রাষ্ট্রপতি-সিইসি সাক্ষাৎ আজ

১৭ বার পঠিত
রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ। তবে এ সময় অন্য চার নির্বাচন কমিশনার ও ইসি সচিব থাকছেন না। বুধবার বেলা সাড়ে ৩টায় সিইসি বঙ্গভবনে গিয়ে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন বলে ইসি সূত্রে জানা গেছে।
ইসি সচিব মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ বলেন, ‘সিইসি মহোদয়ের বুধবার বিকালে মহামান্য রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাৎ করার কথা রয়েছে। এটা একেবারেই সৌজন্য সাক্ষাৎ। এ সময় কমিশনের অন্য কেউ তার সঙ্গে থাকবেন না।’

সর্বশেষ গত ২ অক্টোবর বঙ্গভবনে গিয়ে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের কাছে স্মার্ট জাতীয় পরিচয়পত্র তুলে দেন কাজী রকিবউদ্দীন আহমদ। ওই সময় দুই নির্বাচন কমিশনার ও ইসি সচিব উপস্থিত ছিলেন। অবশ্য গত ১০ ফেব্রুয়ারি বর্তমান কমিশনের চার বছর পূর্তিতে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করে পুরো কমিশন। এরপরই দেশজুড়ে ইউপি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়।

তৎকালীন রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমান ২০১২ সালের ফেব্রুয়ারিতে নিবন্ধিত অধিকাংশ দলের সঙ্গে সংলাপের পর সার্চ কমিটির মাধ্যধমে কাজী রকিব উদ্দিন আহমদের নেতৃত্বাধীন পাঁচ সদস্যেধর ইসি নিয়োগ দেন। আগামী ফেব্রুয়ারিতে বর্তমান কমিশনের মেয়াদ শেষ হবে। নতুন ইসি গঠন নিয়ে ইতোমধ্যে নানা আলোচনা শুরু হয়েছে। এর মধ্যেই রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে যাচ্ছেন সিইসি। নির্বাচন কমিশনার আবদুল মোবারক এ ব্যাপারে বলেন, সিইসির সঙ্গে রাষ্ট্রপতির সাক্ষাতের বিষয়টি সৌজন্যষ সাক্ষাত হওয়ায় এ নিয়ে কমিশনের মধ্যো কোনো আলোচনা হয়নি। যতদূর সম্ভব সিইসি একাই যাচ্ছেন।

অপর নির্বাচন কমিশনার আবু হাফিজ বলেন, এটা সম্পূর্ণ সৌজন্যরমূলক ব্যবক্তিগত সাক্ষাৎ। কমিশনের কোনো বিষয়ই এর মধ্যে নেই। তাই আমাদের সঙ্গে আলোচনা বা সুপারিশের কোনো প্রসঙ্গ নেই। ‘আমরা এখন নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন (নাসিক)ও জেলা পরিষদ নির্বাচন নিয়ে ব্যজস্ত আছি। অবশ্যর, বিদায়ের আগে আমরা রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাত করব,’ বলেন তিনি। পরবর্তী সিইসি ও কমিশনার নিয়োগ সংক্রান্ত কোনো বিষয়ে বর্তমান কমিশনের সম্পৃক্ততা নেই বলে মনে করেন এ নির্বাচন কমিশনার।

তবে গত রোববার জেলা পরিষদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, নতুন নির্বাচন কমিশন গঠনে সবার সঙ্গে আলোচনা করে রাষ্ট্রপতি সঠিক সিদ্ধান্ত নেবেন বলে আশা করেন তিনি। তিনি বলেন, নতুন নির্বাচন কমিশন গঠনের দায়িত্ব সংবিধান মাহামান্য রাষ্ট্রপতিকে দিয়েছে। রাষ্ট্রপতি কীভাবে এটা করবেন সেটা তিনি নির্ধারণ করবেন। আই এম শিউর, তিনি সঠিকভাবে সকলের সঙ্গে আলোচনা করে ইসি গঠন করবেন। এর আগে গত ৩১ অক্টোবর ইসি গঠন নিয়ে কাজী রকিব উদ্দিন আহমদ বলেছিলেন, ‘এটা (সিইসি ও ইসি নিয়োগ) একটা চলমান প্রক্রিয়া, সে মোতাবেক হবে। গতবার একটা সার্চ কমিটির মাধ্যমে এটা হয়েছে। এবার কী হয় দেখা যাক, এখনো অনেক সময় রয়েছে।’

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com