ট্রাম্প প্রশাসনে ট্রাম্প কট্টর বিরোধী সেই দুই নারী

যার বিরুদ্ধে নারী কেলেঙ্কারির একাধিক অভিযোগ সেই ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশাসনের দুই নারী।  উপরন্তু রিপাবলিকান পার্টির প্রেসিডেন্ট মনোনয়নের সময় যারা ছিলেন ট্রাম্পের কট্টর বিরোধী সেই তাদেরকে তিনি মন্ত্রী বানাচ্ছেন। বিবিসি, সিএনএন, এপি, এএফপি।

ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল তিনি নারীদের সম্মান দিতে জানেন না। তিনি অভিবাসী বিরোধী। সেই তিনি জাতিসংঘে মার্কিন রাষ্ট্রদূত হিসেবে নাম ঘোষণা করলেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত নিকি হেলের নাম। যার পরিবার ভারত থেকে যুক্তরাষ্ট্রে অভিবাসিত হয়েছে। ট্রাম্পের এমন সিদ্ধান্তে এখন কে বলবেন তিনি নারী ও অভিবাসী বিরোধী। ট্রাম্পের আরেক নারী মন্ত্রী হলেন বেটসি দেভোস। তিসি একজন ধনপতি নারী। শিক্ষামন্ত্রী হিসেবে তাকেই ঠিক মনে হয়েছে ট্রাম্পের। এই নারী যুক্তরাষ্ট্রে গরীব পরিবারের সন্তানদের যেকোনো বিষয়ে পড়ার অধিকার নিশ্চিত করতে চান।  শিক্ষাক্ষেত্রে অল্প রোজগেরে পরিবারের ওপর যেসব প্রতিবন্ধকতা রয়েছে সেসব বাধা ভাঙতে চান বেটসি। 

তিনি শিক্ষা ব্যবস্থা সংস্কার করার ঘোষণা দিয়েছেন। সবার কাছে শিক্ষা সেবা পৌঁছে দেবার অঙ্গীকার তিনি বহু আগেই দিয়ে রেখেছেন। তিনি মিশিগানের বাসিন্দা। শিক্ষার সঙ্গে বহুদিন ধরে যুক্ত। তাছাড়া ট্রাম্প প্রশাসনের তিনি একজন শক্তিশালী রিপাবলিকান। নির্বাচনী প্রচারে তিনি ট্রাম্পের জন্য অনেক শ্রম দিয়েছেন। নিজের অর্থ পর্যন্ত খরচ করেছেন।

নিকি হেলে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে ফ্লোরিডার রিপাবলিকান গভর্নর মার্কো রুবিওর সমর্থন দিয়েছিলেন। মার্কো রুবিও সরে গেলে তিনি টেক্সাসের সিনেটর টেড ক্রুজকে সমর্থন করেন। পরে টেড ক্রুজ সরে গেলে তিনি ট্রাম্পকে সমর্থন করেন। বলতে গেলে নিজের অনিচ্ছা সত্ত্বেও তিনি ট্রাম্পকে সমর্থন দিতে বাধ্য হন। তবে ট্রাম্পের এসব সিদ্ধান্ত দেখে মনে হচ্ছে রিপাবলিকান পার্টিকে ঐক্য ধরে রাখার জন্য ট্রাম্প তার সমালোচকদের ও তার বিরোধীদের প্রশাসনে আনছেন। তাছাড়া ট্রাম্পের বিরুদ্ধে বিশ্বে যে ভয় তৈরি হয়েছে তা নিকি হেলের মত নারী জাতিসংঘে যাওয়ায়  অনেকটা কেটে যাবে বলে ধারণা অনেকের। বিশ্বকে একটি ম্যাসেজ দেয়ার জন্যই নিকিকে এই পদে আনা হয়েছে। তবে অনেকেই তার কূটনীতিক প্রজ্ঞা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। সিএনএন মত প্রচার মাধ্যম তাকে অনভিজ্ঞ বলার চেষ্টা করছে। তবে যে যাই বলুক ট্রাম্প যে নারীদের সম্মান দিতে জানেন ও অভিবাসী বিরোধী নন। তা এই দুই নারীর নির্বাচনই প্রমাণ করে।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
১৬ বার পঠিত
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com