,

AD
নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

নতুন কমিটির প্রত‍্যাশায় মরিয়া ছাত্রদল

লাইক এবং শেয়ার করুন

বিশেষ সংবাদদাতা : ছাত্রদলের দুই বছর মেয়াদী কমিটি প্রায় আড়াই বছর অতিক্রম করলেও নতুন কমিটি গঠনের দৃশ‍্যত তৎপরতায় ঢিলেঢালা ভাব দেখা যাচ্ছে বলে মনে করছেন দল সংশ্লষ্ট কর্তা ব‍্যক্তিরা। এর কারণ হিসেবে তারা দলের সার্বিক প্রক্রিয়ার শ্লথ গতিকেই দায়ি করছেন। তবে কেউ কেউ মনে করছেন যুবদল এবং মহানগর বিএনপি কমিটি গঠণের জটিলতায় ছাত্রদলের কমিটি গঠন কিছুটা পিছিয়ে গেলেও এখন যেকোন সময়ে গঠিত হতে পারে ছাত্রদলের নতুন কমিটি। ছাত্র রাজনীতির একটা অলিখিত বাধা ধরা সময়কাল রয়েই যায়। তাই সঠিক সময়ে কমিটি না হওয়াকে একটা অভিশাপ হিসেবে দেখছেন খোদ সংগঠনের সিনিয়র নেতৃবৃন্দগণ। অনুসন্ধানে জানা যায়, রাজীব আহসান ও আকরামুল হাসানের বর্তমান কমিটি তাদের সময়ে একটা সাধারণ সভা পর্যন্ত ডাকার প্রয়োজন বোধ করেননি। সংগঠনের কোন পর্যায়ের কোন নেতার সাথেই তারা কথা বলার প্রয়োজন বোধ করেন না।

আকরামুল হাসানের বিরুদ্ধে আছে ব‍্যাপক অর্থ কেলেঙ্কারির অভিযোগ। দলের দুঃসময়ে এসব নিয়ে উচ্চবাচ‍্য, দলকে আরো ক্ষতির দিকে ঠেলে দিতে পারে এমন মনে করে কেউ মাঠ পর্যায়ে এসব নিয়ে মাতামাতি না করলেও দলীয় হাইকমান্ডকে অবহিত করে রাখছেন। ছাত্রদলের সিনিয়র নেতৃবৃন্দ নতুন কমিটির দাবীতে সভাপতি ও সম্পাদককে বর্জন করে চলেছেন মেয়াদোত্তীর্নের পর থেকেই। কিন্তু বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের বিরুদ্ধে সরকারের দমন পীড়নের নানা ইস‍্যুতে ঐক‍্যবদ্ধ আন্দোলন করা ছাড়া গত‍্যন্তর থাকে না বিধায় এর সুবিধা পেয়ে চলেছেন বর্তমান সভাপতি ও সম্পাদক। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, কিছু দিন পূর্বে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদল ‘ভয়েস অব কালুরঘাট’ নামে একটি ত্রৈমাসিক পত্রিকা বের  করেন। চেয়ারপারসনের  গুলশান কার্যালয়ে উক্ত পত্রিকার মোড়ক উন্মোচন করেন সংগঠনটির দলীয় প্রধান বেগম খালেদা জিয়া। সেখানে ৭৩৭ সদস‍্য বিশিষ্ট কেন্দ্রীয় কমিটির মাত্র ৫ জন নেতা উপস্থিত ছিলেন। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, নতুন কমিটির দাবীতে কোন বিশৃঙ্খলা না করে পদপ্রত‍্যাশী নেতারা অন্য কোনো ভাবে দলকে তাদের সময়ের দাবী বুঝাতে চান।

অভিযোগ আছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সহ ঢাকার প্রায় ইউনিটের কমিটি ইচ্ছে করেই পূর্ণাঙ্গ করা হচ্ছে না। ঢাকা কলেজ সহ যে দু’একটি কমিটি পূর্ণাঙ্গ করেছেন তা রীতিমতো হাস‍্যকর ৫০০,৭০০ জনের কমিটি। উক্ত কমিটির সহ-সভাপতি ও যুগ্ম-সম্পাদকরা খোদ তার সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে চিনেন না। ঢাকা কলেজ ৩৭৬ জনের কমিটি কেন্দ্রীয় সংসদকে জমা দিলে তা বেড়ে গিয়ে ৬৮১ জনে রুপ নেয়। অতিরিক্ত এই ৩০০ জন কোথা থেকে পয়দা হল তা ঢাকা কলেজ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক বিস্ময় প্রকাশ করেছেন বলে জানা যায়। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন কেন্দ্রীয় সম্পাদক বলেন,-“এত অন‍্যায় ও অবিচারের পরও রাজীব-আকরাম কমিটি আজো বহাল তবিয়তে আছে তা ভেবে অবাক হই। তাদের নিয়ে মন্ত‍ব‍্য করতেও ঘৃনা হয়”।

অধিকতর অনুসন্ধানে জানা যায়, নানা অনিয়ম ও আর্থিক দূর্নীতির বিষয়ে তারেক রহমান সহ দলের হাইকমান্ড ওয়াকিবহাল। দলীয় নানা জটিলতায় কমিটি গঠনে কালক্ষেপন হলেও যেকোনো সময়েই হতে পারে ছাত্রদলের নতুন কমিটি। অপেক্ষাকৃত তরুণ,মেধাবী,পরিশ্রমী ও সৎ নেতৃত্বের হাতে ছাত্রদলকে তুলে দিতে চান বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান। সেক্ষেত্রে ছাত্রদলের সভাপতি, সম্পাদক ও সিনিয়র সহ-সভাপতি রাজীব-আকরাম-মামুনকে যেমনিভাবে বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটিতে সদস্য করা হয়েছে,তেমনিভাবে বাদ পরা সিনিয়রদেরকে যুবদল এবং স্বেচ্ছাসেবক দলের পূর্নাঙ্গ কমিটিতে যথাযথ মূল‍্যায়ন করে তাদের রাজনৈতিক নিশ্চয়তা প্রদানের মাধ্যমে আগামীর বিএনপির জন‍্য তাদেরকে প্রস্তুত করা হবে বলে জানা যায়।


লাইক এবং শেয়ার করুন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরও অন্যান্য সংবাদ