,

AD
নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

ব্রাহ্মণবাড়ীয়ায় গুলিবিদ্ধ একব্যক্তির লাশ উদ্ধার

লাইক এবং শেয়ার করুন

আদিত্ব্য কামাল, ব্রাহ্মণবাড়ীয়া প্রতিনিধি: ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় গুলিবিদ্ধ এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার হয়েছে। নিহতের স্বজনরা ঘটনার সাথে জড়িতদের বিচার দাবী করেছে। পরিবারের সদস্যরা দাবী করেছে পুলিশ তাকে দিন দুপুরে বাসা থেকে ধরে নিয়ে হত্যা করেছে। আর পুলিশ বলেছে, মাদক ব্যবসায়ী দু,টি গ্রুপের সংঘর্ষেই ঐ ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। নিহত আল-আমিন (২৮) এর বাড়ি শহরের কান্দি পাড়া মহল্লায়। ব্রাহ্মনবাড়িয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাইনুর রহমান জানান, সোমবার রাত ২টায় পৌরশহরের মেড্ডা সরকারি শিশু পরিবার সংলগ্ন খোলা জায়গায় গুলোগুলির ঘটনা ঘটে। তখন তিনি বেতার দিয়ে টহল দল সেখানে পাঠান। তিনি আরো জানান, সেখানে দু,পক্ষের গুর্লি বিনিময় হয়। এতে একজন আহত হলে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে পাঠায়। কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করে।

নিহতের স্ত্রী তানজিন অভিযোগ করে বলেন, সোমবার বিকেল চারটায় থানার আশরাফ দারোগা পুলিশ সোর্স খোকনকে সাথে নিয়ে এসে তার
স্বামীকে ধরে নিয়ে যায়। তখন তারা সাদা পোষাকে ছিল। আটকের পর তাকে পানিতে চুপাতে থাকে। এসময় তাকে নির্মান ভাবে নিযাতন করে। থানায় তারা আসলে পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয় আল আমীন নামে কাউকে আমরা ধরে আনি নি। তার পর ও রাতে থানায় যাই কিন্ত পুলিশ আল আমীনকে আমাদের সাথে কথা বলতে দেয় নি। সকালে সোর্স খোকন মোবাইলে জানায় তাকে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে নিয়ে আসার জন্য। তিনি আরও অভিযোগ করেন, পুলিশ তার স্বামী আল আমিনকে গুলি করে হত্যা করেছে।

তিনি জড়িত ওই পুলিশ সদস্য ও তার সোর্সদের বিচার দাবি করেন। জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ ইকবাল হোসাইন সাংবাদিকদের বলেন, পুলিশ আল আমিনকে তুলে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ সত্য নয়। আমরা যতটুকু জানতে পেরেছি মাদক ব্যবসার দু, লাখ টাকার ভাগাভাগি নিয়ে দু’পক্ষের
সংর্ঘষে মেড্ডা সরকারি শিশু পরিবারের সামনে গোলাগুলির খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে আল আমিনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে তাকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এছাড়াও পুলিশ জানায়, তার বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি মামলা রয়েছে।


লাইক এবং শেয়ার করুন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও অন্যান্য সংবাদ