,

AD
নববার্তা.কম এর সংবাদ পড়তে লাইক দিন নববার্তা এর ফেসবুক ফান পেজে

সরকার আরেকটি অনুগত ও অযোগ্য ইসি চায় : মির্জা ফখরুল ইসলাম

লাইক এবং শেয়ার করুন

মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আওয়ামী লীগের বিশ্বস্ত লোকদের দিয়েই করা হয়েছে সার্চ কমিটি। তারা কীভাবে একটি নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন গঠন করবে? আমরা মনে করি, এমন একটি সার্চ কমিটির মাধ্যমে নির্দলীয়, নিরপেক্ষ, সৎ, সাহসী ও যোগ্য ব্যক্তিগণ আগামী নির্বাচন কমিশনের চেয়ারম্যান কিংবা সদস্য হবেন, সেই আশা বাতুলতা মাত্র। সরকার আরেকটি অনুগত ও অযোগ্য নির্বাচন কমিশন চায়।

সার্চ কমিটি নিয়ে দলের আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া জানাতে শুক্রবার নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলন ডাকা হয় দলের পক্ষ থেকে। সেখানে এমন মন্তব্য করেন ফখরুল। সংবাদ সম্মেলনে স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ভাইস চেয়ারম্যান ডা. এ জেড এম জাহিদ, নিতাই রায় চৌধুরী, সিনিয়র যুগ্ন মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভী, সহ সাংঠনিক সম্পাদক আবদুস সালাম আজাদ, সহপ্রচার সম্পাদক আসাদুল করিম শাহিন প্রমুখ ছিলেন। তবে নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠনে সার্চ কমিটির পাঁচ সদস্যের নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন তুললেও এই মুহূর্তে কমিটি প্রত্যাখ্যান করেনি বিএনপি।।

মির্জা ফখরুল বলেন, সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের একজন মাননীয় বিচারপতিকে প্রধান করে ছয় সদস্যের অনুসন্ধান কমিটি গঠন করা হয়েছে। আগের বার গঠিত অনুসন্ধান কমিটিরও প্রধান ছিলেন তিনি। সেই কমিটির প্রস্তাবের ভিত্তিতে কাজী রকিবউদ্দীন আহমদের নেতৃত্বাধীন বর্তমান ইসি গঠিত হয়। বর্তমান ইসি অযোগ্য, মেরুদণ্ডহীন, বিতর্কিত। আগের অনুসন্ধান কমিটির প্রধানকে নতুন অনুসন্ধান কমিটির প্রধান করার অর্থ- সরকার আরেকটি অনুগত ও অযোগ্য ইসি করতে চায়।

বিএনপি মহাসচিবের দাবি, সার্চ কমিটির আরেক সদস্য সুপ্রিমকোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি। তিনি ছাত্রজীবনে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নেতা এবং ওকালতি জীবনে আওয়ামী লীগ সমর্থক আইনজীবী হিসেবে পরিচিত ছিলেন। পিএসসি চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাদিকের ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের সময় ইসি সচিবের দায়িত্বে ছিলেন। বিএনপি ওই নির্বাচন তারা বর্জন করেছিলেন। সার্চ কমিটির একমাত্র নারী সদস্য চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে উপ-উপাচার্য অধ্যাপক শিরীন আখতারের পারিবারিকভাবে আওয়ামী লীগ সম্পৃক্ততার কথা বলেন ফখরুল।

সিএজি মাসুদের রাজনৈতিক সম্পৃক্ততা না থাকলেও একজন সরকারি কর্মকর্তা হয়ে তিনি সরকারের ইচ্ছার বিরুদ্ধে কিছু করতে পারবেন না বলে মনে করেন ফখরুল। সার্চ কমিটির বাকি সদস্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের অধ্যা পক সৈয়দ মনজুরুল ইসলামের বিষয়ে কোনো আপত্তি তোলেনি বিএনপি। প্রসঙ্গত, গত বুধবার রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনকে আহ্বায়ক করে ছয় সদস্যের সার্চ কমিটি (অনুসন্ধান কমিটি) গঠন করেন। ওই দিন রাতে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এ-সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়।

কমিটির সদস্য হিসেবে রয়েছেন হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি ওবায়দুল হাসান, সরকারি কর্মকমিশন চেয়ারম্যান ড. মোহাম্মদ সাদিক, মহাহিসাব নিরীক্ষক ও নিয়ন্ত্রক (সিএজি) মাসুদ আহমেদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক ড. সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম এবং চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীন আখতার।


লাইক এবং শেয়ার করুন
শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

আরও অন্যান্য সংবাদ