,

AD
নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

ভালুকায় শ্রেণীকক্ষে ঢুকে শিক্ষককে পেটালেন ইউপি মেম্বার

লাইক এবং শেয়ার করুন

ভালুকা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধিঃ ময়মনসিংহের ভালুকায় (৩ জানুয়ারী) মঙ্গলবার উপজেলার পাঁচগাঁও সানরাইজ উচ্চ বিদ্যালয়ের শ্রণীকক্ষে প্রবেশ করে পাঠদানরত সহকারী শিক্ষক হাফিজ উদ্দীনকে পিটিয়ে আহত করেছে হারুন অর রশীদ নামে এক ইউপি মেম্বার। এই ঘটনার প্রতিবাদে ওই বিদ্যালয়ের ছাত্র ছাত্রীরা ক্লাশ বর্জণ করেছে। মঙ্গলবার দুপুরে ওই বিদ্যালয়ের দেখা যায় ছাত্র ছাত্রীরা মাঠে অবস্থান করছে। তারা জানায় ওই বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক হাফিজ উদ্দীন সকাল সাড়ে ১১ টার সময় সপ্তম শ্রেণীর ছাত্র ছাত্রীদের বাংলা প্রথম পত্র পাঠ দান করছিলেন।

এ সময় পাঁচগাঁও গ্রামের মরহুম আবুল কাসেম ফজুলল হকের ছেলে ৮নং ডাকাতিয়া ইউনিয়নের ৮নং পাঁচগাঁও ওয়ার্ডের মেম্বার ওই বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সদস্য হারুন অর রশীদ শ্রেণী কক্ষে প্রবেশ করে শিক্ষক হাফিজকে অতর্কিত ভাবে মারধোর শুরু করে রক্তাক্ত জখম করে। এ সময় ছাত্র ছাত্রীরা ভয়ে আতংকিত হয়ে যায়। সপ্তম শ্রেণী হতে বেড়িয়ে ষষ্ঠ শ্রেণীর কক্ষে প্রবেশ করে সহকারী শিক্ষক রুহুল আমীনকে মারতে উদ্যত হলে মোশারফ হোসেন নামে এক স্থানীয় বাসিন্দা বাধাদেয়। এ সময় সে একটি হাজিরাখাতা ছিঁেড় বাইরে ফেলেদেয়। আহত শিক্ষক হাফিজ উদ্দীন জানান কোন কিছু বোঝার আগেই তিনি হামলার শিকার হন।

এ ব্যাপারে ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শাহ মোঃ আব্দুল মতিন জানান অভিযুক্ত হারুন মেম্বার বিদ্যালয়ে ছাত্র ছাত্রীর ভর্তি, পরীক্ষার ফিসের টাকা থেকে চাঁদা দাবী করে আসছিল। চাঁদার টাকা না দেয়ায় ক্ষিপ্ত হয়ে শিক্ষককে মারধোর করেছে। এর আগেও সে প্রধান শিক্ষককে দা নিয়ে তাড়া করেছিল।

এ ব্যাপারে বিদ্যালয়ের অভিভাবক সদস্য মেহের উল্লাহ ফকির বাবুল, সাইদুল ইসলাম, জয়নাল আবেদীন ফকির, ছাত্র অভিভাবক আফতাব উদ্দীন, আফাজ উদ্দীন, মজিবর রহমান, মনোয়ার হোসেন বিষয়টি অত্যন্ত দুঃখ জনক ও শিক্ষার জন্য হুমকি উল্লেখ করে এর প্রতিকারের দাবী জানিয়েছেন। ছাত্র ছাত্রীরা বিচার না হওয়া পর্যন্ত ক্লাশ বর্জনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এ ঘটনায় এলাকার ছাত্র অভিভাবকদের মধ্যে ব্যাপক উত্তেজনা দেখা দিয়েছে। এ ব্যাপারে প্রধান শিক্ষক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। ঘটনার পর হতে ওই মেম্বার তার মোবাইল ফোনটি বন্ধ করে গা ঢাকা দিয়েছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কামরুল আহসান তালুকদার বিষয়টি স্বীকার করে বলেন-অভিযোগ পেয়েছি,অভিযুক্তকে ধরার জন্য পুলিশ পাঠানো হয়েছে।


লাইক এবং শেয়ার করুন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

আরও অন্যান্য সংবাদ