,

AD
নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

সিলেটে তলিয়ে গেছে ৩৬ হাজার ৮৮০ হেক্টর জমির ফসল

লাইক এবং শেয়ার করুন

সুনামগঞ্জসহ সিলেটের সর্বত্র বিভিন্ন হাওরে হু হু করে ঢুকছে বন্যার পানি। হাওরের পর হাওর তলিয়ে যাচ্ছে পানির নিচে। গতকাল মঙ্গলবারও নতুন নতুন হাওর পানিতে তলিয়ে গেছে। প্রাণপণ চেষ্টায়ও ফসল রক্ষা করতে পারছেন না কৃষক। চোখের সামনে সোনার ফসল পানির নিচে তলিয়ে যেতে দেখে অসহায় কৃষক দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। পানি যে ভাবে ঢুকছে তাতে এখন গবাদিপশু ও বাড়িঘর রক্ষা করাও কঠিন হয়ে যাবে বলে আশঙ্ককা প্রকাশ করেছেন তারা।

কোথাও কোথাও বাড়ি ঘরেও পানি উঠতে শুরু করেছে। ইতোমধ্যে দোয়ারাবাজারে পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন ১০ হাজার মানুষ। তলিয়ে গেছে ৭ হাজার হেক্টর জমির ধান। জগন্নাথপুরের বৃহত্তর নলুয়ার হাওরের পর দ্বিতীয় বৃহত্তম মইয়ার হাওরের ফসলও তলিয়ে গেছে। মঙ্গলবার ওই হাওরের দুইটি বাঁধ ভেঙে যাওয়ার ফলে হাওরের পুরো ফসল পানিতে তলিয়ে যায়। এতে ৪ হাজার হেক্টর বোরো ধান তলিয়ে গেছে বলে স্থানীয় কৃষকরা জানিয়েছেন।

একই উপজেলার আশারকান্দি ইউনিয়নের মোকামের ঢালার বাঁধ ভেঙে কালনীচর হাওরের ফসল পানিতে তলিয়ে যাচ্ছে বলে কৃষকরা জনিয়েছেন। এদিকে, সিলেটের কানাইঘাট উপজেলার বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি হয়েছে। উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে তলিয়ে গেছে আড়াই হাজার হেক্টর জমির ফসল। ভারি বর্ষণে জকিগঞ্জের আড়াই হাজার হেক্টর জমির ধান তলিয়ে গেছে। বিশ্বনাথে গতকাল মঙ্গলবার ঝড় ও ভারী বৃষ্টিপাতে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। বৃষ্টির পানিতে তলিয়ে গেছে উপজেলার প্রায় ৬ হাজার ২৫০ হেক্টর বোরো ধান। উপজেলার দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সভায় বিশ্বনাথ উপজেলাকে দুর্গত উপজেলা ঘোষণার দাবি জানানো হয়েছে।

এদিকে, মৌলভীবাজারের ৭টি উপজেলার প্রায় ১০ হাজার হেক্টর জমির ফসল তলিয়ে গেছে বলে জানা গেছে। সুনামগঞ্জের হাওরগুলোর সার্বিক অবস্থা পর্যবেক্ষণ করেছেন জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব স্থানীয় ব্যক্তিবর্গ। গতকাল তাহিরপুরের শনির হাওর পরিদর্শন করেছেন সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল হুদা মুকুট।

এদিকে, একমাত্র ফসল হারিয়ে কৃষকরা দুঃখ, ক্ষোভ আর হতাশায় ভুগছেন। হাজার হাজার হেক্টর জমির ধান হারিয়ে এখন ভবিষ্যৎ অনিশ্চয়তার মধ্যে চোখে অন্ধকার দেখছেন তারা। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ফসল রক্ষা বাঁধের কাজ সম্পন্ন না করায় সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা ও ঠিকাদারদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করে বিভিন্ন স্থানে অবরোধ-মানববন্ধন করেছেন সর্বস্তরের মানুষ। গতকাল দুপুর ১২টা থেকে ২ট পর্যন্ত দক্ষিণ সুনামগঞ্জে ২ ঘন্টা রাস্তা অবরোধ করে রাখেন কৃষক-জনতা। হাওরাঞ্চলে আগাম বন্যায় ফসলহানিতে কৃষকদের ক্ষতিপূরণ ও দুর্নীতিগ্রস্ত ঠিকাদার ও পাউবোর কর্মকর্তাদের শাস্তির দাবিতে মঙ্গলবার বিকাল ৩টায় সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে পরিবেশ ও হাওর উন্নয়ন সংস্থা।

সিলেট কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আবুল হাশেম জানান, মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত সিলেট জেলায় ৩৬ হাজার ৮৮০ হেক্টর জমির বোরো ফসল তলিয়ে গেছে। এ হিসাব আরো বাড়বে বলে জানান তিনি। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো: মনজুরুল হান্নান গতকাল ফেঞ্চুগঞ্জের হাকালুকি, দামড়ি এবং গোলাপগঞ্জের বিভিন্ন হাওর পরিদর্শন করেন। তিনি ক্ষতিগ্রস্ত হাওরসমূহ ঘুরে দেখার পাশাপাশি কৃষকদের সাথে কথা বলেন এবং তাদেরকে সান্ত¦না দেন।

