,

AD
নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

টাকা দিলেই অনলাইন সংবাদপত্রে র আইডি কার্ড,উদয় জুয়েল

লাইক এবং শেয়ার করুন

অনলাইন সাংবাদিকতা কি : অনলাইন সংবাদপত্র হলো একটি সংবাদপত্রের অনলাইন সংস্করণ যা একক ভাবে শুধুমাত্র অনলাইনে প্রকাশিত অথবা কোন মুদ্রিত সংবাদপত্রের অনলাইন সংস্করণ হিসেবেও প্রকাশিত হতে পারে। সংবাদপত্রের অনলাইন সংস্করণে ব্রেকিং নিউজ প্রচারের সুবিধা সম্প্রচার সাংবাদিকতার সাথে সংবাদপত্রের প্রতিদ্বন্দ্বীতামুলক অবস্থান নিশ্চিত করে। সংবাদপত্র শিল্পে একটি সংবাদপত্র টিকে থাকার শর্ত হিসেবে এর বিশ্বাসযোগ্যতা, শক্তিশালী ব্র্যান্ড স্বীকৃতি এবং বিজ্ঞাপনদাতাদের সাথে প্রতিষ্ঠিত ঘনিষ্ঠ সম্পর্ককে নির্দেশ করা হয়। এছাড়াও মুদ্রণ প্রক্রিয়ার তুলনায় অনলাইন প্রকাশনা সাশ্রয়ী বলে এই আন্দোলন আরো বেগবান হয়েছে।

সিলেট অনলাইন দৈনিকের সংখ্যা কত এমন প্রশ্ন করলে কেউ তার সঠিক উত্তর দিতে পারবেন না। সিলেট বিভিন্ন স্থানে ব্যাঙের ছাতার মত শত শত অনলাইন পত্রিকা চালু হয়েছে যেমন : লেচুবাগান,লালবাজার,উপশহর,আবার অনেকের নিজের দোকানে করেছেন অনলাইন সংবাদপত্র অফিস। রঙ-বেরঙের বাহারী বিজ্ঞাপন দিয়ে দেশের সর্বত্র প্রতিনিধি চাওয়া হচ্ছে। এসব অনলাইন সংবাদপত্রে র সত্যায়িত সিল-স্বাক্ষর বিক্রি করা হচ্ছে প্রকাশ্যেই।

অনেকে ‘সাংবাদিক’ পরিচয় দেবার সুবিধার্থে এসব দৈনিক অনলাইন সংবাদপত্র কাজ করছেন। কিছুদিন কাজ করার পর দৈনিকের কর্ণধাররা ওইসব সাংবাদিককে একটা ‘আইডি’ ধরিয়ে দিচ্ছেন। কিন্তু নেই কোন নিয়োগপত্র । বেতন দেবার ত কোন প্রশ্নই উঠেনা। অনলাইন সাংবাদিকদের অনেকে জনগণের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে প্যান্টের হুকের সাথে আইডি কার্ডটি ঝুলিয়ে রাখছেন। মোটরবাইকে বড় অক্ষরে ‘প্রেস’ লিখছেন। কি হল জনগণ জানছেন উনি সাংবাদিক। ওই কার্ড ঝুলিয়ে সাংবাদিক পেশাদার সাংবাদিকদের কাতারে চলাফেরা করছেন এই সব হলুদ সাংবাদিক গন। তাদের আচরণে পেশাদাররা সাংবাদিক বিব্রতবোধ করছেন।

ইদানিং সিলেট অনলাইন সাংবাদিকতা এতই জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে যে, অনেকে প্রতিষ্ঠিত পেশা ফেলে এসব দৈনিকের কার্ডধারী হচ্ছেন। কি ফায়দা তা তিনি ও সাধারণ অনেক মানুষ জানেন। আমি একজন পেশাদার সাংবাদিক একটি প্রতিষ্ঠিত অনলাইন সংবাদপত্র সিলেট ব্যুরো প্রধান হিসেবে দায়িত্বে আছি।১ বছর কাজ করার পরে অফিস থেকে একটি কার্ড দেয়া হয় নিজের নিরাপত্তার জন্য। অনেকে সাংবাদিক আবার কাজ করেন কিন্তু কার্ড ছাড়া। অন্যদিকে এখন এই ভুয়া কার্ডধারী সাংবাদিকের সংখ্যা এমন দাঁড়িয়েছে যে, নিজে সাংবাদিক এই পরিচয়টি দিতে মাঝে মাঝে খারাপ লাগে। কারণ সাধারণ মানুষ বুঝে গেছে- কার্ড থাকলেই সে সাংবাদিক না। এ জন্য বলব, ভুয়া কার্ড যারা তৈরি করছে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হোক।


লাইক এবং শেয়ার করুন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও অন্যান্য সংবাদ