নারী শ্রমিক সমাজ উন্নয়নের হাতিয়ার, মেলে না ন্যায্য মজুরি

১০৪ বার পঠিত

( মাহবুবা পারভীন ) : অভাবের তাড়নায় ১৪ থেকে ১৬ ঘন্টা কাজ করে নারী শ্রমিক। অথচ মেলে না ন্যায্য মজুরি। দেশের উন্নয়ন কল্পে নারীদের ভূমিকা দেখে যে কেউ এক বাক্যে বলতে বাধ্য, নারী শ্রমিক সমাজ উন্নয়নের হাতিয়ার। কেননা দেশে বা বিদেশে নারী শ্রমিকের সংখ্যা দিনে দিনে বেড়েই যাচ্ছে। শিক্ষিত, অক্ষরজ্ঞানহীন লাখ লাখ নারী পোশাক শিল্পে কাজ করছে। বাড়ছে রফতানি আয়, অথচ বেতন বৈষম্যের শিকার নারী শ্রমিক। পুরুষ শ্রমিকদের চেয়ে নারী শ্রমিকরা বেশি পরিশ্রমী হলেও তাদের সে রকম মজুরি প্রদান করা হচ্ছে না।

মাহবুবা পারভীন

নারী শ্রমিকদের ন্যায্য মজুরি থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে। যে কারণে নারীরা বেশি শ্রম দেবার পরও অর্থনৈতিকভাবে তেমন স্বাবলম্বী হচ্ছে না। তবুও বর্তমানে নারীরা বিভিন্ন পেশায় যেমন: অফিস, আদালত, কম্পিউটার, কুমারের কাজ, কামারের কাজ, কাপড় বোনা, সুতা কাটা, চাষাবাদ, দর্জির কাজ, ইটভাটার কাজ, ইট ভাঙার কাজ, মাটি কাটা, ছাদ পিটানো ইত্যাদি পেশায় পুরুষদের পাশাপাশি করে যাচ্ছে। যার ফলে নারী শ্রমিকরা পারিবারিকভাবে কিছুটা অর্থনৈতিক সচ্ছলতা লাভ করছে।

নারীদের বাইরের কাজের পাশাপাশি নিজের ঘরের কাজেও যথেষ্ট সময় দিতে হয়। যেমনথ রান্নাঘর পরিষ্কার, ঘর লেপা, হাঁস-মুরগি ছাড়া, শ্বশুর-শাশুড়ি, ছেলে- মেয়েদের সেবা, ছেলে-মেয়েদের স্কুলে পাঠানো ইত্যাদি কাজ প্রতিদিন খুব ভোরে উঠে করতে হয়। যার বিনিময়ে নারীদের কোন মজুরি প্রদান করা হয় না। তবুও আমাদের সমাজে নারীরা আজ অনেক সচেতন। ন্যায্য মজুরি আদায়, নারী মুক্তি, সন্ত্রাস দমন, এসিড নিক্ষেপসহ যৌতুকের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলার অঙ্গীকার নিয়ে আজকাল রাজপথে নামছে হাজার হাজার নারী। ‘নারীরাও মানুষ’ এ কথা ভেবে সকল প্রকার জুলুম নির্যাতন বন্ধ করা সকলেরই নৈতিক দায়িত্ব। সমাজে নারীদের অধিকার, সম্মান ও মর্যাদাকে সমুন্নত রাখতে হবে। সমাজের প্রয়োজনেই নারীরা কর্মক্ষেত্রে এগিয়ে এসেছে। তাই বলে নারীদের ন্যায্য মজুরি থেকে বঞ্চিত করা উচিত নয়। অতীত থেকে শুরু করে বর্তমান পর্যন্ত ন্যায্য মজুরি আদায়ের জন্য অনেক আন্দোলন হচ্ছে বা পূর্বেও হয়েছে, কিন্তু তেমন একটা ফলাফল নারী শ্রমিকদের ভাগ্যে জোটেনি। একই কাজ পুরুষদের চেয়ে নারীরা বেশি করলেও মজুরির ক্ষেত্রে তাদের অর্ধেক প্রদান করা হচ্ছে। এ রকম অত্যাচার বেশি দিন চলতে থাকলে সমাজ উন্নয়নমূলক কর্মকা-ে নারীদের খুঁজে পাওয়া যাবে না। বর্তমানে বিশ্বব্যাপী যে কথাটি বার বার উচ্চারিত হচ্ছে তা হলো নারীর অধিকার। বর্তমান সরকার প্রতিশ্রুতিও দিয়েছে নারী ও পুরুষের মধ্যে বিরাজমান বৈষম্য দূর করে সমঅধিকার প্রতিষ্ঠাসহ জনজীবনে নারীদের উপযুক্ত মর্যাদা প্রদানের।

