তারেক-মামুনের রায় বৃহস্পতিবার

২২ বার পঠিত

বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও তার বন্ধু গিয়াসউদ্দিন আল মামুনের বিরুদ্ধে দুদকের করা অর্থপাচার ‍মামলার রায় জানা যাবে বৃহস্পতিবার।  বুধবার বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি আমির হোসেনের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ দিন ধার্য করেন বলে জানান দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) প্রধান আইনজীবী খুরশীদ আলম খান।

বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি আমির হোসেনের হাইকোর্ট বেঞ্চ বৃহস্পতিবার এ রায় ঘোষণা করবেন। একইসঙ্গে এই মামলায় সাজার বিরুদ্ধে গিয়াস উদ্দিন আল মামুনের আপিল আবেদনের ওপরও রায় দেবেন হাইকোর্ট। নিম্ন আদালতে তারেকের খালাসের রায়ের বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশনের আপিল এবং দণ্ডাদেশের বিরুদ্ধে মামুনের করা আপিলের ওপর শুনানি শেষে গত ১৬ জুন এই বেঞ্চ মামলাটি রায়ের জন্য অপেক্ষমান (সিএভি) রেখেছিল।

বুধবার সকালে সুপ্রিম কোর্টের ওয়েবসাইটে দেখা যায়, উক্ত বেঞ্চের বৃহস্পতিবারের কার্যতালিকায় তারেক-মামুনের মামলাটির রায় ঘোষণা ৪ নম্বরে রয়েছে। গত ২৫ মে দুদক ও গিয়াস উদ্দিন আল মামুনের আপিল আবেদন দু’টির শুনানি একসঙ্গে শুরু হয়। দুদকের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী খুরশীদ আলম খান। তারেক রহমান পলাতক থাকায় তার পক্ষে কোনো আইনজীবী ছিলেন না। তবে মামলায় দণ্ডপ্রাপ্ত গিয়াস উদ্দিন আল মামুনের পক্ষে ব্যারিস্টার ফখরুল ইসলাম শুনানিতে অংশ নেন।

২০০৯ সালের ২৬ অক্টোবর ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট থানায় এ মামলা করা হয়। এ মামলায় তারেক রহমান ও তার বন্ধু ব্যবসায়ী গিয়াসউদ্দিন আল মামুনের বিরুদ্ধে বিচার শুরু হয় ২০১১ সালের ৬ জুলাই। ২০ কোটি টাকা ঘুষ গ্রহণ ও পরে তা বিদেশে পাচারের অভিযোগে করা মামলার রায়ে ঢাকার একটি আদালত ২০১৪ সালের ১৭ নভেম্বর তারেককে খালাস দেন। ওই রায়ে তারেক রহমানের বন্ধু গিয়াসউদ্দিন আল মামুনকে সাত বছরের কারাদণ্ড ও ৪০ কোটি জরিমানা করা হয়।

পরে তারেক রহমানকে দেওয়া খালাস চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে আপিল করে দুদক। গত বছরের ১৯ জানুয়ারি হাইকোর্ট দুদকের আপিল গ্রহণ করে তারেক রহমানকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দেন ও সমন জারি করেন। কিন্তু তিনি পর্যন্ত আত্মসমর্পণ করেননি। এরপর মামলাটি দুদকের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে কার্যতালিকায় এলে গত ১২ জানুয়ারি ফের বিচারিক আদালতে আত্মসমর্পণের জন্য পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করতে নির্দেশ দেন হাইকোর্ট।
এরপর তারেক রহমানকে আত্মসমর্পণ ও আপিলের বিষয়ে অবহিত করতে গত ২০ ও ২১ জানুয়ারি দু’টি পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দেন হাইকোর্ট বিভাগ। চার্জশিটে থাকা দুই ঠিকানায় (লন্ডন ও ঢাকা) সমনের নোটিশও পাঠিয়েছেন বিচারিক আদালত।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com