‘জাতির পিতার দেখানো পথে ছাত্রলীগকে চলতে হবে’

৭৪ বার পঠিত

দেশের প্রত্যেকটি গ্রামে গিয়ে নিরক্ষরদের খুঁজে বের করে তাদেরকে হাতে-কলমে শিক্ষা দিতে ছাত্রলীগের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দেশের মানুষ ছাত্রলীগের কাছে এমন প্রত্যাশাই করে বলেও উল্লেখ করেন তিনি। মঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারি) বিকেলে ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৬৯তম পুনর্মিলনীতে সরকারপ্রধান এ আহবান জানান।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘খালেদা জিয়া যখন হুমকি দিলো আওয়ামী লীগকে ধ্বংস করতে ছাত্রদলই যথেষ্ট, আমি তখন ছাত্রলীগের হাতে খাতা-কলম তুলে দিয়েছিলাম। জিয়াউর রহমান ম্যাট্রিক পাস আর তার বউ খালেদা জিয়া ম্যাট্রিক ফেল। তিনি শিক্ষার গুরুত্ব কী বুঝবেন। সেজন্যই সেদিন তিনি ছাত্রদলের হাতে অস্ত্র তুলে দিয়ে শিক্ষক-ছাত্রদের হত্যা করিয়েছিলেন।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘খালেদা জিয়া ভেবেছেন আমি শিক্ষিত না আর কাউকেই শিক্ষিত হতে দিব না। বিএনপি ২০০১ এ ক্ষমতায় এসে আমার ‘নিরক্ষরমুক্ত বাংলাদেশ’ গড়ার উদ্যোগ বন্ধ করে দিয়েছে। দেশকে নিরক্ষরমুক্ত হতে দিলেন না তিনি (খালেদা জিয়া)। উল্টো দেশকে সবদিক থেকে পিছিয়ে দিলেন।’

ছাত্রলীগের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘ছাত্রলীগের প্রত্যেক নেতাকর্মীকে সবার আগে শিক্ষা নিতে হবে। অশিক্ষিতদের হাতে রাষ্ট্র পরিচালনার ভার পড়লে কী অবস্থা হয় সেটা আমরা পঁচাত্তর পরবর্তী দেখেছি। তার পাশাপাশি ছাত্রলীগকে একটা দায়িত্ব নিতে হবে, সেটা হলো দেশকে নিরক্ষরমুক্ত করা। ছাত্রলীগকে আহ্বান জানবো দেশের প্রত্যেকটি গ্রামে গিয়ে নিরক্ষরদের খুঁজে বের করতে। তাদেরকে হাতে-কলমে শিক্ষা দিতে। কারণ শিক্ষাই জাতির মেরুদণ্ড।’

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘রাজনীতির আগে শিক্ষা নিতে হবে। আমি রেহানা সবসময় ছেলে-মেয়েদের বলি, কিছু দিয়ে যেতে পারবো না। শুধু শিক্ষা গ্রহণ করো, এটাই তোমাদের সম্পদ। কারণ শিক্ষা গ্রহণ করলে কেউ ছিনতাই করে নিয়ে যেতে পারবে না।’ তিনি বলেন, ‘জাতির পিতার অসমাপ্ত আত্মজীবনী সকল নেতাকর্মীর পড়া উচিত। ছাত্রদের মূল কাজ শিক্ষা। ছাত্রলীগের প্রত্যেক নেতাকর্মীকে বলবো, তোমরা রাজনীতিতে উন্নতি করতে চাইলে আগে নিজেদের সঠিক শিক্ষায় শিক্ষিত করো। যে যাই করো, শিক্ষার কোনো বিকল্প নেই।’

জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানের কথা জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘দেশে জঙ্গিবাদের নতুন উৎপাত শুরু হয়েছে। এটা শুধু বাংলাদেশের নয়, জঙ্গিবাদ আজ গোটা বিশ্বের সমস্যা। অবাক লাগে যখন ইংলিশ মিডিয়ামের কোমলমতি ছেলে-মেয়েরা জঙ্গিবাদে জড়িয়ে পড়ে।’ তিনি বলেন, ‘ইসলাম শান্তির ধর্ম। কিন্তু যারা ধর্মের নামে সাধারণ মানুষকে, কোমলমতি শিক্ষার্থীদের বিভ্রান্ত করে তাদের ব্যাপারে আমাদের ব্যবস্থা নিতে হবে। যারা জঙ্গিবাদ আর মাদক দিয়ে দেশটাকে ধ্বংসের দিকে নিয়ে যেতে চায় তাদের বিরুদ্ধে আমরা কঠোর ব্যবস্থা নিব, এতে কোনো সন্দেহ নেই।’

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com