মেইকআপ ‍শুরুর আগে

৯৩৬ বার পঠিত

 

সাজ্জসজ্জা-বিষয়ক একটি ওয়েবসাইটের প্রতিবেদনে এমনই তথ্য দিয়েছেন ভারতীয় মেইকআপ বিশেষজ্ঞ দিপ্তী আশোক।

তিনি বলেন, “মেইকআপ ত্বকের জন্য ক্ষতিকর এটি পুরোপুরি ঠিক নয়। ত্বকের সঙ্গে মানানসই মেইকআপ বেছে নিলে তা তেমন ক্ষতি করবে না। তবে মূল সমস্যা হয় যদি দীর্ঘ সময় মেইকআপ ত্বকে থাকে। এছাড়া দিন শেষে মেইকআপ পুরোপুরি তুলে ফেলা না হলে লোমকূপ বন্ধ হয়ে সমস্যা বৃদ্ধি পেতে পারে।”

এ কারণেই মেইকআপ সম্পর্কে সঠিক ধারণা থাকা জরুরি।

কোনটা সবচেয়ে ভালো: ‘আমার বন্ধুর ত্বকে ওই ফাউন্ডেশন বা লিপস্টিক মানিয়েছে, সুতরাং আমারও সেটাই নেওয়া উচিত।’ প্রসাধনী বাছাইয়ের ক্ষেত্রে এই ধারণা থেকে প্রথমেই বেড়িয়ে আসতে হবে।

মানুষের ত্বক যেমন ভিন্ন তেমনি তাদের জন্য উপযোগী প্রসাধনীও ভিন্ন। সেদিক থেকে একজনের ত্বকে যে ফাউন্ডেশন মানানসই সেটি যে আপনার জন্য ঠিক তা ভেবে নেওয়া বোকামি। তাই যে কোনো প্রসাধনীর ধরন এবং রং বাছাইয়ে ক্ষেত্রে বন্ধু কী ব্যবহার করছে সেটি না ভেবে বরং আপনার জন্য কোনটি ভালো সেদিকে নজর দিতে হবে।

দেখতে যেন মেকি না লাগে: মেইকআপ করার মূল উদ্দেশ্য হল ত্বকের দাগ ছোপ এবং খুঁত ঢেকে ফেলা। তবে মেইকআপ ব্যবহার করে যদি চেহারাই বদলে ফেলা হয়, তাহলে তা মোটেও আকর্ষণীয় কিছু নয়।

তাই ফাউন্ডেশন, কনসিলার, বিবি ক্রিম এবং ফেইস পাউডার বাছাইয়ের ক্ষেত্রে এমন শেইড বেছে নিন যা ত্বকের রংয়ের কাছাকাছি। এতে দেখতে কৃত্রিম বা মেকি লাগবে না।

ব্র্যান্ড নিয়ে মাথা ঘামানো জরুরি নয়: নামিদামি ব্র্যান্ডের প্রসাধনীর মান ভালো তা নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই। তবে এর জন্য অনেক মোটা অঙ্কও গুণতে হয়। তাই সবসময় নামকার ব্র্যান্ডে প্রসাধনী ব্যবহার করতে হবে এমন কোনো কথা নেই। নিজের সাধ্যের মধ্যেই প্রয়োজনীয় প্রসাধনী পাওয়া সম্ভব। শুধু মাথায় রাখতে হবে যে প্রসাধনী ত্বকে খাপ খায় সেটাই যেন সংগ্রহ করা হয়।

প্রথমে ত্বকের যত্ন: মেইকআপ সুন্দর হবে তখনই যখন এর শুরু হবে সুন্দরভাবে। শুষ্ক ও প্রাণহীন ত্বকে মেইকআপ সুন্দরভাবে বসতেও চায় না। তাই মেইকআপের আগে ত্বককে প্রস্তুত করে নিতে হবে।

প্রথমেই ত্বক ভালোভাবে পরিষ্কার করে নিন। ব্ল্যাকহেডস, হোয়াইটহেডসের সমস্যা থাকলে অবশ্যই স্ক্রাবিং করে নিতে হবে নতুবা ত্বকে মেইকআপ বসবে না। মুখে ফাউন্ডেশন ও কনসিলার ব্যবহারের আগে অবশ্যই ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে নিতে হবে। এরপর প্রাইমার লাগিয়ে তবেই মূল মেইকআপ শুরু করা উচিত।

ত্বক যদি শুষ্ক হয় তবে ‘অয়েল বেইজ ময়েশ্চারাইজার’ লাগাতে হবে এবং তৈলাক্ত ত্বকের ক্ষেত্রে ‘ওয়াটার বেইজ ময়েশ্চারাইজার’ উপযোগী। ত্বক সুন্দরভাবে প্রস্তুত করে নিলে মেইকআপ দীর্ঘস্থায়ী হবে।

 

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

মোঃ মিনহাজুর রহমান, লাইফ স্টাইল #

লাইফ স্টাইল

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com