সুজাল রুমি’র একগুচ্ছ কবিতা

এই সংবাদ ৭৬ বার পঠিত

হৃদয়ের দর্পণ

মেয়ে তুমি হৃদয়ের আকাশ প্রসারিত করো
মেয়ে তুমি যাকে ভালবেসেছো
ভালবাসা ভেবে ..
অন্দরমহলের দুয়ার খুলে দেখো 
অজান্তেই তোমার সত্য ভালবাসাকে যে তুমি
আজো অবমুক্ত করনি …
কিভাবে ভালবাসা পাবে তুমি …? 
মেয়ে যাকে তুমি ভালবাসা বলে জেনেছো
একটি বার একটি দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে
চোখ দুটি বন্ধ করে খুবই নিরবে
একাগ্রতায় ধ্যানে মগ্ন হও
মনের চোখটি যেই পলক মেলবে
তুমি দেখতে পাবে একটি ছবি
তাকেই ভালবেসেছো সঙ্কীর্ণ আকাশে যারে খুজেঁ পাওনি তুমি 
যাকে হৃদয়ের অগোচরেই মেয়ে তুমি চেয়েছ …
আর কতটা দিবে নিজেকে ফাঁকি
এবার তো খুলো অন্তরের আঁখি ..।

অভিমান ও ভালবাসা

অভিমান কতটা দীর্ঘতম হতে পারে
তা কখনোই মেপে দেখিনি …
অন্তরালে পুশে রাখার প্রচেষ্টা …?
তাও করিনি ..।

শুধুমাত্র আকাশের বুকে কালো মেঘ জমাট বাঁধার অপেক্ষায় থেকেছি … 
অভিমান গুলোকে মেঘ বানিয়ে উড়িয়েছি 
পলকহীন আকাশের পানে চেয়ে থেকেছি ..

বৃষ্টির আগমনে অভিমান যত ছিলো হৃদয় জুড়ে
অঝরে ঝরিয়েছি ..
আধাঁরের বুক চিরে নীলাকাশ এনেছি 
তবুও ভালবাসাকে তোমার প্রতি ভেসে যেতে দেইনি ..
দেইনি হারিয়ে যেতে … 
আমি অভিমানের কাছে ভালবাসাকে
হেরে যেতে দেইনি .. 
শুধু হেরে গিয়েছি তোমার কাছে ..।

তোমার আমার দৃষ্টিকোণ

তুমি দেখো ঝুমবৃষ্টি
আমি দেখি অশ্রুধারা 
দেখার জন্য আখিঁ নয় যথেষ্ট
হৃদয়ের দৃষ্টিকোন চাই যথার্থ 
তুমিকি কখনো অনুভব করেছো
আকাশের আধাঁরি মেঘমালা দেখে …?
কোথা হতে আগমন এতো মেঘের …? 
একি অভিমান …! নাকি নিরব কষ্ট ..?
আকাশের গর্জন ক্ষোভের …?
নাকি বেদনার আহুতি …? 
বাতাসে কিসের সুর ….? 
শুনতে কি পাও …? 
বুঝবে কি করে বলো
শুনবে কি করে বলো 
বুঝতে হলে ভালবাসতে হয় … 
শুনতে হলে সত্য অনুভূতি জাগ্রত থাকতে হয় 
বুঝতে হলে মানুষের হৃদয় থাকতে হয় …।

অক্ষত নীলাঞ্জনা

মৃত্যু পরে যখন সবাই মায়াকাঁন্নায় ব্যস্ত
কেউবা শোকাহত
কেউবা দেনা পাওনার হিসাবনিকাশে মগ্ন আড়ালেই
হ্যাঁ ঠিক তখনই
একটি ডোম কে ডেকে এনো তোমাদের মধ্যে
কেউ একজন … 
পারলে একটি ডাক্তার ডেকো
তারপর ..! হ্যাঁ তারপর আমার পোস্টমর্টেম করে
বক্ষচিরে প্রথমে হৃদপিণ্ড তারপর ফুসফুস
যথাক্রমে যকৃৎ উৎখাত করে বের করবে ..
দেখবে অসংখ্য ছিদ্রযুক্ত প্রতিটি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গপ্রত্যঙ্গ,
অবাক হবার কিছুই নেই
শুধু অনুভব করে নিও কতটা ক্ষতবিক্ষত জীবন
বয়ে বেড়িয়েছিলাম খুব খুব নিরবে
মিথ্যে হাসিমুখে ..
যন্ত্রণাদায়ক জীবন কতটুকু ব্যথাতুর 
তা কজনা বুঝে …? 
তারপর দেখবে একটি নাম তবুও অক্ষত লালিত
যেই নামটির কাছে
যেই প্রাণটির কাছে আমি দায়বদ্ধ
সে আর কেউ নয়
সে তুমি শুধুই তুমি নীলাঞ্জনা ; 
এবার সবকিছু পুড়ে দিও
মোটা সূচে সেলাই একটু আস্তে দিও বলবো না
কারণ এখন সে আত্না হয়ে অমরত্বের বন্ধনে
খুব ভালো করে একটি সাদা নয় নীল কাফনে
মুড়ে আমাকে রেখে এসো একেলা কবরে,
জীবনের দীর্ঘতম সময় একাকিত্বের মাঝেই ছিলাম
তাই কষ্ট হবেনা এখানেও,
আমিযে অভ্যস্ত 
যদি কখনো অঝোরে বৃষ্টি হয়
যদি কখনো নীলাকাশে গোধুলী ছেয়ে যায়
যদি কখনো জোৎস্নাতে তুমি ভিজে যাও
একটু মনে করো আমাকে
কেউ একজন জীবন দিয়ে ভালবাসতো তোমাকে।

সময়ের দর্পণ

চাঁদ মুখের মুচকি হাসিটুকু খানিকটা
জমিয়ে রেখো …. 
ফুরিয়ে ফেলনা যৌবনের জৌলুশে 
গা ভাসিয়ে …..
জানো তো সুসময়ে দৈর্ঘ্য যতই হোকনা 
কেনো …!
দুঃসময়ের কালো বাকাঁ হাসি থাকে আড়ালেই …
আগমনের সঠিক প্রহর গুনে যাচ্ছে
ঘড়ির কাটার সাথেই টিক …. টিক … টিক
আসবেই ঠিক … ঠিক …ঠিক ;
সময় বলে কথা …
চাঁদ কিন্তু দাগী জানো তো ……
হয়তো তোমার মাঝে সেই দাগ আমি
ভাবতেই পারো অনায়াসেই …
দাবার চালে জীবন পরিচালিত হয়না যেমন
অপবাদগ্রস্ত করো যতই আমাকে ..
প্রতারণার কলঙ্কিত নাম কিন্তু একটিই
তুমি ..! তুমি..! তুমি..!

 

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com