আজ বৃহস্পতিবার, ৬ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং, ২৯শে জিলহজ্জ, ১৪৩৮ হিজরী, শরৎকাল, সময়ঃ সন্ধ্যা ৬:২২ মিনিট | Bangla Font Converter | লাইভ ক্রিকেট

স্মার্ট ফোনেই হয়ে উঠুন মোবাইল সাংবাদিক ।। এস.কে.দোয়েল

সময় এখন তথ্যপ্রযুক্তির। দেশের ভাষায় ডিজিটাল বাংলাদেশ। ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে বর্তমান সরকার আইসিটি তথা তথ্যপ্রযুক্তির ওপর বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছেন। গড়ে তুলছেন আইটি ফার্ম। তথ্যপ্রযুক্তির দ্রুতগতির ফলে গড়ে উঠছে আউটসোর্সিংয়ের কর্মসংস্থান। ফ্রিল্যান্স ইনকাম সোর্স তৈরি হচ্ছে। দেশে হাজার হাজার যুবক এখন মুক্তপেশাজীবি হিসেবে এই আইসিটিকে কাজে লাগিয়ে আত্মনির্ভরশীল হয়ে উঠছেন। সেইক্ষেত্রে মোবাইল নেটওয়ার্ক হয়ে উঠতে পারে আরেকটি কর্মসংস্থান। তথ্যপ্রবাহ সরবরাহের অন্যতম শক্তিশালী নেটওয়ার্ক এখন মোবাইল ফোন। মোবাইল প্রযুক্তির মাধ্যমে গণমাধ্যমে সংঘটিত সকল তথ্য আনা সম্ভব।

মোবাইল প্রযুক্তির মধ্য দিয়ে গড়ে উঠতে জার্নালিজম ক্যারিয়ার। কেননা দেশে ১২ কোটিরও বেশি মানুষ এখন মোবাইল ব্যবহার করছেন। তার মধ্যে তিন কোটিরও বেশি স্মার্ট মোবাইল ব্যবহারকারী। সেদিক বিবেচনা করলে বাংলাদেশে স্মার্ট ফোন ঘিরে মোবাইল জার্নালিজমের ওপর ক্যারিয়ার গড়া সময়ের ব্যাপার। তাছাড়া সময় এখন স্মার্ট হওয়ার। খাওয়া-দাওয়া, চলাফেরা, পোশাক-আশাকে, কথাবার্তা এবং সাজসজ্জায় সবকিছুতেই এখন স্মার্টলীয়তা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এই স্মার্ট সময়ে প্রত্যেকের হাতে হাতে এখন স্মার্টফোন। এই স্মার্ট ফোন দিয়েই গড়া যাবে গণমাধ্যমের নতুন এক ক্যারিয়ার। কম্পিউটার, ল্যাপ্টপ, ট্যাব এর স্থলে একটি স্মার্ট মোবাইল ফোন দিয়েই করা যাবে গণমাধ্যমের কাংখিত কাজ। নিউজ টাইপিং, এডিটিং, ভিডিও, অডিও রেকর্ড, ইমেজ এডিটিং এমনকি ভিডিও লাইভও দেখানো যাবে মোবাইল দিয়ে।

আসুন জেনে নেই কিভাবে স্মার্ট মোবাইল সাংবাদিক হওয়া সম্ভব! স্মার্ট ফোনঃ যদি আপনার কাছে একটি স্মার্ট ফোন থাকে। হোক সেটা যেকোন ব্রান্ডের। যদিও আমরা অনেকে অর্থনৈতিকভাবে সচ্চল নই। এক্ষেত্রে যারা অর্থনৈতিকভাবে সচ্চল নই তারা ব্যবহার করতে পারি স্বল্প দামের অ্যান্ড্রুয়েড মোবাইল সেট। এখন অবশ্য প্রত্যেকটি অ্যান্ড্রুয়েড মোবাইল সেটগুলোতে নানান সুবিধা দেয়া থাকে। যুক্ত করা যায় বিভিন্ন অ্যাপ। এসব অ্যাপ দিয়ে সহজেই কাংখিত কাজগুলো সাড়া যায়। বর্তমানে ৬ হাজার থেকে উর্ধ্বে সবকটি মোবাইল টাচ বা অ্যান্ড্রুয়েড সেট হিসেবে দেখা যায়। এসব মোবাইল দিয়েও গণমাধ্যমের কাজ যাবে। মিডিয়ায় কাজ করতে স্মার্ট ফোনে যা থাকা জরুরীঃ হাইরেজুলেশন ক্যামেরাঃ স্মার্ট ফোন কিনার পূর্বে দেখতে হবে সেটটির ক্যামেরার রেজুলেশন কেমন।

