হলিউডের সর্বোচ্চ পারিশ্রমিকের অভিনেতারা (পর্ব-১)

৭৭ বার পঠিত
বিশাল এক ফিল্ম ইন্ড্রাস্টি হলিউড। হলিউড সিনেমার মার্কেট বিশ্বজুড়ে। প্রযোজকরা হলিউডের সিনেমা শুধু ইংরেজি ভাষাভাষী মানুষের জন্য মুক্তি দেন না। পুরো পৃথিবীর বিভিন্ন ভাষাভাষী মানুষের জন্য মুক্তি দেন। একটি সিনেমা বিশ্বব্যাপী মার্কেট থেকে যত আয় করবে অভিনেতাদের আয় ততো বেড়ে যাবে। চলুন দেখে নেওয়া যাক বিশ্বের সবচেয়ে বেশি পারিশ্রমিক নেয়া অভিনেতাদের তালিকা।
জ্যাকি চ্যান: চ্যান কং সাং বা জ্যাকি চ্যান ১৯৫৪ সালের ৭ এপ্রিল জন্মগ্রহণ করেন। হংকংয়ে জন্ম নেওয়া জ্যাকি চ্যান একাধারে অভিনেতা, মার্শাল আর্টিস্ট, প্রযোজক, পরিচালক, গায়ক ও স্টান্টম্যান। তিনি সবচেয়ে বেশি পরিচিতি তার কমিক টাইমিং, ফাইটিং স্টাইল, অস্ত্রের সাবলীল ব্যবহার ও অভিনব স্টান্টম্যান হিসেবে কাজ করে। ১৯৬০ সাল থেকে জ্যাকি চ্যান অভিনয় করছেন। এখন পর্যন্ত তিনি ১৫০’র বেশি সিনেমায় অভিনয় করেছেন।

পাঁচ বছর বয়সে ছোট একটি চরিত্রে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে তার অভিনয় ক্যারিয়ার শুরু হয়। তিনি প্রথমে ব্রুসলির ‘ফাস্ট অব ফিউরি’তে স্টান্টম্যান হিসেবে কাজ করেন। এরপর তিনি অনেক চেষ্টা তদবির করে ‘নিউ ফাস্ট অব ফিউরি’তে অভিনয়ের সুযোগ পান। যদিও সিনেমাটি ফ্লপ হয়েছিল। তবে মার্শাল আর্ট নির্ভর সিনেমা ‘স্ন্যাক ইন দ্য ইগলস শ্যাডো’র মাধ্যমে ব্রেকথ্রু পান তিনি এবং ‘ড্রাঙ্কেন মাস্টার’ সিনেমার মাধ্যমে খ্যাতি পান। আর ‘রাম্বল ইন দ্য ব্রঙ্কস’ সিনেমা দিয়ে তিনি নিজেকে হলিউডে প্রতিষ্ঠিত করেন। পরে তার অভিনীত ‘রাশ আওয়ার’ ব্লকবাস্টার হয়। সেই থেকে তার অভিনীত হংকং এবং হলিউডের বেশ কয়েকটি সিনেমা বেশ ব্যবসা সফল হয়। তিনি নিজেকে একজন সংগীতঙ্গ হিসেবেও প্রতিষ্ঠিত করেন এবং এখন পর্যন্ত তার ২০টি অ্যালবাম রয়েছে। মানবপ্রেমিক এই অভিনেতা তার আয়ের বড় অংশ দান করে দেন। জ্যাকি চ্যান চ্যারিটেবল ফাউন্ডেশন নামে তার একটি দাতব্য প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এ ছাড়া তিনি ইউনিসেফের শুভেচ্ছাদূত হিসেবেও কাজ করেছেন। আর সব মিলিয়ে তিনি ২৮টি পুরস্কার জিতেছেন এবং ৩৪ বার নমিনেশন পেয়েছেন। ২০১৬ সালের হিসাব অনুযায়ী তার বাৎসরিক পারিশ্রমিক ৬১ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।

