,

AD
নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

পরীক্ষা ও ফলাফলের দাবিতে ইবির কম্পিউটার সায়েন্স বিভাগের অফিস কক্ষে তালা

লাইক এবং শেয়ার করুন

মোঃ রাজন আমান (কুষ্টিয়া জেলা প্রতিনিধি)# কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে পরীক্ষা ও ফলাফলের দাবিতে তালা দিয়ে অবস্থান কর্মসূচী পালন করেছে বিভাগের শিক্ষার্থীরা। সোমবার সকাল ১১ টার দিকেবিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের বিভিন্ন শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীরা এ অবস্থান কর্মসূচী পালন করে বলে জানা যায়। এসময় বিভাগের শিক্ষকরাও তাদের সাথে আন্দোলনে অংশনিয়ে কর্মসূচীতে একত্বতা ঘোষনা করে বলে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা জানিয়েছেন। প্রায় ২ ঘন্টা আন্দোলনের পর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের আশ্বাসে অবস্থান কর্মসূচী তুলে নেয় শিক্ষার্থীরা।

জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ডইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে মোট ৯ টি ব্যাচ আছে। ২০০৮-০৯ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীরা মাস্টার্স পরীক্ষা শেষ করছে। তবে তারা এখনো থিসিসের কাজ করছে। গত ৩০ জানুয়ারী ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীরা ক্লাস শুরু করেছে।বিভাগে ২০০৮-০৯ শিক্ষাবর্ষ থেকে ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষ পর্যন্ত মোট ৯ টি ব্যাচ বিদ্যমান। এর মধ্যে বিভিন্ন শিক্ষাবর্ষের পরীক্ষা শেষ হয়েছে দীর্ঘ এক বছর আগেই। দীর্ঘদিন আগে পরীক্ষা শেষ হলেও এখনো ফল প্রকাশ করছেন না সংশ্লিষ্টরা। বিভিন্ন শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীদের কোর্স শেষ হলেও তাদের পরীক্ষার সময়সূচীও ঘোষণা করছেনা বিভাগ। তাই বিভাগের বিভিন্ন শিক্ষাবর্ষের পরীক্ষার ফলপ্রকাশ এবং বিভিন্ন শিক্ষাবর্ষের পরীক্ষার দাবিতে সকাল ১১ টার দিকে বিভাগে তালা দিয়ে অবস্থান কর্মসূচী পালন করেছে বিভাগের শিক্ষার্থীরা।

এসময় বিভাগের অনেক শিক্ষক এসে শিক্ষার্থীদের এ কর্মসূচীতে অংশ নেন বলে প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে। পরে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের হস্তক্ষেপে  বেলা ১২টার দিকে আন্দোলন থেকে সাময়িকভাবে সরে আসে শিক্ষার্থীরা। আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা জানায় “আমরা আমাদের পরীক্ষা ও বিভিন্ন শিক্ষাবর্ষের ফলাফলের দাবিতে কর্মসূচী পালন করছিলাম। প্রক্টরিয়াল বডি এসে স্যারদের সাথে কথা বলে আমাদের কাছ থেকে ৩ দিন সময় নিয়েছে। তিন দিন পরে আমাদের সিদ্ধান্ত দেয়া হবে বলে জানায়। তাই আমরা আন্দোলন সাময়িকভাবে স্থগিত করেছি। তিনদিন পরে কোন ভাল সিদ্ধান্ত না পেলে আমরা আবার আন্দোলনে যাবো।”নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষের এক শিক্ষার্থী বলেন, “আমাদের প্রথম বর্ষের চূড়ান্ত পরীক্ষা শেষ হয়েছে ২০১৫ সালে আগস্ট মাসে। রেজাল্টও হয়েছে ওই বছরে। তবে এখনো দ্বিতীয় বর্ষের পরীক্ষার সিডিউল দেয়নি। আমরা যতদ্রুত সম্ভব পরীক্ষা চাই।”এ বিষয়ে বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক ড. আসাদুজ্জামান বলেন,“আমরা বিভাগের শিক্ষকরা মিটিং করেছি। আমরা বিভাগের পক্ষ থেকে কিছু পদক্ষেপ নেবো। পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনও কিছু বিষয়ে সহায়তা করবে। আশা করছি দ্রুত একটি সমাধানে যাবো।”


লাইক এবং শেয়ার করুন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও অন্যান্য সংবাদ