,

AD
নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

গ্রাম ছেড়ে না গেলে সন্ত্রাসীরা জানে মেরে ফেলবে

লাইক এবং শেয়ার করুন

জাহাঙ্গীর আলম, বগুড়া:

 

বগুড়ার নন্দীগ্রামে ৪লাখ টাকা চাঁদা না দেয়ায় ক্রয়কৃত সম্পত্তি জোরপূর্বক জবর-দখলের অভিযোগ সঠিক নয় দাবি করে পাল্টা সংবাদ সম্মেলন করেছেন উপজেলার ভাটগ্রাম ইউনিয়নের কাথম পূর্বপাড়া গ্রামের মৃত মিরা প্রমানিকের মেয়ে মাসুদা খাতুন।

 

সোমবার বেলা ১১টায় উপজেলা প্রেসক্লাব ভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করে মাসুদা খাতুন বলেন, গত ১৭এপ্রিল রোববার কয়েকটি জাতীয়, স্থানীয় ও অনলাইন পত্রিকায় প্রকাশিত “নন্দীগ্রামে ৪লাখ টাকা চাঁদা না দেয়ায় সম্পত্তি দখলের অভিযোগ” শীর্ষক সংবাদ সম্মেলনটি সঠিক নয়। প্রকাশিত ওই সংবাদ সম্মেলনে আমার ছোট ভাই সিদ্দিক, স্বামী নুর আমীন, ভগ্নিপতি রমজানসহ নিরিহ ব্যক্তিদের সন্ত্রাসী আখ্যায়িত করে আমাদের মানসম্মান ক্ষুন্ন করাসহ মূলত প্রতিপক্ষরা চক্রান্ত করে আমার নিজ নামীয় পত্রিক সম্পত্তি দখলের চেষ্টায় লিপ্ত।

 

 

 

সংবাদ সম্মেলনকারি প্রতিপক্ষ কাথম গ্রামের সাদেক আলীর ছেলে ইউনুছ আলী নাশকতা মামলার এজাহার নামীয় আসামি, নাশকতাকারিদের অর্থ যোগানদাতা ও নাশকতার পরিকল্পনাকারি হিসেবে পরিচিত।

 

সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করে মাসুদা বলেন, কাথম মৌজার ১৭৮৬নং খতিয়ানের ২৭৮৯, ২৭৯১ ও ২৭৯৮নং দাগের ৫শতক জমি আমার নিজ নামীয় পত্রিক সম্পত্তি। সেই সম্পত্তি জোরপূর্বক দখল করতে প্রতিপক্ষ ইউনুছ আলী নানা ধরনের মিথ্যা অপচেষ্টা করাসহ ভাড়াটে সন্ত্রাসী দিয়ে প্রতিনিয়িত আমাকে ও আমার মা পরিমন বেগমকে হুমকি অব্যহত রেখেছে।

 

গত ১০এপ্রিল আমি আমার সম্পত্তির উপর মাটি কাটা ও ঘর নির্মাণের কাজ করছিলাম। হঠাত করে সকাল ১০টার দিকে ইউনুছ আলীসহ কয়েকজন সন্ত্রাসী হাতে লাঠিসোটা ও ধারালো অস্ত্র নিয়ে আমার সম্পত্তির উপর অনাধিকার প্রবেশ করে অস্ত্রের মুখে আমাকে কাজ বন্ধ করতে বলে। প্রতিপক্ষ ইউনুছ আলী হুমকি দিয়ে বলেছে, আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে সম্পত্তি এবং গ্রাম ছেড়ে না গেলে আমাদের জানে মেরে ফেলবে। মামলা-হামলাসহ প্রাননাশের হুমকি দেয় তারা।

 

 

 

সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে প্রকাশিত সম্মেলনের তীব্র প্রতিবাদ করাসহ প্রশাসনের উর্ধতন কতৃপক্ষের হস্তক্ষেপে ভ‚মিদস্যু ইউনুছ আলীর বিরুদ্ধে যথাযথ আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের জোরদাবি জানাচ্ছি। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, কাথম গ্রামের হাবিবর রহমান ও নুর আমীন।

 

 

 

 

 


লাইক এবং শেয়ার করুন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও অন্যান্য সংবাদ