AD
নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

শিল্পকর্ম ফেলে রাবিতে শিক্ষার্থীদের প্রতিবাদ

লাইক এবং শেয়ার করুন

জি.এ.মিল্টন, রাবি প্রতিনিধি : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) চারুকলা অনুষদ চত্বরে শিল্পকর্মের নিরাপত্তায় প্রাচীর নির্মাণসহ বিভিন্ন দাবিতে নিজেদের শিল্পকর্ম ফেলে প্রতিবাদ করেছেন মৃৎশিল্প ও ভাস্কর্য বিভাগের শিক্ষার্থীরা। সোমবার রাতে তারা এ ঘটনা ঘটিয়েছে বলে জানিয়েছেন তারা। মঙ্গলবার সকালে সেখানে গিয়ে দেখা যায় শিক্ষার্থীদের তৈরি করা ভাস্কর্যসহ বিভিন্ন শিল্পকর্ম এলোমেলো করে ফেলে রাখা হয়েছে।

তবে এ ঘটনায় মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। ঘটনায় জড়িত শিক্ষার্থীরা বলছেন তাদের শিল্পকর্মগুলোর নিরাপত্তায় প্রাচীর নির্মাণসহ বিভিন্ন দাবি পূরণ না হওয়ায় তারা এ কাজ করেছেন। অন্যদিকে অনেক শিক্ষার্থী বলেছেন এভাবে আন্দোলনের নামে রাতের অন্ধকারে শিল্পকর্ম ফেলে রাখার মাধ্যমে শিল্পের অবমাননা করা হয়েছে।

মৃৎশিল্প ও ভাস্কর্য বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী ইউসুফ আলী স্বাধীন বলেন, ‘আমরা দীর্ঘদিন ধরে দাবি জানিয়ে আসছি বিভাগের শিল্পকর্মগুলোর নিরাপত্তার জন্য প্রাচীর নির্মাণ করা হোক। কিন্তু এখনো সে দাবি পূরণ হয় নি। তাই এর প্রতিবাদে আমরা শিল্পকর্ম উল্টে রেখেছি।’ রাতের অন্ধকারে কেন এটা করা হলো জানতে চাইলে আরেক শিক্ষার্থী ইমরান হোসাইন রনি বলেন, ‘দিনের বেলায় এসব করলে স্যাররা বাধা দিতো তাই আমরা রাতে করেছি। আমরা ৩০-৪০ ছিলাম। আমরা আমাদের শিল্পকর্মের নিরাপত্তা চাই।’

বিপরীত প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী সঞ্জয়। তিনি এ ঘটনার নিন্দা জানিয়ে বলেন, আমরা নিরাপত্তা বৃদ্ধির দাবির সঙ্গে একমত। কিন্তু সেজন্য এভাবে শিল্পকর্ম অবমাননা করা উচিত হয় নি। এরসঙ্গে সবাই একমত না। কয়েকজন শিক্ষার্থী নিজেদের সিদ্ধান্তে এসব করেছে। ঘটনাস্থলে উপস্থিত রাবির ব্যবস্থাপনা বিভাগের অধ্যাপক ও নাট্যব্যক্তিত্ব মলয় কুমার ভৌমিক ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘এটা কখনো আন্দোলনের ভাষা হতে পারে না। আন্দোলনের নামে শিল্পকর্মের অবমাননা করা হয়েছে। তারা অন্যভাবে তাদের দাবি জানাতে পারতো। এটা অত্যন্ত ন্যাক্কারজনক কাজ হয়েছে।’

এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে চারুকলা অনুষদের ডিন প্রফেসর মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘কয়েকজন ছাত্র এটা করেছে। তাদের মধ্যে সামান্য অসন্তোষ ছিল। তেমন কিছু করেনি, এলোমেলো করে রেখেছে। সবাই তো এক রকম হয় না। তাদের সঙ্গে কথা হয়েছে। আমরা তাদের দাবি শুনেছি। ব্যবস্থা নেয়ার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ঊর্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানাবো।


লাইক এবং শেয়ার করুন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও অন্যান্য সংবাদ