পিলখানা শহীদদের প্রতি রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা

আজ ২৫ ফেব্রুয়ারি। সভ্যতার ইতিহাসের বর্বরতম পিলখানা হত্যাযজ্ঞের ৮ম বার্ষিকী। পিলখানা ট্রাজেডির ৮ম বার্ষিকীতে ওই ঘটনায় নিহতদের প্রতি রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা জানানো হয়েছে। একইসঙ্গে তিন বাহিনীর প্রধানসহ নিহতদের স্বজনরা চোখের জলে ওই ঘটনায় শহীদদের স্মরণ করছেন। শনিবার সকাল ৯টার দিকে বনানীর সামরিক কবরস্থানে শহীদদের স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পস্তবক অর্পণের মধ্য দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয়। রাষ্ট্রপতির পক্ষে নিহতদের সমাধিতে শ্রদ্ধা জানান তার সামরিক সচিব মেজর জেনারেল মো. সরোয়ার হোসেন। প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে তার সামরিক সচিব মেজর জেনারেল মিয়া মোহাম্মদ জয়নুল আবেদীন, বীর বিক্রম ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান।

রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদনের পর তিন বাহিনীর প্রধান, বিজিবির প্রধান ও বিডিআর বিদ্রোহে নিহতদের স্বজনরা পর্যায়ক্রমে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন। স্বজনদের শ্রদ্ধা নিবেদনের সময় কবরস্থানে এক হ্দয় বিদারক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। তিন বাহিনীর পক্ষ থেকে সেনাপ্রধান জেনারেল আবু বেলাল মোহাম্মদ শফিউল হক, নৌ বাহিনীর প্রধান অ্যাডমিরাল নিজামউদ্দিন আহমেদ, বিমান বাহিনীর প্রধান এয়ার চিফ মার্শাল আবু এসরার, বিজিবির পক্ষ থেকে বাহিনীটির প্রধান মেজর জেনারেল আবুল হোসেন শ্রদ্ধা জানান । এরপর নিহতদের স্বজনরা শ্রদ্ধা জানান।

দিবসটি পালনের লক্ষ্যে বিজিবির পক্ষ থেকে পিলখানায় নিহতদের জন্য দোয়া, মিলাদ মাহফিল, সমাধিতে ফুল দেওয়ার মতো কিছু কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন রাজনৈতিক-সামাজিক সংগঠনও নানা কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। উল্লেখ্য ২০০৯ সালের ২৫ ও ২৬ ফেব্রুয়ারি পিলখানায় বিডিআর বিদ্রোহ চলাকালে ৫৭ সেনা কর্মকর্তাসহ ৭৪ জনকে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়। ওই বছরের ২৮ ফেব্রুয়ারি লালবাগ থানায় হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে দুটি মামলা হয়। পরে মামলা দুটি নিউমার্কেট থানায় স্থানান্তরিত করা হয়। এবং মামলার বিচার চলে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের পাশের আলিয়া মাদ্রাসা মাঠসংলগ্ন অস্থায়ী এজলাসে।

২০১৩ সালের ৫ নভেম্বর ঢাকা মহানগর তৃতীয় বিশেষ আদালতের বিচারক মো. আখতারুজ্জামান এই হত্যা মামলার রায় ঘোষণা করেন। রায়ে বিডিআরের সাবেক ডিএডি তৌহিদসহ ১৫২ জনকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়। আর বিএনপির সাবেক সাংসদ নাসিরউদ্দিন আহমেদ পিন্টু (মারা গেছেন), স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা তোরাব আলীসহ ১৬০ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং ২৫৬ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেওয়া হয়। অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় ২৭৭ জনকে খালাস দেন আদালত।

ওই রায়ের পর মৃত্যুদণ্ড প্রাপ্তদের ‘ডেথ রেফারেন্স’ হাইকোর্টে আসে। সেই সাথে আসামিরা দণ্ডাদেশের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল ও জেল আপিল করেন। এদিকে বিচারিক আদালতে খালাস পাওয়া ৬৯ জনের রায়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল করে রাস্ত্রপক্ষ। দেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় এই মামলায় ডেথ রেফারেন্স ও আপিল শুনানি ২০১৫ সালের জানুয়ারিতে শুরু হয়। তৎকালীন প্রধান বিচারপতি এই মামলা শুনানির জন্য বিশেষ বেঞ্চ গঠন করে দেন বলে জানান এই মামলায় রাষ্ট্রপক্ষে নিযুক্ত আইনজীবী ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল কে এম জাহিদ সারওয়ার।

এর আগে ২০১১ সালের ২৩ জানুয়ারি বাংলাদেশ রাইফেল থেকে ৮ম বারের মতো নাম পরিবর্তন করে দাপ্তরিকভাবে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) করা হয় আধাসামরিক এ সীমান্তরক্ষী বাহিনীর নাম। বদলে ফেলা হয় পোষাকও (ইউনিফর্ম)। প্রায় সোয়া দুই শ’ বছরের এ বাহিনীতে পিলখানা ট্র্যাজেডির মতো এত বড় বিদ্রোহ আগে কখনও সংঘটিত হয়নি। যে বিদ্রোহের নৃশংসতা আজও তাড়িয়ে বেড়ায় ভুক্তভোগী পরিবারসহ বাংলাদেশের প্রতিটি মানুষকে।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
৯৭ বার পঠিত
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com