আবুল হাশেম জানান, সিলেটে এখনো বৃষ্টিপাত অব্যাহত রয়েছে। বিশ্বনাথ থেকে আমাদের প্রতিনিধি জানান, বিশ্বনাথে গতকাল মঙ্গলবার ভোরে ঝড় ও ভারী বৃষ্টিপাতে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ঝড় ও বৃষ্টিতে উপজেলার খাজাঞ্চী, লামাকাজী, দেওকলস, দৌলতপুর, রামপাশা, বিশ্বনাথ ইউনিয়ন সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বয়ে যাওয়া ঝড় আধা ঘণ্টা স্থায়ী ছিল। ঝড়ে উপজেলার কাদিপুর দারুল হিকমাহ এতিমখানার টিনশেড ঘর ঝড়ে দুমড়ে মুচড়ে গেছে। উপজেলা সদরের পুরানস্থ এলাকায় একটি বড় গাছ উপড়ে পড়ে। অনেক গ্রামে বাড়ির বসত ঘরের টিন উড়ে গেছে বলে জানা যায়। দিন দিন উপজেলার বিভিন্ন নদী-নালা, খাল-বিল-হাওরে পানির উচ্চতা বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে প্রতিনিয়তই বাড়ছে ক্ষতির পরিমাণ।

‘অতিবৃষ্টি ও পাহাড়ী ঢলে’ উপজেলার ৮টি ইউনিয়নের সর্বত্র রবিশস্য ও বোরো ধান তলিয়ে যাওয়ায় ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ চরমে পৌঁছেছে। মঙ্গলবার পর্যন্ত পানিতে তলিয়ে গেছে প্রায় ৬ হাজার ২৫০ হেক্টর জমির বোরো ধান। গতকাল উপজেলার দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সভায় বিশ্বনাথ উপজেলাকে দুর্যোগপূর্ণ উপজেলা ঘোষণার দাবি জানানো হয়। সভায় পানিতে তলিয়ে যাওয়া বোরো ধান গাছ থেকে আর কোনো রকমেই ফসল পাওয়া সম্ভব নয় বলে উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে জানানো হয়।

উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সুহেল আহমদ চৌধুরী’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় কৃষকদের ক্ষতিপূরণ প্রদান এবং ঋণ গ্রহণকারী কৃষকদের সুদ মওকুফের দাবি জানান। কৃষকদের পাশাপাশি ঝড়-বৃষ্টিতে ক্ষতিগ্রস্তদের আর্থিক সহায়তা প্রদানের আহবান জানানো হয়।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) অমিতাভ পরাগ তালুকদার’র পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন-উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আবদুল হক, বিশ্বনাথ সদর ইউপি চেয়ারম্যান ছয়ফুল হক, দৌলতপুর ইউপি চেয়ারম্যান আমির আলী, দেওকলস ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল তাহিদ, অলংকারী ইউপি চেয়ারম্যান নাজমুল ইসলাম রুহেল, রামপাশা ইউপি চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ আলমগীর, খাজাঞ্চী ইউপি চেয়ারম্যান তালুকদার গিয়াস উদ্দিন, উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা হাবিবুর রহমান, শিক্ষা কর্মকর্তা মহিউদ্দিন আহমদ, প্রকৌশলী খন্দকার গোলাম শওকত, ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা শফিক উদ্দিন আহমদ, সমাজ সেবা কর্মকর্তা আবু ইউসুফ, উপজেলা জাতীয় পার্টির সাবেক যুগ্ম আহবায়ক একেএম দুলাল, বিশ্বনাথ প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক প্রনঞ্জয় বৈদ্য অপু, সদস্য অসিত রঞ্জন দেব, নূর উদ্দিন, সাংবাদিক মোসাদ্দিক হোসেন সাজুল প্রমুখ।

কানাইঘাট থেকে প্রতিনিধি জানান, গত এক সপ্তাহ ধরে টানা ভারি বৃষ্টিপাত ও ভারতের মেঘালয় রাজ্য থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে কানাইঘাটের সার্বিক বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। হাওর সহ গ্রামীণ এলাকার সমস্ত বোরো ধানের জমি বন্যার পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় কৃষকদের মধ্যে হাহাকার চলছে। টানা ভারি বৃষ্টিপাত ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে প্রায় ২ হাজার হেক্টর বোরো ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

ঝড় বৃষ্টি অবিরাম হওয়ায় উপজেলার ৯টি ইউনিয়ন ও পৌরসভার হাওর এলাকা এবং নিম্নাঞ্চলে পানি দিন দিন বৃদ্ধি পাওয়ায় জনজীবন বির্পযস্ত হয়ে পড়েছে। সুরমা ও লোভা নদীর বিভিন্ন স্থানে ভাঙন দেখা দিয়েছে। সুরমা ও লোভা নদীর তীরবর্তী এলাকায় ভাঙন দেখা দেওয়ায় অনেকে বাড়ি ঘর ছেড়ে অন্যত্র আশ্রয় নিয়েছেন। গতকাল থেকে সুরমা নদীর পানি বিপদসীমার ৯০ সেঃ মিঃ উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

