পানামা পেপার্সে কর ফাঁকির তথ্যে অর্ধ শতাধিক বাংলাদেশির নাম : আইসিআইজে

২২ বার পঠিত

দি ইন্টারন্যাশনাল কনসোর্টিয়াম অফ ইনভেস্টিগেটিভ জার্নালিস্টের (আইসিআইজে) দ্বিতীয় ধাপে প্রকাশ করা দুই লাখেরও বেশি কোম্পানি ও ব্যক্তির কর ফাঁকির তথ্যে অর্ধ শতাধিক বাংলাদেশির নাম উঠে এসেছে। সোমবার বিশ্বের ২১টি অঞ্চলের দুই লাখের বেশি অফশোর কোম্পানির তথ্যের ডেটা বেইসে এ তথ্য পাওয়া গেছে। দ্বিতীয় ধাপের এ তথ্যে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফরউল্যাহ ও তার স্ত্রী নীলুফার জাফর উল্যাহর নামও রয়েছে।

আইসিআইজে বলছে, ব্রিটিশ ভার্জিনিয়া আইল্যান্ডে পাথফাইন্ডার ফিন্যান্স এবং হ্যানসিটিক লিমিটেডের পরিচালক বাংলাদেশি এই রাজনীতিক দম্পতি। এছাড়াও মেহবুব চৌধুরী, দিলীপ কুমার মোদি, মো. আফজালুর রহমান, মল্লিক সুধীর, কাজী রায়হান জাফর, কফিল এইচ এস মুয়ীদ, মো. ইউসুফ রায়হান রেজা, মাহতাবউদ্দিন চৌধুরী, বেনজির আহমেদ, ইসরাক আহমেদের নামও এসেছে এই তালিকায়। তালিকায় আরো যেসব বাংলাদেশির নাম রয়েছে তারা হলেন, নোভা চৌধুরী, সৈয়দা সামিনা মির্জা, উম্মে রুবানা, বিলকিস ফাতিমা,সালমা হক, আসমা মোনেম, ফরহাদ গনি মোহাম্মদ,  মো. আবুল বাশার, জাইন ওমর, সরকার জীবন কুমার, নিজাম এম সেলিম, মোহাম্মদ মোকসেদুল ইসলাম, মো. মোতাজ্জারুল ইসলাম, মো. মোতাজ্জারুল ইসলাম, মো. সেলিমুজ্জামান, মো. আফজালুর রহমান, সৈয়দ সেরাজুল হক ও এফ এম জুবাইদুল হক।

এছাড়া আরো রয়েছেন মো. আমিনুল হক, নাজিম আসাদুল হক, তারিক একরামুল হক, ক্যাপ্টেন এম এম জাউল, মোহাম্মদ শহীদ মাসুদ, খাজা শাহাদত উল্লাহ, মোহাম্মদ ফয়সাল করিম খান, মোহাম্মদ শহীদ মাসুদ, জুলফিকার হায়দার, আজমাত মঈন, মির্জা এম ইয়াহিয়া, মো. নজরুল ইসলাম, মোহাম্মদ জাহিদুল ইসলাম, এফ এম জুবাইদুল হক, এ এফ এম রহমাতুল বারী, এ এস এম মহিউদ্দিন মোনেম, খাজা শাহাদাত উল্লাহ। টেলিগ্রাফ বলছে, দুই লাখেরও বেশি অফশোর অ্যাকাউন্টের তথ্য অনলাইনে প্রকাশ করা হয়েছে। এর আগে প্রথম দফায় পানামা পেপার্সে নাম আসায় ব্যাপক বিক্ষোভের মুখে আইসল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী সিগমুন্ডুর গুনলাউগসন পদত্যাগ করেন। ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন ব্যাপক চাপের মুখে পড়েন।

পানামা পেপার্স নামে পরিচিতি পাওয়া এ গোপন দলিলপত্রকে এযাবৎ কালের সবচেয়ে ব্যাপক গোপন তথ্য ফাঁসের ঘটনা বলা হচ্ছে। এতে ক্ষমতাধর রাজনীতিক থেকে শুরু করে নামকরা সেলিব্রেটি অনেকের কর ফাঁকির গোপন তথ্য বেরিয়ে এসেছে। পানামার একটি লিগ্যাল ফার্ম ‘মোসাক ফনসেকা’ থেকে এসব গোপন দলিল ফাঁস হয়ে যায়। প্রথম দফার তথ্যে বাংলাদেশের ৩২ ব্যক্তি ও তথ্য করফাঁকি দিয়ে অর্থপাচার করেছেন বলে জানানো হয়।

jagobd

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com