,

AD
নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

রাবির সমাজকর্ম বিভাগের প্রথম দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত

লাইক এবং শেয়ার করুন

জি.এ.মিল্টন, রাবি প্রতিনিধি : বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে পালিত হলো রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) সমাজকর্ম বিভাগের প্রথম দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন। সমাজকর্ম অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের উদ্যোগে শুক্রবার বেলা সাড়ে ১০ টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজী নজরুল ইসলাম মিলনায়তনে সম্মেলন অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা হিসেবে ছিলেন নির্বাচন কমিশনার বেগম কবিতা খানম।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে নির্বাচন কমিশনার বেগম কবিতা খানম বলেন, সমাজকর্মের কাজ হচ্ছে সামজের সেবা করা। কিন্তু আমরা আজ অনেক প্রতিবন্ধকতার মধ্যে রয়েছি। নতুন প্রজন্ম মাদকাসক্তি হয়ে পড়েছে। একজন সন্তান একটি পরিবারের ভবিষ্যৎ। সে যদি হয় মাদকাসক্ত তাহলে পরিবারে নেমে আসে ধ্বংস। সে মা-বাবা, ভাই-বোন বোঝে না সে শুধু মাদকাসক্তিতে পড়ে থাকে। এর জন্য বাবা-মাকে আঘাত করতেও সে কখনো পিছপা হয় না।

তিনি আরও বলেন, আমাদের নতুন প্রজন্মেকে ধর্মীয় অপব্যাখ্যা দিয়ে ধ্বংসের দিকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে । এদেশে ধর্মীয় অপব্যাখ্যা দিয়ে সন্তানকে মায়ের বুক থেকে কেড়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। তাদেরকে বিপদের মুখে ফেলে দেওয়া হচ্ছে।

বেগম কবিতা খানক বলেন, আমার সন্তান কখন বাইরে যাচ্ছে আর কখন হত্যার শিকার হচ্ছে আমরা তা জানি না। তাই নতুন প্রজন্মকে এই অপব্যাখ্যা থেকে দূরে সরিয়ে আনতে পরিবারই সবচেয়ে বড় ভূমিকা রাখে। এছাড়া তাদেরকে সঠিক পথে ফিরিয়ে আনতে ফেজবুকসহ সকল গণমাধ্যকে সামাজিক কর্মকান্ডের মাধ্যমে তুলে ধরতে হবে। তাদেরকে নতুন আলোর পথ দেখাতে হবে।

সমাজকর্ম বিভাগের প্রফেসর শাহীদুর রহমান চৌধুরীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন রাবির কোষাধ্যক্ষ প্রফেসর সায়েন উদ্দিন আহমেদ, সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের অধিকর্তা প্রফেসর ফয়জার রহমান। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন সমাজকর্ম অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের আহ্বায়ক প্রফেসর ছাদেকুল আরেফিন মাতিন। এছাড়াও অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন রাজশাহী ওয়াসার সচিব সাদেকুর ইসলাম সৈকত, সমাজকর্ম বিভাগের প্রফেসর আশরাফুজ্জামান, সমাজসেবা অধিদপ্তরের ডিডি মোজাম্মেল হোসেন প্রমুখ।

অনুষ্ঠানের আগে সমাজকর্ম বিভাগের সামনে থেকে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিটি ক্যাম্পাসের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজী নজরুল ইসলাম মিলনায়তনের সামনে এসে শেষ হয়।

এছাড়াও  কাজী নজরুল ইসলাম মিলনায়তনে স্মৃতিচারণমুলক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। সন্ধ্যায় এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্যদিয়ে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘটে।


লাইক এবং শেয়ার করুন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও অন্যান্য সংবাদ