রেজুলেশন কত। আলোকচিত্র পরিস্কার কীনা। কেননা এই ক্যামেরা দিয়েই বিভিন্ন পরিবেশে অবস্থান করে ছবি তুলতে হবে। জানতে হবে কখন ক্যামেরায় ফ্ল্যাশ মারতে হবে। অবশ্য প্রায় সব অ্যান্ড্রুয়েড বা স্মার্টফোনের ক্যামেরার সাথে ফ্ল্যাশ যুক্ত থাকে। তাই হাইরেজুলেশন সম্পন্ন ক্যামেরা মোবাইল নিলে কাংখিত ঝকঝকে ছবি ও ভিডিও বেশ গুরুত্ব বহন করবে। যোগ দিন মোবাইল সাংবাদিকতায়ঃ হাতে হাতে যখন নানান ব্রান্ডের মোবাইল ফোন। সময়ের অনুপম সঙ্গী হচ্ছে এই মোবাইল। আজ মোবাইল প্রযুক্তি হচ্ছে বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী নেটওয়ার্ক। কেননা এই মোবাইল ফোন দিয়ে একাধারে ভয়েস কল, এমএমএস, এসএমএস এবং ইন্টারনেট ব্যবহারের কারণে ফেসবুক, টুইটার, ভাইভার, বেশতো’র মতো সোস্যাল নেটওয়ার্ক কানেক্টিভিটি আর অনলাইন নিউজ পোর্টাল, অনলাইন টিভি, মেইল আদান প্রদানসহ অপার সুবিধা যুক্ত হয়েছে মোবাইলে ইন্টারনেট যুক্ত হওয়ায়।

বাংলাদেশ সরকার আইসিটি অর্থাৎ তথ্যপ্রযুক্তির ওপর যে অতিব গুরুত্ব দিয়েছেন ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার। সেক্ষেত্রে গণমাধ্যমের নতুন মিডিয়া হিসেবে মোবাইল সাংবাদিকতা এখন সময়ের অপার চাহিদা হয়ে দাঁড়াবে। তাই যার হাতে রয়েছে একটি স্মার্ট বা অ্যান্ড্রুয়েড মোবাইল ফোন। তিনিই শুরু করতে পারেন মোবাইল সাংবাদিকতা। সাধারন নাগরিক থেকেই আসা যাবে এই পেশায়। কিভাবে হবেন মোবাইল সাংবাদিকঃ এবার প্রস্তুত হউন আপনার হাতের স্মার্ট ফোনটি নিয়ে। চোখ মেলে তাকান আপনার চারপাশে ঘটছে নানা ঘটনা। দূর্ঘটনা, বাল্যবিবাহ, নারী নির্যাতন, খুন-ধর্ষণ, ঘুষ-দুর্ণীতি, অনিয়ম, রাজনীতি, অর্থনীতি, সাদামনের মানুষসহ নানা ঘটনাগুলো চিহ্নিত করুন। আপনার চোখের সামনেই ঘটছে এগুলোর কোন না কোন একটি।

