আজ বৃহস্পতিবার, ৬ই আশ্বিন, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ, ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ইং, ২৮শে জিলহজ্জ, ১৪৩৮ হিজরী, শরৎকাল, সময়ঃ রাত ২:২০ মিনিট | Bangla Font Converter | লাইভ ক্রিকেট

পূর্ব শত্রুতার জেরে রাবিতে দুই শিক্ষার্থীর মারামারী- আহত ১

জি.এ.মিল্টন, রাবি প্রতিনিধি: পূর্ব শত্রুতার জের ধরে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যায়ের শহীদ জিয়াউর রহমান হলে দুই শিক্ষার্থীর মধ্যে মারামারির ঘটনা ঘটে এতে এক জন আহত হন। এ ঘটনায় জড়িত দুই শিক্ষার্থীকেই হল থেকে বহিস্কার করেছে হল প্রশাসন। শনিবার বিকেলে তাদেরকে বহিস্কার করা হয়। বহিস্কৃত দুজন হলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী আব্দুর রহমান পলাশ এবং একই বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী মোহাম্মদ আলী। দুজনের মধ্যে আব্দুর রহমানকে আহত অবস্থায় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ৩৯ নং ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছে।

হলের আবাসিক শিক্ষার্থীরা বলেন, পলাশ এবং আলী হলের ১২১ ও ১২২ নং কক্ষে থাকেন। শুক্রবার তাদের মধ্যকার পূর্ব শত্রুতার জের ধরে হাতাহাতি হয় এবং আলীকে চড় দেন পলাশ। বিষয়টি নিয়ে হল প্রশাসনের কাছে অভিযোগও করেছিলেন আলী। সেই জের ধরে শনিবার দুপুর ২টার দিকে আলীর রুমে যান পলাশ। এসময় তাদের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে হাতাহাতি হয় এতে পলাশ পিলারের সাথে ধাক্কা খেলে গুরুতর আহত হয়। পরে তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এ বিষয়ে মোহাম্মদ আলী বলেন, ‘আমার এক বান্ধবীর সাথে পলাশ ভাইয়ের সমস্যা ছিলো। বিষয়টি নিয়ে পলাশ ভাইয়ের বিরুদ্ধে বিভাগে অভিযোগও দিয়েছিলো সে। পরে পলাশ ভাই আমার কাছে ওই মেয়ের ছবি চাইলে আমি দেইনি। বিষয়টি নিয়ে পলাশ ভাই আমার উপর রেগে ছিলেন। পরে ভাইয়ের মানিব্যাগ হারিয়ে গেলে অযথাই আমাকে অপবাদ দিয়ে নানা ভাবে হেনস্তা ও বকাবকি করেন।’

আলী আরো বলেন, ‘আমার এক বন্ধুর কাছ থেকে টাকা নিয়েছিলাম। পরে সে জানালো টাকাটা পলাশ ভাইয়ের। আমি পলাশ ভাইকে টাকাটা ফেরতও দিয়েছিলাম। কিন্তু তিনি সেটা অস্বীকার করেন এবং পুনরায় আমার কাছে টাকা দাবি করেন। বিষয়টি নিয়ে শুক্রবার কথাকাটাকাটি হয় এবং আমাকে মারধর করেন। আমি অভিযোগ দিলে শনিবার আমার রুমে এসে বকাবকি করেন এবং এক পর্যায়ে ধাক্কাধাক্কিতে হলের পিলারের সাথে উনার মাথা ঠুকে যায়।’

আব্দুর রহমান পলাশ অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘সপ্তাহ খানেক আগে আমার মানিব্যাগ আলীর রুমে ভুল করে রেখে আসি কিন্তু সে ফেরত দিতে অস্বীকৃতি জানায়। সেখানে আমার গুরুত্বপূর্ণ কাগজ, পরিচয়পত্র ছিলো। পরে আমার আরেক বন্ধুর মাধ্যমে সে ম্যানিব্যাগ আমি ১০০ টাকা দিয়ে ওর কাছ থেকে উদ্ধার করি। এছাড়া সে আমার রুমমেটের মাধ্যমে আমার কাছ থেকে কিছু টাকা নিয়েছিলো কিন্তু সেটা ফেরত দেয়নি। অথচ শুক্রবার তার কাছে টাকা চাইলে সে বলে ফেরত দিয়েছে। এসময় মিথ্যা বলায় তাকে একটা চড় দেই। সে হল প্রশাসনকে অভিযোগ দেয়। নিজেরা মিটমাট করে নেবার জন্য শনিবার তার রুমে গেলে এক পর্যায়ে কথাকাটাকাটি হয়। এসময় তাকে বেয়াদব বললে সে আমাকে রড দিয়ে মাথায় আঘাত করে।

এ বিষয়ে হল প্রধ্যাক্ষ অধ্যাপক অনিল চন্দ্র দেব বলেন, ‘হলের নিয়ম শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে দুজনকেই হল থেকে বহিস্কার করা হয়েছে। যদি ভবিষ্যতে এমন কোন ঘটনা আবারো ঘটে তবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সেটা দেখবে।’

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
উপরে
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com