,

AD
নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

টাঙ্গাইল-৪ (কালিহাতি) আসনের ভোটগ্রহণ শুরু

লাইক এবং শেয়ার করুন

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি ; টাঙ্গাইল-৪ (কালিহাতী) আসনের উপ-নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। মঙ্গলবার সকাল ৮টায় এ ভোটগ্রহণ শুরু হয় চলবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত। জেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, নির্বাচনে ৩ জন প্রার্থী লড়ছেন। এরা হলেন, মোহাম্মদ হাসান ইমাম খান (সোহেল হাজারী-আওয়ামী লীগ), আতাউর রহমান খান (বিএনএফ) ও ইমরুল কায়েস (এনপিপি)। এই আসনের মোট ভোটার ৩ লাখ ৭ হাজার ৭০০ জন। উল্লেখ্য, নিউইয়র্কে এক সভায় বিতর্কিত বক্তব্য দিয়ে আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কৃত এবং মন্ত্রিসভা থেকে বাদ পড়ার পর ২০১৫ সালের ১ সেপ্টেম্বর টাঙ্গাইল-৪ (কালিহাতী) আসনের সংসদ সদস্য পদ থেকে আবদুল লতিফ সিদ্দিকী পদত্যাগ করেন।

এতে শূন্য হয়ে যায় ওই আসন। এই সংসদীয় আসনটি শূন্য ঘোষণা করে ওই বছরের ৩ সেপ্টেম্বর গেজেট প্রকাশ করে সংসদ সচিবালয়। এ আসনে উপ-নির্বাচনে প্রার্থী হতে মনোনয়নপত্র জমা দেন কৃষক-শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী। তবে ঋণ খেলাপির অভিযোগে রিটার্নিং কর্মকর্তা ২০১৫ সালের ১৩ অক্টোবর তার মনোনয়নপত্র বাতিল করেন। এর বিরুদ্ধে কাদের সিদ্দিকী নির্বাচন কমিশনে আপিল করলে তা ওই বছরের ১৮ অক্টোবর খারিজ হয়। এরপর প্রার্থিতা ফিরে পেতে হাইকোর্টে রিট আবেদন করেন তিনি। ২০১৬ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্ট কাদের সিদ্দিকীর রিট আবেদনের ওপর রায় দেন।

এতে মনোনয়নপত্র বাতিল করে নির্বাচন কমিশনের দেয়া সিদ্ধান্ত বহাল রাখা হয়। ফলে স্থগিতাদেশ উঠে যায়। তখন নির্বাচন কমিশনের আইনজীবী বলেছিলেন, রায়ের পর টাঙ্গাইল-৪ (কালিহাতী) আসনে উপ-নির্বাচন অনুষ্ঠানে আর কোনো আইনগত বাধা থাকছে না। আর ওই উপ-নির্বাচনে প্রার্থী হতে পারছেন না কাদের সিদ্দিকী। এরপর আসনটিতে ২০ মার্চ উপ-নির্বাচন অনুষ্ঠানের ঘোষণা দেয় নির্বাচন কমিশন। হাইকোর্টের ওই রায়ের বিরুদ্ধে ২০১৬ সালের ৭ ফেব্রুয়ারি আপিল বিভাগে আবেদন করেন কাদের সিদ্দিকী। চলতি বছরের ১৮ জানুয়ারি কাদের সিদ্দিকীর মনোনয়নপত্র অবৈধ ঘোষণা করে হাইকোর্টের দেয়া রায় বহাল রাখেন আপিল বিভাগ। এর ফলে প্রার্থী হওয়ার সুযোগ হারান তিনি।


লাইক এবং শেয়ার করুন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও অন্যান্য সংবাদ