,

AD
নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

ঝিনাইদহে এবার প্রতারক চক্রের ফাঁদ-পাকা ধানে মই

লাইক এবং শেয়ার করুন

ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃ জমি চাষ করেছেন, ক্ষেতে ধান লাগিয়েছেন, যত্ন করে নিড়ানী সার ঔষধ দিয়েছেন, ক্ষেতের ধান পেকে গিয়েছে অথচ তা কাটতে দেয়া হচ্ছে না। ঝিনইদহের শৈলকুপার পার কাঁচেরকোল গ্রামের  প্রান্তিক কৃষক সাইদুল ও তুহিন জোয়ার্দ্দারের ঘরে আমন মৌসুমে ঘরে উঠবে পাকা ধান, এই বাস্তবতা এখন দু:স্বপ্ন করে দিয়েছে প্রতারক চক্র।

নানা ফাঁদ পেতে, জাল কাগজপত্র বানিয়ে এখন দাবি করা হচ্ছে ক্ষেতের ধান তাদের পাওনা, জমি তাদের । এই চাষীরা আদালতের স্মরণাপন্ন হলে আদালত জমির স্থিতিশীল অবস্থা  জারি রাখার নির্দেশনা দিয়েছ্নে। একই সাথে দ্বিতীয় পক্ষকে কারণ দর্শানোর নোটিশ জারি করেছেন। ফলে এখন মাঠের পাকা ধান নিয়ে বিপাকে পড়েছেন ঐ দুই কৃষক। সরেজমিনে দেখা গেছে, শৈলকুপার পার কাঁচেরকোল গ্রামে গিয়ে দেখা গেছে, গ্রামটির মিস্ত্রি পাড়ায় কৃষক সাইদুল জোয়ার্দ্দার ও তার ভাই তুহিন জোয়ার্দ্দার তাদের পৈত্রিক প্রায় ১একর ৫০ শতক জমির উপর এবার ধান, হলুদ ও মরিচ চাষ করেছেন।

পৈত্রিক সম্পত্তি হিসাবে গত ৫০ বছরের বেশী সময় ধরে তারা এসব জমি ভোগ-দখল করছেন। কিন্তু অতি সাম্প্রতি  উত্তর মির্জাপুর গ্রামের শওকত আলী শহিদ নামের এক ব্যক্তি সেখানে জমি দাবি করে আসছে। অভিযোগ উঠেছে ঐ কৃষকের মায়ের কাছ থেকে এক সময় ১৯ শতক জমি বন্দক নেয় শওকত পরে তা ক্রয় করে কিন্তু এখন সবই দাবি করে আসছে।

শওকতের সাথে রুয়েল সহ আরো কিছু ব্যাক্তি ঐ কৃষকদের পাকা ধান কাটতে দিচ্ছে না। এসব ফসল জোর করে কেটে নেয়ার হুমকি সহ পরিবারের উপর হুমকি দিয়ে চলেছে। এ ঘটনায় কৃষক তুহিন জোয়ার্দ্দার সাংবাদিককে জানায়, অতীতে কোন সময় তাদের জমিতে কেউ কোন দাবি তোলেনি, এখন জোর করে এসব করছে। পুলিশের সহযোগীতা পাচ্ছেন না বলে তিনি অভিযোগ করছেন। এ ব্যাপারে শওকতের সাথে তার মোবাইলে বার বার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও  তিনি ফোন ধরেননি। কচুয়া তদন্ত কেন্দ্রের এএসআই আব্দুর রাজ্জাক জানান, শান্তি শৃঙ্খলা রক্ষার্থে জমি নিয়ে যাতে কোন সহিংসতা, সংঘর্ষ না হয় সে জন্য আদালতের আদেশ মানা হচ্ছে । পুলিশ কারো পক্ষ নেয়নি।


লাইক এবং শেয়ার করুন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

আরও অন্যান্য সংবাদ