আপনার চোখের সামনে ঘটে যাওয়া ঘটনাটিই মোবাইল ধারণ করুন। মোবাইলটাই আপনার ক্যামেরা। ক্যামেরায় ছবি অথবা ভিডিও করে ফেলুন। এরপর ঘটনাটির ওপর একটা শর্ট মেসেজ (খুদে বার্তা) টাইপিং করুন। ঘটনাটি কখন, কোথায়, কিভাবে…..সংঘটিত হয়েছে এর একটা বিবরণ টাইপ করুন। টাইপিং হয়ে গেলে সংবাদটি আপনার এলাকায় মিডিয়ার সাথে জড়িত রয়েছেন এমন কাউকে শেয়ার করতে পারেন ভয়েস কলের মাধ্যমে। অথবা সংবাদটি সামাজিক যোগাযোগ সাইট ফেসবুকেও পোষ্ট করতে পারেন। কিভাবে মোবাইল থেকে প্রফেশনাল সাংবাদিক হতে পারেন? সাংবাদিকতা পেশায় আসতে হলে অবশ্যই এ পেশা সম্পর্কে জানতে হয়। ক্ষুদ্র থেকে শুরু করতে হয়। অভিজ্ঞতা অর্জন করতে হয়। যা দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে গণমাধ্যমের ওপর অনার্স/মাষ্টার্স বা ডিপ্লোমা কোর্স চালু রয়েছে। স্বল্পকালীন প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকে বিভিন্ন বেসরকারি প্রতিষ্ঠান।

এসব প্রশিক্ষনকেন্দ্রের মধ্যে রয়েছে ঢাকা নিউস্কাটনে ইমেজ মিডিয়া ট্রেনিং সেন্টার, নিউমার্কেটে এশিয়ান মিডিয়া ইনস্টিউটট, দারুসসালামে জাতীয় গণমাধ্যম ইনস্টিটিউট, শেরেবাংলায় পাঠশালা সাউথ এশিয়ান মিডিয়া, তেজগাঁ ওয়ে রাধাচুড়া মিডিয়া একাডেমীসহ রয়েছে এরকম প্রতিষ্ঠান। তবে বাংলাদেশে যেহেতু এখনো মোবাইল জার্নালিজমের প্রচলন শুরু হয়নি। মোবাইল জার্নালিজমের ওপর কাজ করছেন তরুণ সাংবাদিক এস.কে.দোয়েল। তিনি বিভিন্ন জাতীয় দৈনিক, অনলাইন নিউজপোর্টাল, ব্লগ ও সাপ্তাহিকে বিভিন্ন বিষয়ে নিয়ে লিখে আসছেন। উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন মোবাইল জার্নালিজম অব বাংলাদেশ গড়ার। তথ্যসুবিধা অতি সহজে পেতে মোবাইল নেটওয়ার্ক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। তাই তথ্যসুবিধা দিতে সাধারণ নাগরিকও ফ্রিল্যান্স মোবাইল সাংবাদিক হতে পারেন।

এতে ক্যারিয়ার যেমন গড়া হবে, আউটসোর্সিং পদ্ধতিতে ইনকাম সোর্সের ব্যবস্থা তৈরি হবে। আর স্বনির্ভর বাংলাদেশ গড়ার মোবাইল জার্নালিজম ব্যাপক ভূমিকা রাখতে পারে। তাছাড়া অতিদ্রুত তথ্য পেতে (কারেন্ট ইনফরমেশন) মোবাইল প্রযুক্তির বিকল্প নেই। যেখানেই ঘটনা, সেখানেই খবর এটাই হচ্ছে মোবাইল সাংবাদিকতার মূল লক্ষ্য। এ উদ্যোক্তার মতে, প্রত্যন্ত অঞ্চলে সংঘটিত ঘটনাগুলো সাধারণত গণমাধ্যমে সহজে উঠে আসে না। আসলেও সেটা দেরি হয়ে যায়। সেটার কারণ হচ্ছে মফস্বল সাংবাদিকদের ঘটনাস্থলে পৌছানো দেরি হয়ে যায়। আবার অনেক সময় ঘটনাটিই আড়াল হয়ে যায়। তাই মোবাইল প্রযুক্তির মাধ্যমে মোবাইল জার্নালিজম বাস্তবায়ন করা গেলে দেশ তথা বিশ্বের যেকোন স্থানে যে ঘটনাই ঘটুক না কেন, তা মোবাইলে পাওয়া সম্ভব। আর এই কাজটা করতে পারেন যেকোন পেশাজীবির একজন সাধারণ মানুষও। # লেখক।। এস.কে.দোয়েল উদ্যোক্তা-মোবাইল জার্নালিজম অব বাংলাদেশ

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com