আজ আহসান উল্লাহ মাস্টারের ১২তম শাহাদৎ বার্ষিকী

এই সংবাদ ২৯ বার পঠিত

মাহবুবুর রহমান, গাজীপুর প্রতিনিধিঃ গাজীপুরের জনপ্রিয় প্রয়াত সংসদসদস্য, বিশিষ্ট শ্রমিক নেতা, শিক্ষক ও মুক্তিযোদ্ধা আহসান উল্লাহ মাস্টারের ১২তম শাহাদাৎ বার্ষিকী আজ । ২০০৪ সালের এইদিনে টঙ্গীতে এক জনসভায় তাকে প্রকাশ্যে গুলি করে হত্যা করা হয়। সেদিন এ ঘটনায় গোটা গাজীপুরে শোকের ছায়া নেমে আসে। জাতীয় রাজনীতি অঙ্গনও শোকে স্থবির হয়ে পড়ে। শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার এমপি স্মৃতি পরিষদের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ২০০৪ সালের ৭ মে বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের মদদ পুষ্ট একদল সন্ত্রাসী টঙ্গীর নোয়াগাঁও এম এ মজিদ মিয়া উচ্চবিদ্যালয় মাঠে জনসভায় প্রকাশ্যে দিবালোকে গুলি করে আহসান উল্লাহ মাস্টারকে হত্যা করে।

২০০৫ সালের ১৬ এপ্রিল দ্রুত বিচার আইনে এ হত্যা মামলার রায় হয়। রায়ে প্রধান আসামী বিএনপি নেতা নূরুল ইসলাম সরকারসহ ২২ জনকে ফাঁসি ও ৬ জনকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড প্রদান করেন আদালত। সেই সঙ্গে ওই মামলায় ২৮ জনের মধ্যে ২ জন খালাস পান। এর মধ্যে প্রধান আসামীসহ ১৬ জন দেশের বিভিন্ন কারাগারে বন্দী আছে। বাকী ১০ জন আসামী ভারত, বেলজিয়াম, ফ্রান্স, ইতালি, কানাডা, দুবাইসহ বিভিন্ন দেশে পলাতক রয়েছে। কারাগারে থাকা অবস্থায় ২ আসামীর মৃত্যু হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষ্যে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের নিজ গ্রাম হায়দরাবাদে শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টারের কবরে পুস্পার্ঘ্য অর্পণ, পবিত্র কোরআনখানি, কালোব্যাজ ধারণ, মিলাদ ও দোয়া মাহফিল, তবারক বিতরণ, স্মরণসভা, স্মরণিকা প্রকাশ ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

এ ছাড়া গাজীপুর জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে, টঙ্গী নোয়াগাঁও এম এ মজিদ মিয়া উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। কেন্দ্রীয় ভাবেও বিভিন্ন কর্মসূচির কথা আছে।শহীদ আহসানউল্লাহ মাস্টারের বড় ছেলে জাহিদ আহসান রাসেল এমপি তার পিতার ১২তম শাহাদাৎ বার্ষিকীর কর্মসূচীতে গ্রামের বাড়ি হায়দরাবাদসহ টঙ্গী ও গাজীপুরের বিভিন্ন এলাকায় আওয়ামী লীগ, শ্রমিকলীগ, ছাত্রলীগ, যুবলীগ নেতাকর্মীসহ সকল স্তরের মানুষকে অংশগ্রহণ করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছিলেন।

উল্লেখ্র, আহসান উল্লাহ মাষ্টার গাজীপুর-২ (গাজীপুর সদর-টঙ্গী) আসন হতে ১৯৯৬ ও ২০০১ সালে দুইবার সংসদ সদস্য, ১৯৯০ সালে গাজীপুর সদর উপজেলা চেয়ারম্যান এবং ১৯৮৩ ও ১৯৮৭ সালে দু’দফা পূবাইল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। তিনি আওয়ামী লীগের জাতীয় কমিটির সদস্য, শিক্ষক সমিতিসহ বিভিন্ন সমাজ সেবামূলক জাতীয় ও আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান ও সংগঠনের সাথে জড়িত ছিলেন। আহসান উল্লাহ মাস্টার শ্রমিক লীগের সভাপতি ও সাধারণ সস্পাদক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com