,

AD
নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

রাবিতে শিক্ষার্থীকে মারধর, প্রতিবাদে মানববন্ধন

লাইক এবং শেয়ার করুন

জি.এ.মিল্টন, রাবি প্রতিনিধি: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) দুই শিক্ষার্থীকে মারধর করেছে স্থানীয় যুবলীগের কয়েকজন নেতা-কর্মী। গতকাল সোমবার রাত ৯টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন মির্জাপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এর প্রতিবাদে মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে মানববন্ধন করেছে বিভাগে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। মারধরের শিকার শিক্ষার্থীরা হলেন-বিশ্ববিদ্যালয়ের ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের এনামুল হক পলাশ ও সুজন মিয়া। তবে মারধরকারীদের পরিচয় পাওয়া যায়নি।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, পলাশ ও সুজন রাত ৯টার দিকে মির্জাপুর থেকে বিনোদপুরে আসছিলেন। এসময় নেশাগ্রস্ত অবস্থায় স্থানীয় যুবলীগের কার্যালয় থেকে কয়েকজন নেতা-কর্মী বের হয়ে কোন কারণ ছাড়াই তাদের বেধড়ক চড়-থাপ্পর ও কিল-ঘুষি দিতে থাকে। এরপর তাদের উদ্ধার করতে আরও কয়েকজন শিক্ষার্থী সেখানে গেলে তাদের কাছ থেকে মোবাইল কেড়ে নিয়ে দেশীয় অস্ত্র দেখিয়ে ধাওয়া করে যুবলীগের নেতা-কর্মীরা।

এ ঘটনার সুরাহা করতে শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম কিবরিয়ার কাছে গেলে তিনি মহানগর আওয়ামী লীগের মধ্যাস্থতায় এ ঘটনার সুরাহা করার আশ্বাস দেন। জানতে চাইলে গোলাম কিবরিয়া বলেন, স্থানীয় যুবলীগের কয়েকজন নেতা-কর্মী বিশ্ববিদ্যালয়ের দুইজন শিক্ষার্থীকে মারধর করেছে। বিষয়টি খুবই দু:খজনক। আজ আমরা বসে এ ব্যাপারে মীমাংসা করব।

এদিকে এ ঘটনার প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছে বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। আজ মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে বিশাল মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন। মানববন্ধনে ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজ বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী ইকবাল মোড়লের সঞ্চালনায় বক্তব্য দেন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক নাসিম রেজা, সহকারী অধ্যাপক জুহুরুল আনিস, কে এম সাব্বির হোসেন, বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী আজিজুল হক, আসলাম, তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী মৌসুমী, দ্বিতীয় বর্ষের আসিফ সাদ্দাম প্রমুখ।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সব সময় আমাদের আশ্বস্ত করেন কিন্তু বাস্তবায়ন করেননা। ছাত্রদের অস্তিত্ব রক্ষার জন্য কোনো পদক্ষেপ গ্রহন করেন না। আমাদের দেয়ালে পিট ঠেকে গেলে আমরা আমাদের অস্তিত্ব রক্ষার জন্য যেকোনো পদক্ষেপ নিতে বাধ্য হবো। আমরা আশা করি আমাদের আপনারা বাধ্য করবেন না। মানববন্ধনে বক্তারা আরও বলেন, নির্যাতনের ঘটনা আরো আগে আমাদের ক্যাম্পাসে ঘটেছে। কালকের ঘটনাতে  আমাদের শুধু এক ভাইকে নির্যাতন করা হয়নি। সকল শিক্ষার্থীদেরকে অপমান করা হয়েছে। মানববন্ধন থেকে চারটি দাবি জানানো হয়।
 
এর আগে বেলা সাড়ে ১০ টার দিকে রবীন্দ্র ভবনের সামনে প্রধান ফটক বন্ধ করে অবস্থান নেন শিক্ষার্থীরা। প্রায় দেড় ঘন্টা অবস্থানের পর তাদের একটি প্রতিনিধি দল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরের সাথে দেখা করে লিখিত অভিযোগ দেন। এ বিষয়ে জানতে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক মজিবুল হক আজাদ খানের সাথে বারবার যোগাযোগ করা হলে তিনি মিটিং আছেন বলে ফোন কেটে দেন।


লাইক এবং শেয়ার করুন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও অন্যান্য সংবাদ