‘জঙ্গিরা থ্রিমা অ্যাপ ব্যবহার করেছিল’

৪০ বার পঠিত

গুলশানে হলি আর্টিসান বেকারিতে জঙ্গিরা তথ্য আদানপ্রদানের জন্য থ্রিমা মেসেজিং আপ ব্যবহার করেছিল। নিরাপদ এই অ্যাপটি দিয়ে তারা তথ্য দেওয়া-নেওয়া ও জিম্মিদের খুন করার পর তাদের লাশের ছবি আপলোড করে। ভারতীয় গণমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়া সূত্র উল্লেখ না করেই এক প্রতিবেদনে এ তথ্য দিয়েছে।

 

থ্রিমা খুব নিরাপদ মেসেজিং অ্যাপ। মেসেজে পাঠানোর পর সার্ভার থেকে সেটি মুছে ফেলা যায়। সনাক্তকরণের ক্ষেত্রে অপর্যাপ্ত তথ্য থাকে ও ব্যবহারকারীর গোপনীয়তা রক্ষা করা হয়। হামলাকারী জঙ্গিরা  এই অ্যাপটি ব্যবহার করায় বাংলাদেশের কর্তৃপক্ষের পক্ষে সেদিনকার রাতের ফরেনসিক সূত্র বের করা কঠিন হয়ে পড়েছে। বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষ হামলাকারী ও চরমপন্থী সংগঠন জামায়াত উল মুজাহিদীন বাংলাদেশের (জেএমবি) মধ্যকার যোগসূত্র খুঁজছে। জেএমবির সঙ্গে ইসলামিক স্টেটের (আইএস) যোগসূত্রের অভিযোগ রয়েছে।

টাইমস অব ইন্ডিয়াকে র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজির আহমেদ বলেন, তদন্ত চলছে। প্রাথমিক তদন্তে আমরা যে তথ্য পেয়েছি তাতে আমরা বলতে পারি হামলাকারীদের সঙ্গে জেএমবির যোগসূত্র আছে। মঙ্গলবার আইনশৃঙ্খলা বাহিনী গোয়েন্দা তথ্য পেয়েছে হলি আর্টিসানে হামলার আগে অন্য রেস্টুরেন্টে রেকি করে হামলাকারীরা। ওই এলাকার সিসিটিভি ফুটেজ পরীক্ষা করা হচ্ছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, হামলাকারীদের সহযোগী হিসেবে আরও অনেকে ছিলেন। নিরাপত্তা বাহিনী অন্তত ৬ জনকে খুঁজছে যারা ওই হামলায় সহযোগিতা করেছে।  আইএস ৫ জনের ছবি প্রকাশ করেছে, যদিও বাংলাদেশ কর্তৃপক্ষ বলছে হামলাকারী ছিলেন ৬ জন। এর বাইরেও ৫/৬ জন ছিলেন যাদের ছবি দেখা যায়নি।

গত শুক্রবার রাতে হলি আর্টিসান রেস্টুরেন্টে হামলা চালিয়ে দেশি-বিদেশি নাগরিকদের জিম্মি করে সন্ত্রাসীরা। তারা ১৭ বিদেশি নাগরিকসহ ২০ জনকে হত্যা করে। সেনাবাহিনীর কমান্ডো হামলায় নিহত হয় সন্ত্রাসীরা।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সুব্রত দেব নাথ

সিনিয়র নিউজরুম এডিটর

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com