সফটওয়্যার শিল্পে সক্ষমতা উন্নয়নে কাজ করতে চান ফারহানা

১৬ বার পঠিত

একটি প্রতিষ্ঠানকে কিভাবে শূন্য থেকে শতভাগ রফতানিমুখি প্রতিষ্ঠান বানাতে হয় তা ভালোভাবেই রপ্ত করেছেন ফারহানা রহমান। তার অসাধারণ মেধার নিদর্শন হিসেবে ইউওয়াই এখন বাংলাদেশের অন্যতম শীর্ষ সফটওয়্যার রফতানিকারক প্রতিষ্ঠান। স্থানীয় সফটওয়্যার শিল্পের সক্ষমতা উন্নয়নে কাজ করতে চান তিনি।

একান্ত আলাপচারিতায় ফারহানা রহমান জাগো নিউজকে জানান, সফটওয়্যার খাতে নিজস্ব মেধাকে কাজে লাগানোর মাধ্যমে দেশের অর্থনীতিতে অবদান রাখার উদ্দেশ্যে ২০০৩ সালে তিনি নিজ উদ্যোগে গড়ে তোলেন ইউওয়াই নামক সফটওয়্যার কোম্পানিটি। সে সময় সফটওয়্যারে নারী উদ্যোক্তা ছিল যথসামান্য। সন্তানের দেখাশুনা আর এমন এক চ্যালেঞ্জিং পেশায় সকল বৈরিতাকে হার মানিয়ে সামনে এগিয়েছেন। মূলত সফটওয়্যার ডেভেলপ, আউটর্সোসিং ওয়েবসহ বিভিন্ন কাজে তার প্রতিষ্ঠান ইতিমধ্যে দেশে-বিদেশে তার প্রতিষ্ঠানসহ বাংলাদেশের অবস্থানকে সুদৃঢ় করেছে। মাত্র একজন কর্মী দিয়ে নিজের বাসার ড্রইংরুমে যাত্রা শুরু করা ইউওয়াই সিস্টেমস এখন একশর বেশি মানুষের পরিবার। তবে শুরুটা মোটেই সহজ ছিল না বলে জানালেন ফরহানা রহমান।

তিনি বলেন, ‘আউটসোর্সিংয়ের কাজ শুরু করি ২০০৩ সাল থেকে। তখন ছোট ছোট কাজ করতাম। নিজের দক্ষতা ও সক্ষমতা বোঝার জন্য বিদেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের আউটসোর্সিংয়ের কাজ শুরু করি। শুরুতে অফিসটা আমার বাসায় ছিল। তখন আউটসোর্সিংয়ে ভারত খুব ভালো করা শুরু করে। ভারতের কয়েকজন বন্ধুর কাছ থেকে এই ব্যবসাটা সম্পর্কে জানি। তথ্যপ্রযুক্তি নিয়ে অনেক কিছু করা যায় এবং অনেক দূর এগুনো যায়- এই গল্পগুলো শুনতাম।

পরে গ্রাফিক্স এবং ওয়েব ডেভেলপমেন্টের ওপর কিছু প্রশিক্ষণ নিয়ে এই ব্যবসায় নামি। এরপর ২০০৫ সালে আনুষ্ঠানিকভাবে অফিস নিয়ে ব্যবসা শুরু করি। একটা কাজের কত মূল্য নির্ধারণ করলে আরো কাজ পাওয়া যাবে এসবই করে করে শিখতে হয়েছে। শুরুতে একটি আমেরিকান প্রতিষ্ঠানের কাজ পাই। এরপর আস্তে আস্তে কাজের পরিমাণ বাড়তে থাকে এবং প্রতিষ্ঠানের কলেবরও বৃদ্ধি পায়। ইউওয়াই সিস্টেমস লিমিটেড এরই মধ্যে গুণগতমানের স্বীকৃতি হিসেবে অর্জন করেছে আইএসও ৯০০১-২০০৮ সনদ।’

এই নারী উদ্যোক্তা বলেন, ‘এই সময় থেকে আমি ওয়েবনির্ভর সেবা নিয়ে ইউরোপিয়ান মার্কেটে কাজ করছি। এছাড়া আমরা সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্টেও কাজ করি।’ সফটওয়্যার রফতানি বা আউটসোর্সিংয়ের পরিবর্তিত প্রেক্ষাপটে নিজের সাম্প্রতিক কাজ সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘এখন রেসপনসিভ ওয়েবের জনপ্রিয়তা দেখা যাচ্ছে। বিশ্বজুড়ে সবকিছু এখন মোবাইলকেন্দ্রিক করার চেষ্টা চলছে। বিদেশে আমরা সাড়ে তিন হাজার ই-কমার্স ওয়েবসাইট করে দিয়েছি। এছাড়া ইউরোপের সাত হাজার ওয়েবসাইটকে আমরা রেসপনসিভ করেছি।’

ভ্যাট ব্যবস্থাপনা সফটওয়্যারে বাংলাদেশে পথপ্রদর্শক ফারহানা রহমানের প্রতিষ্ঠান। এবিষয়ে তিনি বলেন, ‘ভ্যাট দিয়ে থাকে ক্রেতা বা সেবা গ্রহীতা। যেকোনো প্রতিষ্ঠানের এই ভ্যাট ব্যবস্থাপনায় একজন অপারেটরের কিংবা পরামর্শক রাখতে হয়। সফটওয়্যারের মাধ্যমে যেকোনো প্রতিষ্ঠানই বাড়তি জনবল ছাড়াই সহজেই তার ভ্যাট ব্যবস্থাপা করতে পারে। আমাদের ইউওয়াই ভিএমএস (ভ্যাট ম্যানেজমেন্ট সফটওয়ার) দেশের ছোট, বড় কোম্পানি, বহুজাতিক প্রতিষ্ঠান ব্যবহার করে থাকে। বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড ভ্যাটের আওতায় আনার জন্য সর্বাত্মক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। এক্ষেত্রে তারা সফটওয়্যার ব্যবহার বাধ্যতামূলক করেছিল। যে পাঁচটি কোম্পানির সফটওয়্যার এনবিআরের তালিকাভূক্ত তার মধ্যে অন্যতম ইউওয়াই ভিএমএস। ভ্যাট আইন বাস্তবায়ন হলে এসব সফটওয়্যার ব্যবহার বাড়বে।

