ফলোআপঃ উকরার মৃত্যু আত্মহত্যা নাকি হত্যা!

৯২ বার পঠিত

মেহেদী জামান লিজন, বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধিঃ কবি কাজী নজরুল ইসলাম  বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী উকরা সিং মারমার মৃত্যুর কারণ উদঘাটনে  সাত সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর জাহিদুল কবীরকে আহ্বায়ক ও সহকারী প্রক্টর সোহেল রানাকে সদস্য সচিব করে গঠিত তদন্ত কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন, সহকারী প্রক্টর মাসুম হাওলাদার, সহকারী প্রক্টর সোমা রাণী সূত্রধর, সহকারী প্রক্টর মাসুদ চৌধুরি, সহকারী প্রক্টর প্রণব কুমার মণ্ডল, সহকারী প্রক্টর মো. নজরুল ইসলাম।

তদন্ত কমিটির আহ্বায়ক ও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. জাহিদুল কবীর জানান, ‌‘শিক্ষার্থীর মৃত্যুতে আমার গভীরভাবে শোকাহত। মৃত্যুর মূল কারণ উদঘাটন করতে আমরা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।এটা আত্মহত্যা কিনা, তা এখনো সঠিকভাবে বলা যাচ্ছে না। তবে এ শিক্ষার্থীর মৃত্যুরকারণ নানামুখী সন্দেহের মধ্যে ঘুরপাক খাচ্ছে। ’

ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজের চিকিৎসক মতিউর রহমান জানান, শরীরে আভ্যন্তরীন রক্তক্ষরণের কারণেই তার মৃত্যু হয়েছে। তাছাড়া অনেক উঁচু থেকে পড়ায় তার শরীরের বিভিন্ন অংশ  থেতলে গেছে। ত্রিশাল থানার ওসি মনিরুজ্জামান জানান, ময়নাতদন্ত শেষে লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। পরিবারের সদস্যের সিদ্ধান্ত মোতাবেক কোনও মামলা নেওয়া হয়নি।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে নিহত শিক্ষার্থীর একাধিক বান্ধবীর সাথে কথা বলে জানাযায়, উকরা  সিং মারমা এলাকায় একটি ছেলের সাথে দীর্ঘদিনের প্রেমের সম্পর্ক ছিলো, ছেলের সাথে ঝগড়া করে আত্মহত্যা করতে পারে। তারা আরো জানান, গত এক মাস আগেও উকরা সিং মারমা আত্মহত্যা করার চেষ্টা করেছিলো। বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (দায়িত্বপ্রাপ্ত) কৃষিবিদ ড. মোঃ হুমায়ুন কবীর বলেন, ঘটনাটি নিছক দূর্ঘটনা বলা যাবে না, বরং বেশ রহস্যজনক,এসব বিষয় নিয়ে তদন্ত চলছে, আশাকরি তদন্তের প্রতিবেদনে সঠিক ঘটনাটি উঠে আসবে।

উকরা সিং মারমার মৃত্যুর পর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড. মোহীত উল আলম, রেজিস্ট্রার,প্রক্টর, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু জাফর রিপন, ত্রিশাল সার্কেল এএসপি আল আমিনসহ উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। উল্লেখ্য গত রবিবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ভবনের ৪র্থ তলা থেকে পরে গুরুতর আহত হয় এই শিক্ষার্থী। পরে তাকে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর মৃত্যু হয়। সোমবার দুপুরে ময়নাতদন্ত শেষে লাশ নিয়ে বাড়ির নিয়ে যান পরিবারের সদস্যরা।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com