,

AD
নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

সুমন আখন্দ এর ভাংতি কবিতা

লাইক এবং শেয়ার করুন

ভাংতি

(১)
যখন ঘরে ঢুকি পৃথিবীকে ছোট মনে হয়
যখন বাইরে যাই ঘরটাকে শুধু মনে হয়

(২)
বললেই হলো, দেশ বেচে দিবে
কে দিবে আর কে নিবে
সামনে আসুক, কার ঘাড়ে কয় কল্লা!
প্রতি ইঞ্চিতে আছি, মৌমাছি-ভিমরুল-বল্লা।
লাল-পিঁপড়ে আমি আছি পাহারায়
দেখছি আগন্তুক, কে আসে আর কে যায়—
সাপ-বিচ্ছু, রয়েল বেঙ্গল টাইগার জেগে থাকো রে!
দালালেরা সব ভেসে যাবে দূরে, বঙ্গোপসাগরে!

(৩)
 রোদ হচ্ছে
বিষ্টি হচ্ছে
কোথাও তিতা মিষ্টি হচ্ছে!

বিষ্টি হচ্ছে
রোদ হচ্ছে
ধারের পানি শোধ হচ্ছে!

(৪)
বিদ্যুত নাই, বজ্রবিদ্যুত আছে!
পানি নাই, বৃষ্টিপানি আছে!

(৫)
আসো চৈত্র্যের ঝড়, আসো প্রচন্ড
সারাবছরের রাগ, ঝারো অখন্ড
বজ্রপাত নিয়ে আসো
শিলাবৃষ্টি নিয়ে আসো
বৈশাখ চিনে নিবে, কে ভালো, কে ভন্ড!

(৬)
 ঘর পালিয়ে নজরুল
স্কুল পালিয়ে রবীন্দ্রনাথ
গ্রাম পালিয়ে শাহ আব্দুল করিম;
পালিয়ে যেতে ইচ্ছে করে!

সংসার ছেড়ে কার্ল মার্ক্স
শহর ছেড়ে আইনস্টাইন
দেশ ছেড়ে সিগমন্ড ফ্রয়েড;
সব ছেড়ে যেতে ইচ্ছে করে!

(৭)
আজেবাজে লোকেরা হাঙ্গামা করে
নতুন চরে
ঘর-বাড়ি-বাসার ছানাপোনা বাড়ে
দখল করে
খারাপ চিন্তার ধুলাবালি ঢুকে পড়ে
মনের ঘরে;
বিবেকের ঝাঁড়ুটাকে ধরেছি আঁকড়ে
শক্ত করে!

(৮)
 ছোট ছোট চোখ দুটো যে
স্বপ্ন দেখে বড় বড়,
অমর হতে চাইছি সুমন
মন যদিও মরমর!

ভাবছি আর হাঁটছি যেদিক
সেটা ঠিক সড়ক না,
নরক দিয়েই যাচ্ছি আমি
এখানে তো থামবো না!

(৯)
 স্ট্যাটাসপুত্র স্ট্যাটাস লিখে
হাবিজাবি!
কমেন্টকণ্যা কমেন্ট করে
বেহিসাবি!

লাইক-মাইন্ডেডরা লাইক দেয়
পড়ে না-পড়ে
শেয়ারবন্ধুরা শেয়ার করে
কেয়ার করে!

(১০)
দেয়াল রঙ করাচ্ছি
ঢেকে যাচ্ছে পুরানো দাগ
ছাদ, মেঝে ছাপছুপ
কালি-ঝুলি সব ভাগ!
মন রঙ করাচ্ছি
চলে যাবে কি পুরানো রাগ!

(১১)
জুনিপোকা হলে পেইন,
আর কত পেইন খাবো!
দেখি, একদিন চাঁদ চুরি করবো
এবং পেইনকিলার হিসেবে খাবো!

(১২)
কিছু সম্পর্ক পড়ে গেছে হাত গলে
কিছু সম্পর্ক পুরণো, গেছে রং জ্বলে
কিছু সম্পর্ক এসেছে করে হ্যান্ডশেক
কিছু সম্পর্ক গলা টিপেছি, ছিল ফেক
সম্পর্করা নদীর মতো ভাঙে গড়ে
আপন যারা কোলে এসে বসে পড়ে।

লেখক পরিচিতিঃ মাদারীপুরের রমজানপুর গ্রামে ১৫ আগষ্ট ১৯৭৫ খৃষ্টাব্দ তারিখে সুমন আখন্দের জন্ম। শৈশব কেটেছে মাদারীপুর, বরিশাল ও ঢাকাতে। ঢাকা কলেজ হতে উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করে ভর্তি হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। স্নাতকোত্তরের পরে কয়েকটি গবেষণা প্রতিষ্ঠানে এবং ফ্রিল্যান্সার হিসেবে বিভিন্ন জাতীয় পত্রিকায় কাজ করেছেন। বিবাহিত এবং দুই কণ্যার পিতা সুমন আখন্দ বর্তমানে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে নৃবিজ্ঞান বিভাগে সহকারী অধ্যাপক হিসেবে কর্মরত। প্রবন্ধ-গল্প-কবিতা-ছড়া ইত্যাদি সাহিত্যচর্চার পাশাপাশি গবেষণা কর্মও করছেন পেশার প্রয়োজনে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় নৃবিজ্ঞান বিভাগে ‘বাংলাদেশের ঐতিহ্যিক জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা’-বিষয় নিয়ে পিএইচডি গবেষণা করছেন।


লাইক এবং শেয়ার করুন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

আরও অন্যান্য সংবাদ