এদিকে, বিভিন্ন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান তাদের এলাকাকে বন্যাদুর্গত এলাকা ঘোষণা করে জরুরি ভিত্তিতে সরকারি ত্রাণসামগ্রী প্রেরণের দাবি জানিয়েছেন। জকিগঞ্জ (সিলেট)থেকে নিজস্ব সংবাদদাতা জানান, গত সপ্তাহের ভারি বর্ষণের ফলে জকিগঞ্জে প্রায় আড়াই হাজার বোরো ফসল পানির নিচে তলিয়ে গেছে। শত কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত আপার সুরমা কুশিয়ারা প্রকল্পের অভিশাপে তাদের বোরো ফসল তলিয়ে গেছে বলে অভিযোগ করেছেন কৃষকরা।

কৃষক আব্দুল মনাফ জানান, শত কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত আপার সুরমা কুশিয়ারা প্রকল্পের কারণে জকিগঞ্জের বালাইর হাওর, চালিয়ার হাওর, মইলাট হাওর, যুগনী বিল, কাকড়াকুঁড়ি বিল, হাকাই বিলসহ কোনো বিল ও হাওরের পানি নদীতে যেতে পারছে না। ফলে উপজেলার বারহাল, খলাছড়া, বিরশ্রী, সুলতানপুর, মানিকপুর, বারঠাকুরী, জকিগঞ্জ সদরসহ উপজেলার বিভিন্ন স্থানে বন্যা দেখা দিয়েছে। অনেক রাস্তাঘাট ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পানি উঠেছে। এদিকে, সুরমা-কুশিয়ারা নদীতে হু-হু করে পানি বাড়ছে।

উপজেলার বড়চালিয়া, বিরশ্রী, কেছরী, মাইজকান্দি, ছবড়িয়া, মানিকপুর, রারাই, সেনাপতিরচক, আমলসীদ, বারঠাকুরী, মিয়াগুল, চককোনাগ্রাম, চকসহ বিভিন্ন এলাকার নদীর বেড়িবাঁধ হুমকির মুখে রয়েছে। উপজেলা কৃষি অফিসার বিজয় কৃষ্ণ হালদার জানান, উপজেলার প্রায় সব কয়টি ইউনিয়নে বন্যা দেখা দিয়েছে। এতে প্রায় আড়াই হাজার হেক্টর বোরো ফসল পানির নিচে তলিয়ে গেছে। কৃষকরা এ বছর ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি বলে জানান তিনি।

জগন্নাথপুর (সুনামগঞ্জ) থেকে প্রতিনিধি জানান, জেলার সর্ববৃহৎ জগন্নাথপুরের নলুয়া হাওরের ফসল ডুবির পর গতকাল আরো কয়েকটি হাওরের বেড়িবাঁধ ভেঙে ফসল পানিতে তলিয়ে গেছে। উপজেলার দ্বিতীয় বৃহৎ মইয়ার হাওরের নারিকেল তলা এলাকায় গতকাল মঙ্গলবার দুইটি বেড়িবাঁধ ভেঙে হাওরে পানি প্রবেশ করেছে। গত শনিবার নলুয়ার হাওরের কয়েকটি বাঁধ ভেঙে যাওয়ায় ইতোমধ্যে মইয়ার হাওরে পানি প্রবেশ করে। গতকাল মঙ্গলবার ওই হাওরের দুইটি বাঁধ ভেঙে যাওয়ার ফলে হাওরের পুরো ফসল পানিতে তলিয়ে যায়।

এতে ৪ হাজার হেক্টর বোরো ফসলের ক্ষতি হয়েছে বলে স্থানীয় কৃষকরা জানিয়েছেন। এদিকে, আশারকান্দি ইউনিয়নের মোকামের ঢালার বাঁধ ভেঙে কালনীচর হাওরের ফসল পানিতে তলিয়ে যাচ্ছে বলে কৃষকরা জানিয়েছেন বলে জানান তিনি। মইয়ার হাওরের কৃষক জমির মিয়া জানান, দু’টি বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে হাওরে পানি প্রবেশ করছে। ২০ তিনি কেদার জমিতে চাষাবাদ করেছিলেন। সব ফসল পানিতে তলিয়ে গেছে। সম্পূর্ণ টাকা জলে ভেসে গেলো।

উপজেলার আশারকান্দি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শাহ আবু ইমানী জানান, মোকামের ঢালার বাঁধ ভেঙে বানাইয়ার হাওর, ঐয়ারকোণা, পিলিয়ার হাওরের প্রায় ১হাজার ৫শত একরের ফসল পানিতে নিমজ্জিত হয়ে গেছে।


লাইক এবং শেয়ার করুন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

আরও অন্যান্য সংবাদ