‘সাংবাদিক হত্যাকে নিন্দা করার বিষয় নয় এটাকে প্রতিবাদ করার বিষয়’

জি.এ.মিল্টন, রাবি প্রতিনিধি: সাংবাদিকরা বিভিন্নভাবে নির্যাতনের শিকার হচ্ছে এবং তারা প্রাণ দিচ্ছে। তাদেরকে যখন পেশাগত দায়িত্ব পালনরত অবস্থায় প্রাণ দিতে হয়, আহত হতে হয়। তখন সেখানে এটাকে নিন্দা করার বিষয় নয় এটিকে প্রতিবাদ করার বিষয়। কিন্তু আমরা যারা সাংবাদিক তারাও এই ঘটনা গুলোকে খুব প্রতিবাদের আওতায় আনতে পারছিনা।

শনিবার বেলা ১১ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সামনে দৈনিক সমকালের সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর প্রতিনিধি আব্দুল হাকিম শিমুলকে গুলি করে হত্যার প্রতিবাদে আয়োজিত মানববন্ধনে এসব কথা বলেন গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মশিহুর রহমান।

মানববন্ধনে মশিহুর রহমান বলেন, ‘অনেক সাংবাদিক আহত, হত্যা হচ্ছেন। এরকম সাংবাদিক যখন গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা গেছেন তখন আমরা এটাকে ফেইজবুকে কমেন্ট বা রিপোর্টিং করে ক্ষান্ত হয়ে যাচ্ছি। সেটা নিয়ে যে আমরা ব্যক্তিগত জায়গা থেকে প্রতিবাদ করবো, ক্ষুব্ধ হবো, রাস্তায় নামবো সেই জায়গাতে আমাদের যথেষ্ট ঢিলেমি আছে।’

গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের প্রভাষক মামুন আব্দুল কাইয়ুম বলেন, ‘আমরা অনেক ঘটনার পর গৌতম বুদ্ধকে বিচার করার সময় সরকার ৯ থেকে ১০ বছর সময় নিয়েছে। তারপরও তার পরিবার থেকে বলা হয়েছে তারা তার যথোপযুক্ত বিচার পায়নি।

তিনি আরও বলেন, আমরা শাহবাগের ঘটনার পরেও রাস্তায় দাড়াতে চেয়েছিলাম কিস্তু আমরা তা পারিনি। সিরাজগঞ্জের সাংবাদিক হত্যার যে ঘটনা দেখেছি তার জন্য আমাদের রাস্তায় দাড়ানো ছাড়া আর কোনো গতি নেই। সাংবাদিক শিমুল তার পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে হত্যাকা-ে সংঘটিত হয়েছে। তাই এটাকে অন্যান্য হত্যাকা-ের মতো দেখলেই চলবে না। আমরা সরকারের কাছে সাত খুনের মতো এই শিমুল হত্যার দ্রুত এবং দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি চাই।’

বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী হোসাইন মিঠুর সঞ্চালনায় মানববনন্ধনে আরও বক্তব্য দেন, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের প্রভাষক আব্দুল্লাহিল বাকী, দৈনিক সমকালের রাজশাহী ব্যুরো প্রধান সৌরভ হাবিব, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় সাংবাদিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজ রনি, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টাস ইউনিটির সভাপতি কায়কোবাদ খান প্রমুখ।

মানববন্ধনে গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগ, সমকাল সুহৃদ সমাবেশ এবং রিপোর্টাস ইউনিটির প্রায় দেড় শতাধিক শিক্ষক-শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।
প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবার দুপুরে স্থানীয় পৌর মেয়র হালিমুল হক মিরুর ছোট ভাই পিন্টু শাহজাদপুর কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি বিজয়কে মারধর করেন। এই ঘটনায় প্রতারিতরা মিরুর বাড়ি ঘেরাও করলে একপর্যায় সংঘর্ষ বাধে। তখন সংবাদ সংগ্রহের সময় শিমুল গুলিবিদ্ধ হন। শুক্রবার দুপুর পৌনে ১টার দিকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ থেকে ঢাকায় নেওয়ার পথে তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
১১৮ বার পঠিত

জি.এ.মিল্টন, রাবি প্রতিনিধি #

গাউছুল আজম মিল্টন শহীদ হবিবুর রহমান হল, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী - ৬২০৫ ০১৭৬৩-২৩৭৭৭৬

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com