নৌকা ডুবে ৩১ রোহিঙ্গা নিখোঁজ

সীমান্ত উপজেলা টেকনাফে রোহিঙ্গা বোঝাই নৌকাডুবির ঘটনা ঘটেছে। এতে ২৯ জন রোহিঙ্গা নিখোঁজ হয়েছে বলে জানা গেছে। এর মধ্যে এক নারীকে  উদ্ধার করা হয়েছে। সোমবার দিবাগত গভীর রাতে হ্নীলা ইউনিয়নের জাদিমুড়া বরাবর নাফ নদীর মোহনাতে এ ঘটনা ঘটে। উদ্ধার হওয়া নারী হলেন, মংডু থানার বড় গওজবিল এলাকার মৌলভী সলিমের স্ত্রী রেহেনা। তাকে উদ্ধার করেছে নাফ নদীতে মাছ ধরতে যাওয়া জেলেরা। উদ্ধারের পর রেহেনা জানান, ৩০-৩৫ জন নারী ও শিশু ছিল ওই নৌকাতে। এতে তার মা, ভাবি মারা গেছেন এবং ভাইয়ের ২ শিশু সন্তান নিখোঁজ রয়েছে বলে জানান তিনি।

এদিকে নাটমুরা পাড়া গ্রামের জেলে পল্লীর জেলে আশিষ ও সুমন্ত্র দাশ জানান, নাফ নদীতে তিনটি লাশ ভাসতে দেখেছে বলে স্থানীয় গণমাধ্যমকে জানান। অপরদিকে মিয়ানমারের বড়গজিরবিল থেকে বিভিন্ন সূত্রে পাওয়া খবরে জানা গেছে, ভোররাতের ওই নৌকাডুবির ঘটনায় অনেকেই মারা গেছেন। ওই গ্রামের রোহিঙ্গারা নাফ নদের মিয়ানমার অংশে খোঁজাখুঁজি করে ১৪টি মরদেহ উদ্ধার করেন। নৌকার অধিকাংশ যাত্রী মিয়ানমারের বড়গজিরবিল ও রাইম্মারবিল গ্রামের বাসিন্দা বলেও জানা গেছে।

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) ২ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেনেন্ট কর্নেল আবুজার আল জাহিদ জানিয়েছেন, আজ সকালেই নৌকাডুবির খবর পেয়েছিলেন তাঁরা। এরপর বিজিবির টহলদল নাফ নদে বাংলাদেশের জলসীমায় দুই ঘণ্টাব্যাপী তল্লাশি চালায়। স্থানীয় একাধিক সুত্র জানিয়েছেন, জাদীমুরা গ্রামে অবস্থানরত কতিপয় রোহিঙ্গা সিন্ডিকেট এসব অবৈধ রোহিঙ্গা পারাপারে জড়িত।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
২৩ বার পঠিত
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com