‘মোজাম্মেল হক সমকালীন গ্রাম ও রাজনীতি’ শীর্ষক গ্রণ্থ প্রকাশ অনুষ্ঠান

এই সংবাদ ৭৬ বার পঠিত

সুকুমার মিত্র, কলকাতা: মোজাম্মেল হকের মৃত্যুর পর কেটে গিয়েছে ২৪টা বছর। তাঁর ২৫ তম প্রয়াণ দিবসের আগের দিন গ্রামের মানুষের উদ্যোগে অনুষ্ঠিত হয় মোজাম্মেল হক স্মারক বক্তৃতা।‘বিংশ শতাব্দীতে মানুষের শোকের আয়ু বড় জোর এক বছর’। কবি একথা বলেছিলেন। একথা হয়তো ঠিক। শোক ভুললেও কোনও কোনও মানুষকে হয়তো প্রতিবেশীরা, বন্ধুরা, স্বজনরা ভুলতে পারেন না। এমনই এক ভোগসর্বস্ব একুশ শতকে উত্তর ২৪ পরগনার রাউতাড়া অঞ্চলের নারায়ণপুরে ১৭ জুলাই,২০১৬, রবিবারের বিকেলের এক অনুষ্ঠান সেই কথাই স্মরণ করিয়ে দিয়ে গ্রামবাসীরা জানালেন, মোজাম্মেল হককে ভোলেননি, ভুলতে পারেন না, ভোলা যায় না তাই। রাজনীতি ও রাজনৈতিক মানুষদের প্রতি মানুষের যখন চরম অনীহা সেই সময় পঞ্চাশের দশকের একজন কমিউনিস্ট কর্মী, কৃষক নেতার মৃত্যুর দু’ যুগ পরে আলোচনার বিষয়- ‘মোজাম্মেল হক আজও প্রাসঙ্গিক’।

সভায় এ বিষয়ে আলোচক বৃহত্তর হাবড়া এলাকার কমিউনিস্ট আন্দোলনের পথচলা শুরুর গুটিকয়েক মানুষদের অন্যতম একজন পরিতোষ ঘোষ(৮৫)। বর্ষীয়ান রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব ও সামাজিক আন্দোলনের অগ্রণী পরিতোষবাবু বলেন, আজকের সভায় সমাজের বিভিন্নস্তরের মানুষের উপস্থিতি প্রমাণ করেছে মোজাম্মেল হক আজও প্রাসঙ্গিক। সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে, বিশেষ করে দাঙ্গার বিরুদ্ধে জীবন বাজি রেখে মোজাম্মেল হক যে লড়াই করেছেন তা আবেগ আপ্লুত কণ্ঠে তুলে ধরেন পরিতোষবাবু। প্রধান অতিথির বক্তব্য পেশ করতে গিয়ে সিপিআই নেতা মনীষী মোহন নন্দী বলেন, মোজাম্মেল হক ছিলেন আজীবন নিরলস সংগ্রামী। তিনি একজন বিচক্ষ‌ণ রাজনৈতিক নেতৃত্বর মতই সর্বদা সাধারণ মানুষের লড়াই-এর সামনে থেকেছেন। বিশিষ্ট সিপিএম নেতা নিমাই বিশ্বাস ছাত্রজীবন থেকে মোজাম্মেল হকের সঙ্গে তাঁর সম্পর্কের সূত্র ধরে সংক্ষিিপ্ত স্মৃতিচারণা করেন।Mozammel hoqueপ্রথম পর্বের অনুষ্ঠানের অন্যতম আকর্ষণ ছিল ‘মোজাম্মেল হক সমকালীন গ্রাম ও রাজনীতি’ শীর্ষক সংকলন গ্রণ্থ প্রকাশ। মোজাম্মেল হককে কাছে থেকে দেখা এমন বাইশ জনের লেখায় সমৃদ্ধ সংকলনটি। সংকলনে সংযোজিত হয়েছে মোজাম্মেল হকের জেল জীবনের মূল্যবান ১৩টি চিঠি। প্রাসঙ্গিক বেশ কিছু ছবি সংকলনটির গুরুত্ব বৃদ্ধি করেছে। সংকলটি প্রকাশ করেন নিমাই বিশ্বাস, স্বপন গুপ্ত, মনীষী মোহন নন্দী, বিমল সেনরা। এঁরা সকলেই মোজাম্মেল হকের রাজনৈতিক ও সামাজিক কাজের দীর্ঘদিনের সঙ্গী। এই অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে ছিল মোজাম্মেল হক স্মারক বক্তৃতা। স্মারক বক্তৃতার বিষয় ছিল, ‘আমাদের গ্রামকে আমরাই জানব, আমরাই বুঝব।’

বক্তব্য রাখলেন অধ্যাপক শুভেন্দু দাশগুপ্ত। তিনি মোজাম্মেল হককে নিয়ে লেখা সংকলন গ্রন্থের বিষয়বস্তু নিয়ে প্রথমে বিশদে আলোচনা করেন। বক্তব্যের শেষ পর্বে গ্রাম জীবনের বর্তমান নানা সমস্যা তুলে তার থেকে বেরিয়ে আসতে নিজেদের মধ্যে পারস্পরিক আলাপ-আলোচনার উপর জোর দেন। সভায় সভাপতিত্ব করেন নারায়ণপুর হাইস্কুলের অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষ‌ক আব্দুর রসিদ মোল্লা। নারায়ণপুর স্কুলের অনুষ্ঠান কক্ষেশ গ্রাম ছাপিয়ে পড়শি ও সংশ্লিষ্ট শহর এলাকার মানুষদের সম্মিলিত উপস্থিতিতে অনুষ্ঠানটি সর্বাঙ্গীন সুন্দর হয়ে ওঠে। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন মোজাম্মেল হকের জ্যেষ্ঠ পুত্র মনিরুল হক।

ফেসবুক থেকে মতামত দিন
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com