,

AD
নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

শওকত ওসমানের জন্মশতবর্ষ উপলক্ষে রাবিতে স্মারক বক্তৃতা

লাইক এবং শেয়ার করুন

জি.এ.মিল্টন, রাবি প্রতিনিধি : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) বাংলা গবেষণা সংষদের আয়োজনে শওকত ওসমানের জন্মশত বর্ষ উপলক্ষে স্মারক বক্তৃতা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার বেলা ১১ টার বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদুল্লাহ কলা ভবনের ১৫০ নম্বর কক্ষে অনুষ্ঠানে স্মারক বক্তা ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক সৈয়দ আজিজুল হক।

‘শওকত ওসমানের উপন্যাস: উপনিবেশবাদ-বিরোধী রাজনৈতিক চেতনা’ শীর্ষক বক্তৃতায় অধ্যাপক সৈয়দ আজিজুল হক বলেন, শওকত ওসমান ৪৭ এর রাজনৈতিক পরিবর্তনের প্রক্রিয়ায় এদেশে এলেন ঠিকই কিন্তু নতুন শাসক গোষ্ঠির আধা ঔপনিবেশিক শাসন পরিকল্পনা সম্পর্কে তার মনে কোন মোহ ছিল না। উপনিবেশবাদ হোক আর আধা উপনিবেশবাদ হোক সবাই শোষণের শৃঙ্খল। শোষকের কোনো জাত নেই কোন ধর্ম নেই। তিনি আমৃত্যু শোষক ও শোষণের বিপক্ষে এবং শোষিত-নিন্মবর্গের পক্ষে এক প্রতিবাদী ব্যক্তিত্ব।

তিনি আরও বলেন, শওকত ওসমান সরকারী কলেজের শিক্ষক হওয়ায় শৈরতান্ত্রিক মনোভঙ্গির কারনে তার পক্ষে সম্ভব হয়নি নব্য উপনিবেশবাদের বিরুদ্ধে প্রত্যক্ষভাবে প্রতবাদী লেখনী পরিচালনায়। তাই তার উপন্যাস গুলোতে রুপকেরই জয়জয়কার।

আজিজুল হক বলেন, আর্তনাত, পতঙ্গ পিঞ্জর, জলাংগী, নেকড়ে অরণ্যসহ প্রায় প্রতিটি উপন্যাসেই আমরা প্রত্যক্ষ করি শোষক ও শোষিতদের দারিদ্র্য পীড়িত মানুষের নানা চিত্র। আর এইসব চিত্র আমাদের সত্যের মুখোমুখি করে যে, শোষিত পীড়িত মানুষগুলো সমাজের যত নিন্ম প্রান্তেই অবস্থান করুক না কেন তারা এ অবস্থান কে মেনে নেয় না। তারা সব সময় উচ্চকিত হয় প্রতিবাদে, বিক্ষোভে, সংগ্রামে। অনুষ্ঠানে বাংলা গবেষণা সংসদের সভাপতি প্রফেসর খন্দকার ফরহাদ হোসেন বলেন, আমরা আগামী অক্টোবর-নভেম্বর মাসে শওকত ওসমান নামে পুরস্কার প্রদান করবো। প্রতি দুই বছর পর পরই আমরা স্মারক বক্তৃতার আয়োজন করবো বলেও জানান তিনি।

বাংলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক গেীতম গোম্বামীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন রাবির বাংলা বিভাগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি পি.এম. সফিকুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন বিভাগের অধ্যাপক সফীকুন্নবী সামাদী এবং শওকত ওসমানের জীবনী পাঠ করেন অধ্যাপক মিজানুর রহমান খান। এছাড়াও অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন শওকত ওসমানের কনিষ্ঠ পুত্র বুলবুল ওসমান। স্মারক বক্তৃতায় বিভাগের শিক্ষার্থীসহ বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষককেরা উপস্থিত ছিলেন।


লাইক এবং শেয়ার করুন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও অন্যান্য সংবাদ