,

AD
নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

সিংড়ায় সরকারি ডহর দখল করে আ’লীগ নেতার রাইচ মিল

লাইক এবং শেয়ার করুন

সাইফুল ইসলাম, নাটোর প্রতিনিধি: নাটোরের সিংড়া পৌর শহরের সোহাগবাড়ি গ্রামে সরকারি ডহর দখল করে রাইচ মিল, গুদাম ঘর নির্মাণ করেছেন আব্দুস সালাম সরকার নামে আ’লীগের প্রভাবশালী এক নেতা। আব্দুস সালাম পৌর শহরের ৯নম্বর ওয়ার্ড আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। পৌর শহরের ঘন বসতিপূর্ণ এলাকায় সরকারি ডহর অবৈধভাবে দখল করে রাইচ মিল নির্মাণ করায় পার্শ্ববর্তী বেশকিছু পরিবারের জীবন যাপন দূর্বিসহ হয়ে উঠেছে মর্মে অভিযোগ করেছেন এলাকাবাসী। এবিষয়ে সোমবার পরিবেশ অধিদপ্তর, স্থানীয় উপজেলা ভূমি অফিস ও সিংড়া থানাসহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তরে লিখিত অভিযোগ করেছেন এলাকাবাসী।

লিখিত অভিযোগ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, পৌর শহরের সোহাগবাড়ি গ্রামে পরিবেশ সংরক্ষণ আইনের তোয়াক্কা না করে সরকারি ডহর অবৈধভাবে দখল করে রাইচ মিল ও গুদাম ঘর নির্মাণ করেছেন স্থানীয় প্রভাবশালী আ’লীগের নেতা আব্দুস সালাম সরকার। ডহরটি দখল করে রাইচ মিল ও চাতাল নির্মাণ করায় এলাকাবাসীর যাতায়াতসহ মিলের ছাই ও দূষিত পানিতে পার্শ্ববর্তী অন্তত ৩০টি পরিবারের জীবন যাপন দূর্বিসহ হয়ে উঠেছে। সোমবার সকালে সরোজমিনে গিয়ে দেখা যায়, মিলের ছাইয়ে ভুক্তভোগী পরিবারের রান্না করা খাবার নষ্ট হয়ে গেছে। শিক্ষার্থীদের পড়ার টেবিল ও বিছানায় জমেছে ছাইয়ের স্তুপ।

স্থানীয় গৃহিনী রহিমা বেগম জানান, প্রতিদিনই দূষিত পানির গন্ধ আর মিলের ছাইয়ে জীবন যাপন বড় কঠিন হয়ে গেছে। এবিষয়ে একাধিকবার পৌরসভায় লিখিত অভিযোগ করাও হয়েছে। কিন্তু কোন অদৃশ্য শক্তির কারণে  ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। তিনি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। স্থানীয় কৃষক শুকুর আলী জানান, তাদের জায়গা দখল করে ওই রাইচ মিল নির্মাণ করা হয়েছে। সালাম এলাকার প্রভাবশালী ব্যক্তি হওয়ায় নিরীহ মানুষের বিচারের জায়গা নেই।

অভিযুক্ত মিল মালিক আব্দুস সালাম জানান, পরিবেশ অধিদপ্তরের অনুমতি নিয়েই পৌর এলাকায় তার রাইচ মিল নির্মাণ করা হয়েছে। আর মিলটি তার নিজস্ব জায়গায় করা হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন। তবে পাচীরটি সরকারি জায়গায় রয়েছেন বলে তিনি স্বীকার করেন। সিংড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাসির উদ্দিন মন্ডল জানান, সোহাগবাড়ি গ্রামের একটি রাইচ মিলের কারণে বেশ কিছু পরিবারের জীবন যাপন দুর্বিসহ উঠেছে মর্মে এলাকাবাসী একটি থানায় সাধারণ ডায়েরী করেছে। সহকারী কমিশনার (ভূমি) জাহেদুল ইসলাম জানান, এলাকাবাসী তার দপ্তরে একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন। বিষয়টি তিনি তদন্ত করে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দেন।


লাইক এবং শেয়ার করুন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও অন্যান্য সংবাদ