,

AD
নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

রাজশাহী নগরীতে ছেলের হাতে বাবা খুন

লাইক এবং শেয়ার করুন

মোঃ রাজন আমান, ভ্রাম্যমান প্রতিনিধি # রাজশাহী মহানগরীতে দুই ছেলে মিলে বাবাকে হত্যা করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ব্যাংকে রাখা টাকার লোভে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে নগরীর রাজপাড়া থানার বহরমপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। খুন হওয়া আবদুল শেখ (৬৫) রাজশাহী শিক্ষাবোর্ডের অবসরপ্রাপ্ত অফিস সহকারি।

এ ঘটনায় তার ছোট ছেলে শরিফুল ইসলাম ওরফে শরিফ (৩৫) ও তার স্ত্রী হাবিবা আক্তার লাইজুকে (৩০) আটক করেছে পুলিশ। রাজপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমান উল্লাহ জানান, আবদুল শেখের দুইটি স্ত্রী। প্রথম স্ত্রী মারা যাওয়ার পর আছিয়া বেগমকে বিয়ে করেন। প্রথম স্ত্রীর পক্ষে তিন ছেলে ও দ্বিতীয় স্ত্রীর এক মেয়ে। তিন ছেলের মধ্যে শুধু শরিফ বাড়িতেই থাকেন। তার বড় ছেলে আবু তাহের সুজন ও মেজ ছেলে আবু বকর সিদ্দিক সুরুজ ভাড়া বাসায় থাকে। সকালে গেটের তালা ভেঙে বাড়িতে প্রবেশ করে সুজন। পরে শরিফ ও সুজন মিলে আবদুল শেখকে মারপিট করে মেঝেতে ফেলে বালিশ চাপা দিয়ে হত্যা করে। এসময় তাকে উদ্ধারে এগিয়ে আসলেও তারা আবদুস শেখের স্ত্রী আছিয়া বেগমকেও মারপিট করে। আছিয়া বেগম বাড়ির ছাদে পালিয়ে গিয়ে নিজেকে রক্ষা করে। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে অবদুল শেখকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়। হাসপাতালের জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন বলে জানান ওসি।

নিহতের মেজ ছেলে আবু বাক্কার সিদ্দিক সুরুজ জানান, ছোট ভাই শরিফ তার কাছ থেকে চার লাখ টাকা ধার নিয়েছিলেন। কিন্তু এ টাকা তিনি ফেরত দিচ্ছিলেন না। এ নিয়ে রোববার সন্ধ্যায় স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলরের চেম্বারে শালিস ডাকা হয়। কিন্তু সেখানে কোনো মিমাংসা হয়নি। ওই টাকা নিয়ে সোমবার সকালে বাড়িতে সুজন ও শরিফের সঙ্গে তার বাকবিতণ্ডা হয়। এ সময় বাবা তার পক্ষ নিয়ে কথা বলেন এবং সুজনকে বাড়ি থেকে বের করে দেন। এর পর তিনিও বাড়ি থেকে চলে যান। এর কিছুক্ষন পর সুজন আবার বাড়িতে আসছে। গেট না খোলায় তালা ভেঙে বাড়ির ভেতর প্রবেশ করে সুজন। আর শফি আগেই থেকেই বাড়ির ভেতরে ছিল।

ওসি আমান উল্লাহ বলেন, এ ঘটনায় শরিফ ও তার স্ত্রীকে আটক করা হলেও আরেক ছেলে সুজন পালাতক রয়েছে। তাকে গ্রেপ্তারে পুলিশ চেষ্টা চালাচ্ছে বলে জানান ওসি। নিহত আবদুল শেখের স্ত্রী আছিয়া বলেন, দুইটি ব্যাংকে তার স্বামীর নামে ৪০ লাখ টাকা রয়েছে। একটিতে ৩৫ লাখ ও অপরটিতে ৫ লাখ টাকা। সে টাকাসহ জমিজমা লিখে নেয়ার জন্য বেশ কিছুদিন থেকে শরিফ ও সুজন চাপ দিয়ে আসছিল বলে জানান তিনি।

আবু বকর সিদ্দিকের স্ত্রী রোজি সিদ্দিকী বলেন, পিতাকে হত্যা করার পর সুজন বাক্সের তালা ভেঙ্গে নগদ পাঁচ লাখ টাকা ও ৩৫ লাখ টাকার চেক এক জমিজমার দলিলপত্র ও দুই ভরি স্বর্ণালঙ্কার নিয়ে গেছে। দুপুরে নিহত আবদুল শেখের ময়নাতদন্ত শেষে লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। রাজশাহী মেডিকেল কলেজের (রামেক) ফরেনসিক বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. এনামুল হক আবদুল শেখের ময়নাতদন্ত করেছেন। ডা. এনামুল হক জানান, বিষয়টি খুবই স্পর্শকাতর। ময়নাতদন্তের পরেই কিছু বলা সম্ভব হচ্ছে না। পরিষ্কার করে বলার মতো কোনো বিষয় নেই। ভিসেরা সংগ্রহ করা হয়েছে। রিপোর্ট আসলে বিষয়টি নিয়ে পরিষ্কার হওয়া যাবে।


লাইক এবং শেয়ার করুন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও অন্যান্য সংবাদ