ঝালকাঠিতে ৯৬ দিনেও খুকুমনির ধর্ষক গ্রেপ্তার বা চার্জশীট প্রদান করা হয়নি

২০ বার পঠিত

ঝালকাঠি প্রতিনিধিঃ নারীখেকো কবির জমাদ্দারের দেয়া অভিযোগের ভিত্তিতে শনিবার ঝালকাঠি সহকারী পুলিশ সুপার (সার্কেল) এম এম মাহমুদ হাসানের কার্যালয়ে তদন্তকালে প্রায় শতাধিক ভাড়াটে লোকজনের সমাগম ঘটিয়ে ব্যাপক চাঞ্চল্য সৃষ্টি করেছে। দীর্ঘ তিন মাস ধরে ধর্ষন মামলায় পালাতক আসামী নলছিটির আলোচিত নারীখেকো কবির জমাদ্দার কে গ্রেপ্তার না করলেও অজ্ঞাত স্থান থেকে তার দেয়া অভিযোগে উল্টো ধর্ষিতা ও তার পরিবারকে পুলিশ কাঠগড়ায় দাড় করাচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। নারীখেকো কবির জমাদ্দার নিজেকে ধোয়া তুলসিপাতা দাবী করে উল্টো তার যৌন লালসার শিকার স্কুল ছাত্রী খুকুমনি (১৪) ও তার পিতামাতা সহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে পুলিশ সুপারের কাছে অভিযোগ করলে এ তদন্ত করা হচ্ছে বলে অভিযোগে দাবী করা হয়েছে। এদিকে কোটিপতি ধর্ষক কবির জমাদ্দার মামলার শুরু থেকে পুলিশের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাদের মাঝে লাখ লাখ টাকা ছড়িয়ে দেয়ায় খুকুমনি ধর্ষন মামলা দায়েরের পর দীর্গ ৯৬ কার্য দিবস অতিবাহিত হলেও আসামী গ্রেপ্তার বা মামলার চার্জশীট প্রদানে কোন অগ্রগতি হয়নি বলে গুরুতর অভিযোগ পাওয়া গেছে।

নবম শ্রেণির ছাত্রীর খুকুমনি ও তার পিতা আঃ মন্নান খান জানায়, সুবিদপুর ইউনিয়নের পূর্ব গোদন্ডা গ্রামের শুকতাঁরা ব্রিকফিল্ডের মালিক ও জেলা বিএনপির জলবায়ু বিষয়ক সম্পাদক নারীলোভী কবির জমাদ্দার ২০১৫ সালের শুরুতে ৯ম শ্রেনীর ছাত্রী খুকুমনিকে গৃহকর্মী হিসাবে কাজে নেয়। গত ১৭ জুলাই রাতে নারীখেকো কবির জমাদ্দার তার বসত ঘরের কিশোরী খুকুমনিকে পিস্তলের ঠেকিয়ে ধর্ষণ করে ও এ কথা কাউকে বললে তাকে সহ তার বাবা-মাকে গুলি করে হত্যার হুমকি দেয়। এভাবে ক্রমাগত ধর্ষণের ফলে সে গর্ভবতী হয়ে পড়লে বরিশালের ডাক্তার কাছে নিয়ে গর্ভপাত ঘটায়। এক পর্যায়ে অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে গত ৮ জানুয়ারি সে পালিয়ে নিজ বাড়িতে এসে সবাইকে কবির জমাদ্দারের বিকৃত যৌনা নির্যাতনের কথা জানায় এতে ক্ষিপ্ত অর্থশালী কবির জমাদ্দার বাদী হয়ে ধর্ষিতা খুকুমনি, তার পিতা, চাচতো ভাই-বোন সহ ৫জনের বিরুদ্ধে একটি চুরির মামলা দায়ের করে। 

সেই মামলায় জামিন নিয়ে স্কুলছাত্রী খুকুমনি গত ১৪ ফেব্রুয়ারী নলছিটি থানায় ধর্ষণের অভিযোগে মামলা করতে গেলে নলছিটি থানা পুলিশ মামলা গ্রহণে অস্বীকৃতি জানায়। পরে ১৬ ফেব্রুয়ারী ধর্ষিতা স্কুল ছাত্রী বাদী হয়ে ল্যম্পট ব্যবসায়ী কবির জমাদ্দারের বিরুদ্ধে ঝালকাঠি নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালতে নির্দেশে নলছিটি থানার ওসি প্রায় ১৫ দিন পর বিলম্বের পর ২৮ ফেব্রুয়ারী এজাহার রেকর্ড করেন। মামলা দায়েরের পর ৩মাসের অধিক সময় অতিবাহিত হলেও এখোন পর্যন্ত আসামী গ্রেপ্তার বা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন প্রদানে থানা পুলিশ কোন অগ্রগতি হয়নি বলে অভিযোগে জানাযায়।

এ অবস্থায় জেলা বিএনপির জলবায়ু বিষয়ক সম্পাদক নারীলোভী কবির জমাদ্দার তার বিরুদ্ধে মিথ্যা ধর্ষন মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ তুলে ঝালকাঠি পুলিশ সুপারের কাছে ধর্ষিতা স্কুল ছাত্রী খুকুমনি, তার বাব-মা, চাচাতো ভাই-বোন সহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ করলে বিষয়টি তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা নেয়ার জন্য এএসপি সার্কেল এম এম মাহমুদ হাসান কে দায়িত্ব দেন। তিনি অভিযোগ প্রদানকারী বাদী , তার স্বপক্ষের ৩ জন স্বাক্ষী ও বিবাদি খুকুমনি সহ ১৪জনকে নোটিশ দিয়ে ০৪ জুন সকাল ১০টায় তার কার্যালয়ে হাজির হতে বললেও অভিযোগকারী নারীখেকো কবির জমাদ্দার হাজির হয়নি। তবে উপস্থিত খুকুমনি সহ বিবাদি ১৪ জন অভিযোগ করেছে, অভিযোগ দিয়ে ল্যম্পট কবির জমাদ্দার নিজে পালাতক থাকলেও তার পক্ষ জনপ্রতি ১হাজার টাকা প্রদান করে শতাধিক লোকজন ভাড়া করে এনে এএসপি সার্কেলের কার্যালয়ের ভেতরে বাহিরে লোক জমায়েত ঘটিয়ে আমাদের ভয়ভীতি দেখানো প্রচেষ্টা চালালেও আমরা নিজেদের জীবনের বিনিময়ে হলেও নারীখোর কবির জমাদ্দারের বিচারের দাবী থেকে পিছু হটবোনা।

এব্যাপারে সহকারী পুলিশ সুপার (সার্কেল) এম এম মাহমুদ হাসানের সাথে আলাপকালে জানান, পুলিশ সুপারের নির্দেশে আজ (শনিবার) প্রথম সকলের সাক্ষ গ্রহন শুরু হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত সম্পন্ন করতে সরেজমিন পরিদর্শন সহ প্রকাশ্য ও গোপনে তদন্তের পর প্রতিবেদন প্রদানে আরো কিছুটা সময় প্রয়োজন। অভিযোগকারী অনুপস্থিত কেনো জানতে চাইলে তিনি বলেন তার পক্ষের স্বাক্ষীরা উপস্থিত রয়েছে।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

অাহিদ সাইফুল ঝালকাঠি প্রতিনিধি #

অাহিদ সাইফুল ঝালকাঠি প্রতিনিধি # মোবাইল নাম্বারঃ +৮৮০১৭১৬৬৩৫৪৭৩

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com