,

AD
নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

লক্ষ্মীপুরে জঙ্গীবাদ প্রতিরোধ কমিটিতে সাবেক ছাত্রদল নেতা যুগ্ম আহবায়ক

লাইক এবং শেয়ার করুন

কিশোর কুমার দত্ত, লক্ষ্মীপুর # লক্ষ্মীপুরে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪দলীয় ঐক্যজোটের জঙ্গীবাদ প্রতিরোধে গঠিত চন্দ্রগঞ্জ থানা কমিটিতে মোশারফ হোসেন পাটোয়ারী নামে সাবেক এক ছাত্রদল নেতাকে যুগ্নআহবায়ক করা হয়েছে। এছাড়াও আহবায়ক করা হয় আওয়ামী লীগের বহিস্কৃত নেতা ছাবির আহম্মদকে। এ নিয়ে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের মাঝে ক্ষোভ ও অসন্তোষ বিরাজ করছে। তারা এ কমিটিকে ‘হাইব্রীড নেতাদের’ কমিটি উল্লেখ্য করে তা প্রত্যাহার করে, দলের ত্যাগী নেতাদের দিয়ে কমিটি গঠনের দাবি জানান।

দলীয় ও স্থানীয় সূত্র জানায়, দত্ত পাড়ার শ্রীরামপুর গ্রামের বাসিন্দা মোশারফ হোসেন ১৯৯৪-৯৫সালে দত্তপাড়া কলেজ ছাত্রলদলের সহ-সাধারন সম্পাদক ছিলেন। পরবর্তিতে বিএনপির একজন সক্রিয় কর্মী হিসেবে তার পরিচিতি রয়েছে। তার বিরুদ্ধে দত্তপাড়ার তৎতকালীন দূর্ধর্ষ সন্ত্রাসী আনোয়ার-শামিম বাহিনীর সঙ্গে বিশেষ সখ্যতার অভিযোগ ছিলো। তিনি  গত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিএনপি থেকে সদরের চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন। সেসময় বিএনপি থেকে মনোনয়ন পাচ্ছেন জানিয়ে তিনি স্থানীয় গনমাধ্যম কর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময়ও করেন। শেষ পর্যন্ত বিএনপি থেকে তাকে মনোনয়ন দেয়া হয়নি। গত ৬-৭মাস থেকে তিনি এক নেতার আশ্রয়ে হঠাৎ করেই আওয়ামী লীগ বণে যান। হঠাৎ আওয়ামী লীগ বণে যাওয়া এ নেতা ইতিমধ্যে চন্দ্রগঞ্জ থানা ক্রীড়া সংস্থার একটি পদ বাগিয়ে নেন। বর্তমানে চন্দ্রগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সেক্রেটারী পদ বাগিয়ে নেওয়ারও চেষ্টা করছেন বলে দলীয় সূত্র জানিয়েছে।

এদিকে চন্দ্রগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান এম ছাবির আহম্মদ জাসদের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন। ইউপি নির্বাচন হওয়ার আগে তিনি আওয়ামী লীগে যোগ দিয়ে জেলা কৃষকলীগের সাধারন সম্পাদক হন। এর কয়েক মাস পর তাকে দল থেকে বহিস্কার করা হয়। গত ২২ ও ২৫ জুলাই স্বাক্ষরিত জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি গোলাম ফারুক পিংকু ও সাধারন সম্পাদক নুরউদ্দিন চৌধুরী নয়ন চন্দ্রগঞ্জ থানা ১৪দলীয় ঐক্যজোটের জঙ্গীবাদ সন্ত্রাস, নৈরাজ্য ও সাম্প্রদায়িকতা প্রতিরোধ কমিটি অনুমোদন দেন। এতে ছাবির আহম্মদকে আহবায়ক ও মোশারফ হোসেন পাটোয়ারী, রহমত উল্যাহ বিপ্লব, শামছুল হক, তিতাস সেন ও মতব্বত উল্লাহকে যুগ্নআহবায়ক এবং মাহবুবুল করিম টিপুকে সদস্য সচিব করে ৭১সদস্য বিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়।

সদর উপজেলার দত্তপাড়া ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি এম বেলাল হোসেন জানান, মোশারফের ছাত্রদলের পদবী তার মনে নেই। তবে সে দত্তপাড়া কলেজে ছাত্রদলের রাজনীতি ও পরবর্তীতে বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন। গত উপজেলা নির্বাচানেও বিএনপি থেকে তিনি চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন চেয়েছিলেন।

জেলা কৃষকলীগের যুগ্ন আহবায়ক ও চন্দ্রগঞ্জ থানা এলাকার বাসিন্দা হিজবুল বাহার রানা জানান, মোশারফ হোসেনসহ কয়েকজন ‘হাইব্রীড’ হঠাৎ এসব নেতাকে দিয়ে ১৪দলীয় মহাজোটের জঙ্গীবাদ প্রতিরোধে চন্দ্রগঞ্জ থানা কমিটি করা হয়েছে। বিএনপি নেতা মোশারফ হোসেন দত্তপাড়ার একসময়ের দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী শামীম ও আনোয়ার বাহিনীর প্রধান অর্থ যোগানদাতা ছিলেন। বর্তমানে তাকে চন্দ্রগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের নেতা বানানোর জন্য অপচেষ্টা চালানো হচ্ছে। তিনি এটাকে আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্র ও মুজিব আদর্শ বিরোধী উল্ল্যেখ করে নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান।


লাইক এবং শেয়ার করুন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

আরও অন্যান্য সংবাদ