,

AD
নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

মাদকসেবী ও বিক্রেতাদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে আগৈলঝাড়া থানা পুলিশের বিশেষ উদ্যোগ

লাইক এবং শেয়ার করুন

অপূর্ব লাল সরকার, আগৈলঝাড়া (বরিশাল) # বরিশালের আগৈলঝাড়ায় আপাতত: ১৪১ জন মাদকাসক্ত, বিক্রেতা ও গডফাদারদের আত্মসমর্পণের সুযোগ দিয়ে তাদের স্বাভাবিক জীবনের স্বপ্ন দেখাতে চলেছে পুলিশ। আগামী ১৩ মার্চ আত্মসমর্পণের আহ্বাণ রাষ্ট্রীয় প্রশাসন কর্তৃক সন্ত্রাসী, অস্ত্রধারী, বনদস্যু, জলদস্যুসহ রাষ্ট্রপরিপন্থী জঙ্গী সংগঠনের আত্মসমর্পণের আহ্বাণের পর জেলার মধ্যে সর্বপ্রথম আগৈলঝাড়া উপজেলাকে সামাজিক ব্যাধি মাদকমুক্ত হিসেবে ঘোষণা করতে ও মাদকাসক্তদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনতে এবার মাদক সেবনকারী, বিক্রেতা ও তাদের আশ্রয়-প্রশ্রয়দাতা গডফাদারদের আত্মসমর্পণের আহ্বাণ জানিয়েছে আগৈলঝাড়া থানা পুলিশ। আগৈলঝাড়া থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মনিরুল ইসলাম বলেন, জেলা পুলিশের সহায়তায় উপজেলার পাঁচটি ইউনিয়নের মধ্যে আপাতত: তালিকাভুক্ত ১৪১ জন মাদকাসক্তদের আত্মসমর্পণের লক্ষে আগামী ১৩ মার্চ থানা চত্বরে এক বিশেষ সভার আয়োজন করা হয়েছে। এলক্ষে সকল প্রস্তুতি প্রায় সম্পনের পথে।

ওসি মো. মনিরুল ইসলাম আরও জানান, মাদকের বিরুদ্ধে সরকারের জিরো টলারেন্স ঘোষণা বাস্তবায়ন করতে মাদকসেবী, বিক্রেতা ও গডফাদারদের আত্মসমর্পণের আহ্বাণ জানানো হয়েছে। এজন্য পুলিশ প্রশাসন উপজেলার মাদক সেবনকারী, বিক্রেতা ও গডফাদারদের তালিকানুযায়ী তাদের বাবা-মা অথবা নিকটতম আত্মীয়স্বজনদের কাছে তাদের আত্মসমর্পণের কথা পৌঁছে দেয়া হয়েছে। পুলিশের এই আহ্বাণ সর্বত্র পৌঁছে দেয়ার জন্য বিভিন্ন এলাকায় মাইকিং করাসহ বিভিন্ন হাট-বাজারে ঢোল-সহরতের মাধ্যমেও প্রচার করা হয়েছে।

জানা গেছে, চারটি ধাপে মাদক সেবনকারী, বিক্রেতা, গডফাদার ও মাদকাসক্তদের তালিকা প্রণয়ন করা হয়েছে। এর মধ্যে ‘এ’ গ্রুপে বড় মাদক ব্যবসায়ী ৩৬ জন, ‘বি’ গ্রুপে মধ্যম মাদক ব্যবসায়ী ২৩ জন, ‘সি’ গ্রুপে ছোট থেকে মাধ্যম মাদক ব্যবসায়ী ৩২ জন, ‘ডি’ গ্রুপে ছোট মাদক ব্যবসায়ী ৪২ জন এবং ৮ জন মাদক ব্যবসায়ীদের আশ্রয়-প্রশ্রয়দাতা বা গডফাদারের তালিকাসহ মোট ১৪১ জনকে আত্মসমর্পণের জন্য আহ্বাণ জানানো হয়েছে। মাদক সেবনকারী ও ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে কঠোর হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে ওসি আরও বলেন, স্বাভাবিক জীবনের ফিরে আসতে ওইদিন যারা পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করবে, পুলিশ তাদের মাদক নিরাময়ের জন্য চিকিৎসা প্রদান করে তাদের যোগ্যতানুযায়ী কাজের সুপারিশ করে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে সার্বিক সহযোগিতা করবে। তাদের বিরুদ্ধে আইনী কোন ব্যবস্থা নেয়া হবেনা। তবে যদি ওইদিন তালিকাভুক্ত মাদকাসক্তরা পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ না করে তবে বিশেষ অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করে কঠোর আইনী ব্যবস্থা নেয়ার কথাও জানান তিনি।

মাদকাসক্তদের তালিকা সম্পর্কে ওসি জানান, গত ১৯ ফেব্রুয়ারী উপজেলার বিভিন্ন এলাকার সর্ব শ্রেণী-পেশার লোকজনের উপস্থিতিতে থানা চত্বরে অনুষ্ঠিত মাদক ও সন্ত্রাস বিরোধী সভায় জেলা পুলিশের নির্দিষ্ট ফরমে বিভিন্ন শ্রেণী-পেশা ও সাধারণ মানুষের দেয়া মাদকাসক্তদের নাম যাচাই-বাছাই করে চূড়ান্ত তালিকা প্রণয়ন করা হয়েছে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, ওই তালিকার বাইরে এখনও কেউ থাকতে পারে। তাদের ব্যাপারে পরবর্তীতে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।


লাইক এবং শেয়ার করুন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

আরও অন্যান্য সংবাদ