ডোয়াইন জনসন: ডোয়াইন ডগলাস জনসন, আমরা যাকে চিনি রক নামে। রেসলার। ১৯৭২ সালের ২ মে জন্মগ্রহণ করেন রক। তিনি একাধারে অভিনেতা, প্রযোজক ও পেশাদার রেসলার। তিনি অবশ্য অভিনয়শিল্পীর চেয়ে রেসলার হিসেবেই বেশি পরিচিত। ১৯৯৬ থেকে ২০০৪ সাল পর্যন্ত বিশ্ব রেসলিং ফেডারেশনের রেসলার ছিলেন এবং সব মিলিয়ে ১৭ বার ট্রফি জেতেন। ২০০২ সালে তিনি অভিনয়ে আসেন। তার প্রথম সিনেমা ‘দ্য স্করপিয়ন কিং’। প্রথম সিনেমায় তিনি রেকর্ড ৫ দশমিক ৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার পারিশ্রমিক নেন। ফাস্ট অ্যান্ড ফিউরিয়াস ফ্র্যাঞ্চাইজির সিনেমায় অভিনয় করে তিনি নিজেকে অভিনেতা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেন। ২০১৬ সালে ফোর্বসের তালিকায় হলিউডের সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক নেওয়া অভিনেতা হিসেবে রকের নাম আসে। ২০১৬ সালের হিসাব অনুযায়ী তার বাৎসরিক পারিশ্রমিক ৬৪ দশমিক ৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।
ম্যাট ডেমন: ম্যাথু পেজ বা ম্যাট ডেমন ১৯৭০ সালের ৮ অক্টোবর জন্মগ্রহণ করেন। তিনি একাধারে চিত্রনাট্যকার, অভিনেতা ও প্রযোজক। সর্বোচ্চ পারিশ্রমিকের পাশাপাশি ২০১৬ সালের ফোর্বসের সম্ভাবনাময় লাভজনক তারকার (Bankable Stars) তালিকাভুক্ত হন এবং সবচেয়ে ধনী অভিনেতা হিসেবেও তাকে বিবেচনা করা হয়। তিনি অ্যাকাডেমি, গ্লোডেন গ্লোব, ব্রিটিশ অ্যাকাডেমি ও অ্যামি অ্যাওয়ার্ডের মতো বিভিন্ন পুরস্কার জিতেছেন এবং বহুবার মনোনীতও হয়েছেন। হাভার্ডে পড়াশোনার সময় থিয়েটার দিয়ে অভিনয়ের হাতেখড়ি তার। আর ‘মিস্টিক পিজা’ দিয়ে চলচ্চিত্রে অভিনয় শুরু করেন তিনি। এই সিনেমায় মাত্র একটি সংলাপ ছিল তার। ‘কারেজ আন্ডার ফায়ার’ সিনেমায় অভিনয় করে সর্বপ্রথম সমালোচকদের নজর কারেন তিনি এবং বেশ প্রশংসা কুড়ান। ১৯৯০ সালে তিনি বেন অ্যাফ্লেকের সঙ্গে যৌথভাবে ‘গুড উইল হান্টিং’ সিনেমার চিত্রনাট্য লিখেন। সিনেমাটি ৯টি বিভাগে অস্কারে মনোনীত হয় এবং সেরা চিত্রনাট্য বিভাগসহ দুটি পুরস্কার পায়। এ ছাড়া সেরা চিত্রনাট্য হিসেবে গ্রোল্ডেন গ্লোবও জিতেছে সিনেমাটি। ১৯৯৭ সালে তার সিনেমা ‘দ্য রেইনমেকার’ সমালোচকদের দ্বারা বহুল প্রশসিংত হয়েছে। ২০১৬ সালের হিসাব অনুযায়ী তার বাৎসরিক পারিশ্রমিক ৫৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।

টম ক্রুজ: টম ক্রুজ ১৯৬২ সালের ৩ জুলাই জন্মগ্রহণ করেন। টম ক্রুজ আমেরিকান অভিনেতা ও প্রযোজক। তিনি তিনবার গোল্ডেন গ্লোব অ্যাওয়ার্ড জিতেছেন এবং তিন তিনবার অ্যাকাডেমি অ্যাওয়ার্ডের জন্য মনোনীত হয়েছেন। ‘মিশন : ইম্পসিবল’ সিরিজের জন্য তিনি সবচেয়ে বেশি পরিচিত।
১৯ বছর বয়সে ‘ইন্ডলেস লাভ’ সিনেমার মধ্য দিয়ে তার অভিনয় ক্যারিয়ার শুরু হয়। সেই থেকে তিনি ‘ফার অ্যান্ড অ্যাওয়ে‘, ‘অ্যা ফিউ গুড ম্যান’, দ্য ফার্ম’ ‘দ্য লাস্ট সামুরাই’ ইত্যাদি সিনেমায় অভিনয় করেন। ২০১৬ সালের হিসাব অনুযায়ী তার বাৎসরিক পারিশ্রমিক ৫৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।
জনি ডেপ: জনি ডেপ ১৯৬৩ সালের ৯ জুন জন্মগ্রহণ করেন। তিনি আমেরিকান অভিনেতা, সংগীতঙ্গ ও প্রযোজক। অভিনয়ের জন্য তিনি গোল্ডেন গ্লোব অ্যাওয়ার্ড জিতেছেন। জনি ডেপ ‘অ্যা নাইটমেয়ার অন এলম স্ট্রিট’ সিনেমার মাধ্যমে অভিনয় জীবন শুরু করেন। আর ’২১ জাম্প স্ট্রিট’ দিয়ে তিনি পরিচিতি পান এবং তরুণ আইডল অভিনেতা হিসেবে পরিচিতি পান। চরিত্র পছন্দ হলে অভিনয় করেন। মানে বেছে বেছে অভিনয় করেন। তার সিনেমাগুলোর মধ্যে ‘স্লিপি হোলো’, ‘পাইরেটস অব দ্য ক্যারাবিয়ান’ ও ‘চার্লি অ্যান্ড দ্য চকোলেট ফ্যাক্টরি’ উল্লেখযোগ্য। তার অভিনীত বেশ কয়েকটি সিনেমা ব্যবসায়িকভাবে বেশ সফল হয়। যা তাকে হলিউডে বড় তারকা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করে। ২০১২ সালে সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক নিয়ে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে তার নাম আসে। ২০১৬ সালের হিসাব অনুযায়ী তার বাৎসরিক পারিশ্রমিক ৪৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।
–যমুনা নিউজ
ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

মানিক ওমর বিনোদন প্রতিবেদক#

+8801766310000

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com