নারী শ্রমিকরা সাধারণত পুরুষদের মতো কাজে ফাঁকি দিয়ে আড্ডা দেয় না। নারীরা তেমন একটা আন্দোলন সংগ্রামও করে না। নারী শ্রমিকদের মজুরি পুরুষ শ্রমিকদের চেয়ে কম দিলেও চলে ভেবে বিভিন্ন কলকারখানায়, পোশাক শিল্পে আগের তুলনায় বর্তমানে প্রচুর নারী শ্রমিক নিয়োগ দেয়া হচ্ছে। আবার দেখা যায় মাঝে মাঝে রাজপথে, কলকারখানায় কর্মরত শ্রমিকদের বেতন-ভাতার দাবিতে পুরুষের পাশাপাশি নারীরাও আন্দোলনে নামে। তবুও মালিক কর্তৃপক্ষ শ্রমিকদের দাবি সঠিকভাবে পূরণ করে না। সে ক্ষেত্রে প্রশাসনের সুদৃষ্টি দেয়া প্রয়োজন। কোন প্রতিষ্ঠান যদি সঠিক সময়ে ন্যায্য বেতন-ভাতা শ্রমিকদের না দিতে পারে, তা হলে সেই প্রতিষ্ঠানে সরকারের সুদৃষ্টি দেয়া প্রয়োজন। কোন প্রতিষ্ঠান যদি সঠিক সময়ে ন্যায্য বেতন-ভাতা শ্রমিকদের না দিতে পারে, তাহলে সেই প্রতিষ্ঠান সরকারের বন্ধ করে দেয়া উচিত। সমাজে কর্মক্ষেত্রে নারী শ্রমিক প্রতিনিয়ত বেশি নির্যাতিত হয়, যার বেশিরভাগই গোপন থেকে যায়। যেটুকু প্রকাশ পায় সেটারও কোন সঠিক বিচার হয় না।

দেশের শত শত নারী বিভিন্ন কাজের পাশাপাশি বাসা-বাড়িতে কাজ করে প্রাণ হারায়। শুধু তাই নয়, মাত্র পাঁচশ’ থেকে এক হাজার টাকার বিনিময়ে কাজ করতে বাধ্য হয়। অথচ একজন মানুষ নিম্নতম খাবার খেলেও তার মাসে কমপক্ষে দুই হাজার টাকা খরচ হয়। কিন্তু নারী শ্রমিকদের মজুরি প্রদান করা হয় ষোল ঘণ্টা কাজের বিনিময়ে নয় শ’ টাকা থেকে বারো শ’ টাকা মাত্র। যা খুবই নগণ্যতম। যেহেতু নারী শ্রমিক পুরুষদের চেয়ে শ্রম বেশি দেয় সে ক্ষেত্রে নারী-পুরুষের শ্রমের মজুরি সমান হওয়া উচিত। তা না হলে নারীদের অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী করা সম্ভব নয়। এখনও বাধাস্বরূপ আমাদের সমাজে একশ্রেণীর মানুষ কৌশলে নারীদের গৃহবন্দী করে রাখার চেষ্টা করছে। তবুও নারীরা এখন শৃঙ্খলমুক্ত হচ্ছে। সে ক্ষেত্রে সরকারের পাশাপাশি বিভিন্ন বেসরকারী সংস্থার ভূমিকা অপরিসীম। যে কারণে অন্ধকার থেকে আলোর পথে বের হয়ে আসতে সক্ষম হয়েছে সমাজের হাজার হাজার নারী।

 

মাহবুবা পারভীন

লেখক : সাংবাদিক, নববার্তা

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

স্টাফ রিপোর্টার

Bogra Offce

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com