাস্ট বোলার হতে চেয়েছিলেন। কিংবদন্তি খেলোয়াড় ডেনিস লিলির এমআরএফ পেস অ্যাকাডেমিতে আবেদনও জানিয়েছিলেন। কিন্তু সেই আবেদন খারিজ হয়ে যায়।

  • রঞ্জির ইতিহাসে শচীনই সবচেয়ে কমবয়সী খেলোয়াড়।
  • সকলেই মোটামুটি জানেন ১৯৮৯ সালে তাঁর ডেবিউ হয়েছিল। কিন্তু অনেকেই বোধহয় জানেন না, ১৯৮৮ সালে শচীন একবার সাবস্টিটিউট প্লেয়ার হিসেবে মাঠে নেমেছিলেন।
  • শচীনই এমন একজন খেলোয়াড় যিনি হেরে যাওয়া দলের হয়ে সবচেয়ে বেশিবার ম্যান অফ দ্য ম্যাচ পেয়েছেন। মাত্র ২০ বছর বয়সেই পাঁচ-পাঁচটি টেস্ট সেঞ্চুরি ছিল তাঁর দখলে। যা আজও বিশ্ব রেকর্ড।
  • তিনিই একমাত্র ব্যাটসম্যান যার দখলে বিশ্বকাপ ক্রিকেটে ২০০০-এর বেশি রান করার রেকর্ড রয়েছে। মোট ৪৫ ম্যাচে ২,২৭৮ রান রয়েছে সচিনের।
  • শচীন ও কুম্বলের মধ্যে একটা অদ্ভূত কুসংস্কার ছিল। যখনই নাকি তিনি বোলার কুম্বলের সোয়েটার ও টুপি আম্পায়ারের হাতে দিতেন, তখনই কুম্বলে বেশি উইকেট নিতেন। এমনকী, কুম্বলের ১০ উইকেট নেওয়ার দিনও নাকি তাই হয়েছে।
  • ১৯৯০ সালে যখন তিনি ম্যান অফ দ্য ম্যাচ অ্যাওয়ার্ড পেয়েছিলেন। উপহার হিসেবে একটি শ্যাম্পেনের বোতল পেয়েছিলেন। কিন্তু মাস্টার ব্লাস্টার সে সময় তা খুলতে পারেননি। কারণ তখনও তিনি নাবালক ছিলেন। সেই বোতল খোলা হয় ১৯৯৮ সালে। সচিনের প্রথম সন্তান সারার প্রথম জন্মদিনে।
  • অনেকেই ক্রিকেট ঈশ্বরের একটি গোপন কথা বোধহয় জানেন না। তিনি ঘুমের মধ্যে কথা বলেন। এমনকী, ঘুমের মধ্যে হাঁটাচলা করারও অভ্যাস রয়েছে তাঁর।
  • আর সবশেষে একটি প্রশ্ন। জানেন, সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়কে ভালবেসে কী বলে ডাকেন শচীন? ‘বাবু মশাই’। আর সৌরভ শচীনকে ডাকেন ‘ছোটাবাবু’ বলে।
ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com