,

AD
নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য ‘সুপার জোকস’ : ফখরুল ইসলাম আলমগীর

লাইক এবং শেয়ার করুন

দেশে গণতন্ত্র ‘ভালো চলছে’ বলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে বক্তব্য দিয়েছেন, সেটিকে ‘সুপার জোকস’ বলছে বিএনপি। দলটির দাবি, ‘বাংলাদেশে গণতন্ত্র বলতে কিছুই নেই। প্রধানমন্ত্রী সত্যের অপলাপ করে জনগণের সঙ্গে প্রতারণা করেছেন।’ বৃহস্পতিবার দুপুরে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক যৌথসভা শেষে এই বিষয়ে কথা বলেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

বিএনপির মহানগর উত্তর-দক্ষিণ শাখার কর্মীসভা উপলক্ষে শীর্ষ নেতাদের নিয়ে এই যৌথসভা হয়। মির্জা ফখরুল বলেন, ‘গণতন্ত্র নিয়ে প্রধানমন্ত্রী যে কথা বলেছেন সেটি সুপার জোকস।’ ‘গতকাল বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবস পালিত হয়েছে। সেই দিবসে আমরা যে সমস্ত বক্তব্য শুনেছি, বিশেষ করে সরকারি ঘরোনার লোকজনের কাছ থেকে শুনলাম যে, গণমাধ্যমের ওপর সরকারের পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণ রয়েছে। গণতন্ত্রের মূল যে ফ্রি প্রেস- সেটাই তো চলছে না।’

সহায়ক সরকারের দাবি আদায়ে বিএনপির পদক্ষেপ জানতে চাইলে দলটির মহাসচিব বলেন, ‘যখন সময় আসবে তখন যথাসময়ে আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হবে। একটু ধৈর্য ধরতে হবে।’ নির্বাচনকালীন সহায়ক সরকার নিয়ে খুব শিগগিরই একটি রূপরেখা দেওয়া হবে বলেও এ সময় জানান মির্জা ফখরুল। দেশব্যাপী বিএনপির কর্মীসভাগুলোতে বাধা দেওয়া হচ্ছে অভিযোগ করে তিনি বলেন, ‘বিএনপি দলের নেতা-কর্মীদের রাজনৈতিকভাবে উজ্জীবিত করতে ইতিমধ্যে সাংগঠনিক সফর শুরু করেছে। কিন্তু সেই সফরে নানাভাবে বাধা দেওয়া হচ্ছে। আমরা অনেক জায়গায় কর্মী সম্মেলন করতে বাধাগ্রস্ত হয়েছি।’

ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকারকে ‘দুর্নীতিবাজ সরকার’ আখ্যা দিয়ে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘দুর্নীতি হচ্ছে এদের প্রধান উদ্দেশ্য। যার উত্তর সম্প্রতি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক দিয়ে দিয়েছেন। আসলে তারা নিজেরাই স্বীকার করে নিয়েছেন যে, তারা (আওয়ামী লীগ সরকার) দুর্নীতি করছেন এবং পালিয়ে যাবেন।’ যৌথসভার পর সংবাদ সম্মেলনে মির্জা ফখরুল জানান, আগামী ৭ মে মহানগর দক্ষিণের উদ্যোগে ঢাকা নাট্যমঞ্চে এবং ৮ মে মহানগর উত্তরের কর্মীসভা রাজধানীর ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে অনুষ্ঠিত হবে। তবে ডিপ্লোমা ইনস্টিটিউশনের কর্মীসভাটি হবে পুলিশ প্রশাসনের অনুমতি সাপেক্ষে।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আমান উল্লাহ আমান, ঢাকা মহানগর বিএনপির (দক্ষিণ) সভাপতি হাবিব উন নবী খান সোহেল, সাধারণ সম্পাদক কাজী আবুল বাশার, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রশিদ হাবিব, রবিউল ইসলাম রবি, মহানগর উত্তরের সিনিয়র সহসভাপতি বজলুল বাসিত আঞ্জু, সাধারণ সম্পাদক আহসান উল্লাহ হাসান, সহসভাপতি শাহবুদ্দিন, নির্বাহী কমিটির সদস্য তাবিথ আউয়াল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।


লাইক এবং শেয়ার করুন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও অন্যান্য সংবাদ