হেলথ প্রায়োর নামে একটি পোর্টালের কর্ণধার বেসিসের এই সাবেক সহ-সভাপতি। তিনি বলেন, ‘এখনো এই সেবার বাজার চাহিদা দেখছি। কিন্তু কিছু নীতিগত সমস্যা রয়েছে। এই পোর্টালের মাধ্যমে আমাদের দেশের রোগিরা ডাক্তারদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারে। বিভিন্ন সমস্যার চিকিৎসায় কোথায় সুচিকিৎসা আছে সে সম্পর্কেও সহায়ক আমাদের ওয়েবসাইট।’

আউটসোর্সিংয়ে বাংলাদেশের ব্যাপক সম্ভাবনা থাকলেও এ খাতে বাংলাদেশ এখনো পিছিয়ে। এর কারণ জানতে চাইলে ফারহানা রহমান বলেন, ‘এক্ষেত্রে আমাদের সবচেয়ে বড় বাধা আমাদের মানসম্মত দক্ষ জনবল নেই। প্রশিক্ষণের জন্য আন্তর্জাতিক মানের স্বীকৃত কোনো ইনস্টিটিউট নেই। বিশ্বের বড় কোনো প্রতিষ্ঠান বড় কাজের প্রতিশ্রুতি দিলেও আমরা তা করতে পারছি না। সাত হাজার ওয়েবসাইট করতে আমার নিজের প্রতিষ্ঠানেই একটি ট্রেনিং সেন্টার খুলে ফেলতে হয়েছে। কারণ একই কোয়ালিটির মানুষ বাজারে নেই। অথচ ফিলিপাইনে একটি কোম্পনিতেই হাজার হাজার দক্ষ মানুষ নিয়ে পরিচালিত হচ্ছে। তাদের ইনস্টিটিউট থেকে যে জনবল বের হচ্ছে তাদের দক্ষতা প্রায় সমপর্যায়ের। তাদেরকে নিয়ে এসে কাজে বসিয়ে দেয়া যায়। কিন্তু আমাদের এখানে তা কল্পনাও করা যায় না।’

ব্যবসায়িক কর্মকাণ্ডের পাশাপাশি দেশের সফটওয়্যার শিল্প ব্যবসার উন্নয়নে যোগ দিয়েছেন বেসিসে। ২০১০ সালে বেসিসের প্রথম নারী পরিচালক হিসেবে বিপুল ভোটে নির্বাচিত হন ফারহানা। আগামী ২৫ জুন অনুষ্ঠিতব্য বেসিস নির্বাচনে পরিচালক হিসেবে প্রতিদ্বদ্বিতা করছেন তিনি।

বেসিস নিয়ে নিজের পরিকল্পনার কথা উল্লেখ করে ফারহানা রহমান বলেন, ‘আমি যেহেতু গত ১০ বছর ধরে আন্তর্জাতিক বাজারের সঙ্গে নিবিড়ভাবে জড়িত। বেসিসের ইন্টারন্যাশনাল মার্কেটবিষয়ক কমিটিতে দীর্ঘদিন কাজ করেছি। এজন্য আমাদের দেশের ছোট ছোট কোম্পনিগুলো আন্তর্জাতিক বাজারে উপস্থাপন করবে, কিভাবে দক্ষ মানব সম্পদ তৈরি ও ব্র্যান্ডিং করবে সে বিষয়ে আমি বেসিসেকে সঙ্গে নিয়ে কাজ করতে চাই। স্থানীয় বাজারেও অনেক কাজের জায়গা আছে। কোন কোন অ্যাকাউন্টিং কিংবা ইআরপি সফটওয়ার প্রয়োজন হলে কোন কোম্পানি কোথায় পাবে তা অনেকেই জানেন না। বেসিসের ওয়েবসাইটেও কে কী করে সেই ক্যাটাগরি অনুযায়ি পাওয়া যায় না। স্থানীয় বাজারের জন্য সেই সংযোগ তৈরি করতে চাই।’

তথ্যপ্রযুক্তিতে নারীদের আগ্রহী করে তোলা সেই সঙ্গে সহযোগিতার মানসে ফারহানা যোগ দেন বাংলাদেশ ইউম্যান ইন আইটি বা বিডব্লিউ আইটিতে। সহ-সভাপতি হিসেবে কাজ করছেন প্রযুক্তিখাতে নারী উন্নয়নে। এছাড়াও সামাজিক দায়িত্ব পালনে সাধারণ সম্পাদক যুক্ত আছেন অটিজম শিশু কল্যাণ সমিতির সঙ্গে।

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘নারীদের তথ্যপ্রযুক্তি সেবায় নিয়ে আসতে সাপোর্ট সার্ভিস তৈরি করার ইচ্ছা আছে আমার। বেসিসের ইউম্যান ফোরামকে শক্তিশালী করা আমরা লক্ষ্য। অটিজমের ক্ষেত্রে প্রযুক্তি কোম্পানিগুলো কিভাবে কাজ করতে পারে সে বিষয়েও আমি কিছু করতে চাই।

জাগো নিউজ

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com