সিঙ্গাপুর থেকে ফেরত পাঠানো ৫ জঙ্গির দেশে জিহাদ করাই ছিল প্রধান লক্ষ্য

সিঙ্গাপুর থেকে ফেরত পাঠানো ৫ বাংলাদেশি জঙ্গির দেশে জিহাদ করাই প্রধান লক্ষ্য ছিল বলে জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের-ডিএমপির মুখপাত্র মনিরুল ইসলাম। বুধবার ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে সাংবাদিকদের প্রশ্নে জাবাবে তিনি এ কথা বলেন। মনিরুল ইসলাম বলেন, এর আগে সিঙ্গাপুর থেকে ফেরত পাঠানো ১৭ বাংলাদেশি জঙ্গিদের সঙ্গে এদের সম্প্রক্ততা রয়েছে কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। পুলিশের হাতে আটককৃতরা সিঙ্গাপুরে গিয়ে জঙ্গিতে পরিণত হয়েছে বলে দাবি করেন তিনি। দেশের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ব্যাক্তিদের হত্যা করার যে লিস্ট করা হয়েছে সে বিষয়ে এখনো কিছু জানা যায়নি বলেও জানান পুলিশের এ মুখপাত্র। এ সময় তিনি আরো বলেন, তাদের বিরুদ্ধে রামপুরা থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

গতকালের তথ্য:

সিঙ্গাপুরে ৮ জন বাংলাদেশিকে আটক করেছে দেশটির কর্তৃপক্ষ। তাদের সিরিয়ায় গিয়ে তাদের আইএসে যোগদানের পরিকল্পনা ও বাংলাদেশের হামলার পরিকল্পনা ছিল বলে জানিয়েছে সিঙ্গাপুরের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। একই কারণে সিঙ্গাপুর থেকে দেশে ফেরত পাঠানো ৫ বাংলাদেশিকে গতকাল রাজধানীর বনশ্রীসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। এদিকে, মঙ্গলবারই দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, ইন্টারনাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট (আইএসএ) এর অধীনে গত এপ্রিলে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তাকৃতরা হলো: রাহমান মিজানুর (৩১), মামুন লিয়াকত আলি (২৯), সোহাগ ইব্রাহিম (২৭), মিয়া রুবেল (২৬), জামান দৌলত (৩৪), ইসলাম শরিফুল (২৭), মো.জাবাত কায়সার হাজী নুরুল ইসলাম সওদাগর (২৯) ও সোহেল হাওলাদার ইসমাইল ইসমাইল হাওলাদার ( ২৯)। প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, আটকৃতদের মধ্যে মিজানুর সিঙ্গাপুরের এস-পাস হোল্ডার। বাকিরা ওয়ার্ক পারমিট হোল্ডার। এরা সবাই স্থানীয় নির্মাণ ও সামুদ্রিক শিল্পে কাজ করছেন।

আটককৃতদের লক্ষ্য ছিল বাংলাদেশে ইসলামিক স্টেট গঠন করে একে স্বঘোষিত ‘আইএসআইএস’র নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসা। সিঙ্গাপুরের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, তদন্তে দেখা গেছে, সংগঠনটি বাংলাদেশে কয়েকটি হামলার পরিকল্পনা করছিল। মিজানুর থেকে পাওয়া ‘উই নিড ফর জিহাদ ফাইট’ শিরোনামের একটি ডকুমেন্টে দেখা গেছে, বাংলাদেশ সরকার ও সেনাবাহিনীর কর্মকর্তাদের তালিকা রয়েছে, যারা তাদের হামলার লক্ষ্য হতে পারত।

মিজানুরের কাছ থেকে আরো ডকুমেন্ট উদ্ধার করা হয়। সেখানে অস্ত্র ও বোমা বানানোর নথি ছিল। এছাড়াও আইএসআইএস ও আল-কায়েদা সংশ্লিষ্ট তথ্য-উপাত্ত ছিল আর এগুলোর মাধ্যমে মিজানুর গত জানুয়ারি থেকে সিঙ্গাপুরে আইএসবি’র সদস্য সংগ্রহ করছিলেন। ওই গ্রুপের সদস্যরা সিঙ্গাপুরে কর্মরত আরো বাংলাদেশিদের সদস্য বানানোর পরিকল্পনার করছিল। এছাড়াও তহবিল থেকে আগ্নেয়াস্ত্র কিনে বাংলাদেশে হামলার পরিকল্পনাও ছিল তাদের। আটক করার পর তাদের কাছ থেকে অর্থ জব্দ করা হয়েছে বলে জানিয়েছে সিঙ্গাপুরের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
৩১ বার পঠিত
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com