,

AD
নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

ঝালকাঠি অসহায় ভূমিহীনদের জমি ভূমিদস্যুর দখলে

লাইক এবং শেয়ার করুন

ঝালকাঠি প্রতিনিধিঃ ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলার মঠবাড়ী ইউনিয়নের সুন্দর গ্রামের ভূমিহীন পরিবারের নামে সরকারী বন্দোবস্থ দেয়া জমি লুটেপুটে খাচ্ছে প্রভাবশালী একটি মহল। ভূমিহীন পরিবারগুলো এ ঘটনায় রাজাপুর থানায় একাধীক বার মামলা করেও কোনো প্রতিকার পায়নি বলে অভিযোগ করেছেন ভূমিহীনরা।
উপজেলা ভূমি অফিস সূত্র জানায় ১৯৮৩ সাল থেকে ৩ দফায় বিষখালী নদী ভাঙ্গন কবলিত এলাকার দুর্ঘত মানুষের মাঝে প্রত্যেককে ৭৫ শতাংশ করে খাস জমির স্থায়ী বন্দোবস্ত দেয়া হয়। ভূমিহীনদের নামে ঐ জমির রেকর্ড থাকলেও কেউ বন্দোবস্ত জমি ভোগ করতে পারছেনা বলে ভূমিহীনরা অভিযোগ করেন। ঐ মৌজায় ৩দফায় মোট ৪৯জন ভূমিহীন পরিবারদের মাঝে সরকারী জমির বন্দোবস্ত দেয়া হয় এবং সর্ব শেষ ২০১২ সালে যে জমির বন্দোবস্ত দেয়া হয় তাহারও রেজিষ্ট্রিকৃত দলিল ভূমিহীনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়।
ভূমিহীনরা বহুবার তাদের জমির দখল নিতে গেলে প্রভাবশালী ঐ মহলটির দাপটে কেউ জমির দারেকাছে যেতে পারেননি। অনেক পরিবার নদীতে বাড়ী ঘড় হারিয়ে গৃহ হারা হয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন। উপজেলা প্রশাসন থেকে সরকারী আমিনের মাধ্যমে ঐ জমির একবার পরিমাপ করে পিলার পুতে দেয়া হলেও তার স্থায়ীত্ব ছিলো মাত্র ১ রাত। রাতের আধারে প্রভাবশালীরা ঐ সমস্থ পিলার উপড়ে ফেলে দেয় নদীতে।
 পুলিশ, প্রশাসন ও আদালতের দ্বারে দ্বারে ঘুরে কোনো সুবিচার না পেয়ে এখন তারা নিরাশ হয়ে পড়েছেন। জমির দখল নিতে গেলে একাধিকবার ভূমিহীনরা প্রভাবশালীদের হামলার শিকার হয়েছেন। এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবিএম সাদিকুর রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, বন্দোবস্ত দেয়া জমির প্রকৃত মালিক ভূমিহীন পরিবার গুলো। যারা জোর করে দখল করে জমি চাষাবাদ করছে তারা সম্পূর্ন অবৈধ ভাবে ভোগ করছে।
 এদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ মনিরুজ্জামান এর কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, প্রয়োজনে স্থানীয় লোকজন ও পুলিশ, প্রশাসন নিয়ে ভূমিহীনদের জমি তাদের বুঝিয়ে দেয়া হবে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে এ আশ^াস পেলেও ভূমিহীন পরিবার গুলো অনিশ্চিয়তায় ভুগছে। তাদের নামে দেয়া বন্দোবস্ত জমির দখল পাওয়ার জন্য উর্দ্দত্বন মহলের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।


লাইক এবং শেয়ার করুন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

আরও অন্যান্য সংবাদ