শিল্পী চারু পিন্টুকে কুপিয়ে হত্যার হুমকি

এই সংবাদ ২৫ বার পঠিত

দুই বাংলার জনপ্রিয় প্রচ্ছদ শিল্পী চারু পিন্টুকে কুপিয়ে হত্যার হুমকি দেয়া হয়েছে। বুধবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে তাকে কুপিয়ে হত্যার হুমকি দেয়া হয়। হুমকি পাওয়ার পর নিরাপত্তা চেয়ে আদাবর থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন তিনি। প্রচ্ছদ শিল্পী চারু পিন্টু তার প্রকৃত নাম আবদুল্লাহ আল কাফি নামেই জিডিটি করেছেন।  চারু পিন্টু রাজধানীর আদাবর এলাকায় থাকেন। জিডিতে তিনি লিখেছেন, ৩ জুন রাত ১০টা ৩৬ মিনিটে ফেসবুকে তাকে হত্যার হুমকি দেয়া হয়। কিন্তু বিষয়টি তিনি গত মঙ্গলবার রাতে টের পান।
 
সাধারণ ডায়েরির বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আদাবর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শেখ শাহিনুর রহমান। তিনি জানান, বুধবার দুপুর আড়াইটায় সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছে। ডায়েরিতে তিনি সবিস্তারে ঘটনার বিবরণ দিয়েছেন।  চারু পিন্টুকে হুমকিদাতা বলেছেন, ‘তোরে কুত্তার মতো করে মারা হবে। ওরে মুক্তমনা… তোকে কুপিয়ে মারবো… এবার তোর পালা।’ ওসি জানান, হুমকির পরে ওই আইডি নিষ্ক্রিয় করে দেয় হুমকিদাতা। আমরা বিষয়টি খতিয়ে দেখছি। কে বা কারা হুমকি দিয়েছে তা খুঁজে বের করা হবে।
 
এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে চারু পিন্টু বলেন, ‘থানায় জিডি করেছি। কী কারণে এ হুমকি জানি না। উগ্রপন্থিরা এখন বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষকে টার্গেটে করছে। সেই তালিকায় হয়তো আমাকেও ফেলেছে। কিছুটা অনিরাপদবোধ করছি বিধায় থানায় জিডি করলাম।  জিডিতে চারু পিন্টু লিখেছেন, তিনি কোনো ব্লগে লেখালেখি করেন না। নাস্তিকতায়ও বিশ্বাসী নন। ধর্মবিদ্বেষী কোনো বিষয়ের সঙ্গেও যুক্ত নন। তবে তিনি মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ও ছাত্রলীগের সাবেক কর্মী। এ কারণে তাকে মৌলবাদীরা টার্গেট করতে পারে।
 
এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে ঢাকা মহানগর পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের এডিসি ওয়াহেদুজ্জামান জাগো নিউজকে বলেন, চারু পিন্টুর অভিযোগের বিষয়টি খুবই গুরুত্ব সহকারে খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এ ক্ষেত্রে আইটি সংক্রান্ত সব প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশের পক্ষ থেকে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। গত দুই বছরে বাংলাদেশে চাপাতির কোপে প্রাণ হারাতে হয়েছে একাধিক সমমনা ব্লগার, প্রকাশক, বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক, ধর্মীয় সংখ্যালঘু ও ভিন্ন মতাবলম্বীসহ বেশ  ক’জনকে। এসব ঘটনার বেশ কটির দায় স্বীকার করে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গি সংগঠন আইএসের নামে বিবৃতি এলেও বাংলাদেশ সরকারের উচ্চ পর্যায় থেকে বলা হচ্ছে এখানে আইএসের অস্তিত্ব নেই।    
 
চারু পিন্টুর গ্রামের বাড়ি যশোরের মণিরামপুরে। ২০০৪ সাল থেকে গল্প, উপন্যাস, কবিতা, প্রবন্ধ ও লিটল ম্যাগে নান্দনিক প্রচ্ছদ এঁকে চলেছেন চারু। ৮ হাজারেরও বেশি প্রচ্ছদ ইতোমধ্যে করেছেন তিনি। ২০০৭ সালে সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার পাওয়া ডোরিস লেসিংয়ের দ্য গ্রাস ইজ সিঙ্গিং, ২০১৫ সালে নোবেল বিজয়ী সোয়েতলানা আলেক্সসিয়েভিচের উপন্যাস চেরনেবি (চেরনোবিলের আর্তনাদ) এবং নোবেল বিজয়ী হার্টা ম্যুলারের অনুবাদগ্রন্থেরও প্রচ্ছদ এঁকেছেন তিনি।  

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com